দু’পক্ষের দফায় দফায় সংঘর্ষ, আহত ২০

প্রকাশ:| বুধবার, ১৩ এপ্রিল , ২০১৬ সময় ১১:০১ অপরাহ্ণ

সংঘর্ষ হামলা৬ষ্ঠ শ্রেণির এক মাদ্রাসা ছাত্রীকে উত্যক্ত করা নিয়ে নোয়াখালীর সুবর্ণচর উপজেলার আবদুল্লাহ মিয়ার হাট ও স্থানীয় বাইতুস সাইফ ইসলামিয়া দাখিল মাদ্রাসা এলাকায় উত্যক্তকারী-তার লোকজন ও ছাত্রীর বড় ভাই-স্বজনদের মধ্যে দফায় দফায় সংঘর্ষ ও ধাওয়া পাল্টা ধাওয়া হয়েছে।

বুধবার বিকেল থেকে সন্ধ্যা ৬টা পর্যন্ত দফায় দফায় এ হামলার ঘটনা ঘটে। এতে শিক্ষক-শিক্ষার্থী ও ব্যবসায়ীসহ দু’পক্ষের অন্তত ২০ আহত হয়েছেন।

আহতরা হলো- শিক্ষার্থীর বড় ভাই এসএসসি পরীক্ষার্থী চাঁন মিয়া (১৬),তার চাচা ব্যবসায়ী সোহরাব হোসেন (২৬), মাদ্র্সা শিক্ষার্থী আবদুল জলিল (১৭) ও আজগর আলী (১৬),শিক্ষার্থী বিবি আমেনা, নারগিস আক্তার, মো. আবদুল্লাহ, আবদুল করিম, মো.মনির হোসেন, মো. নুর নবী, শিক্ষক ইয়াকুব আলী, আমজাদ হোসেন মামুন, মো. ইব্রাহীম খলিল রাজু, মো. সোহেল, মো. হাছান, মো. ফারুক ও গিয়াস উদ্দিন। তাদেরকে নোয়াখালী জেনারেল হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে।

স্থানীয় সুত্রে জানা যায়, সুবর্ণচর উপজেলার চরজব্বর ইউনিয়নের উত্তর বাগ্গা গ্রামের কামাল মিয়ার মেয়ে ও স্থানীয় বাইতুস সাইফ ইসলামিয়া দাখিল মাদ্রাসার ৬ষ্ঠ শ্রেণির শিক্ষার্থীকে (১৪) একই মাদ্রাসার ৯ম শ্রেণির ছাত্র মনির হোসেন দীর্ঘদিন থেকে উত্যক্ত করতো। এ ঘটনা ছাত্রীটি তার পরিবার ও বড় ভাই চাঁন মিয়াকে জানায়। গত তিনদিন আগে সোমবার সকালে চাঁন মিয়া তার বোনকে উত্যক্ত না করার জন্য মনিরকে শাসায়। চাঁন মিয়া অভিযোগ করে বলেন, বুধবার দুপুরে তিনি আবদুল্লার হাট এলাকা থেকে নিজ বাড়ি ফেরার পথে সমিতি বাজার এলাকায় আশ্রাফের দোকানের সামনে উত্যক্তকারী মনিরসহ ২০/২৫ জন যুবক লোহার রড ও দারালো অস্ত্র নিয়ে তার ওপর হামলা করে। এ সময় তাকে সাহায্য করতে এগিয়ে আসা তার চাচা সোহরাব ও অন্যান্য স্বজনদেরকে হামলাকারীরা আক্রমণ করে। এ সময় উভয় পক্ষের মধ্যে সংঘর্ষ বাঁধে। এ ঘটনার পর সন্ধ্যায় পুনরায় দু’পক্ষের মধ্যে সংঘর্ষ হয়। এতে ২০ জন আহত হয়।

সুবর্ণচর উপজেলার চর জব্বর থানার ওসি মো. নিজাম উদ্দিন জানান, মাদ্রাসার এক ছাত্রীকে উত্যক্ত করা নিয়ে দু’পক্ষের মধ্যে সংঘর্ষ হয়েছে। এতে কিছু লোক আহত হয়েছে বলে শুনেছি। তবে এখনো পর্যন্ত অভিযোগ পাইনি।


আরোও সংবাদ