দু’তরুণীকে গণধর্ষণের অভিযোগে তিন বখাটে যুবককে যাবজ্জীবন

প্রকাশ:| বুধবার, ২৫ সেপ্টেম্বর , ২০১৩ সময় ০৬:৪৮ অপরাহ্ণ

ধর্ষণপোশাক কারখানার দু’তরুণীকে জোরপূর্বক তুলে নিয়ে গণধর্ষণের অভিযোগে তিন বখাটে যুবককে যাবজ্জীবন সশ্রম কারাদন্ড দিয়েছেন চট্টগ্রামের একটি আদালত। একইসঙ্গে তাদের এক লক্ষ টাকা করে জরিমানা দেয়ারও আদেশ দিয়েছেন বিচারক।

একই রায়ে আদালত অভিযোগ প্রমাণ না হওয়ায় আরও চার আসামীকে বেকসুর খালাস দিয়েছেন।

বুধবার চট্টগ্রামের নারী ও শিশু নির্যাতন দমন ট্রাইব্যুনাল-১ এর বিচারক মো.রেজাউল করিম এ রায় দিয়েছেন।

ট্রাইব্যুনালের সরকারী কৌসুলী পিপি অ্যাডভোকেট চন্দন তালুকদার বলেন, ‘তিনজন আসামীর বিরুদ্ধে রাষ্ট্রপক্ষের আনা অভিযোগ সন্দেহাতীতভাবে প্রমাণ হওয়ায় আদালত নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইনের ৯ (১) ধারায় তাদের যাবজ্জীবন কারাদন্ড দিয়েছেন।’

দন্ডিত তিন আসামী হল, পারভেজ, রানা এবং নাছির। খালাস পাওয়া ‍আসামীরা হল, হযরত আলী, মিঠুন, লিটন ও সোহেল।

আদালত সূত্রে জানা গেছে, ঘটনার শিকার দু’তরুণী চান্দগাঁও বাহির সিগন্যাল এলাকায় একই পোশাক কারখানার কর্মী ছিলেন এবং সেখানে ভাড়া বাসায় থাকতেন।

২০১১ সালের ২৮ অক্টোবর রাত ১টার দিকে চান্দগাঁও থানার বাহির সিগন্যাল এলাকায় হিন্দুপাড়ায় কালীপূজা দেখে বাসায় ফেরার পথে আসামীরা তাদের জোরপূর্বক সিএনজি অটোরিক্সায় তুলে নেয়। তাদের ওই এলাকার বেপারিপাড়ায় শংকর দেওয়ানজি হাটে আলী আকবরের খালি ঘরে নিয়ে জোরপূর্বক ধর্ষণ করে আসামীরা।

পরদিন ঘটনার শিকার দু’তরুণীর মধ্যে একজন বাদি হয়ে চান্দগাঁও থানায় সাতজনকে আসামী করে একটি মামলা দায়ের করেন। ২০১২ সালের ৮ ফেব্রুয়ারি আসামীদের বিরুদ্ধে আদালতে অভিযোগ পত্র দাখিল করেন তদন্তকারী কর্মকর্তা।

২০১২ সালের ৭ মে আসামীদের বিরুদ্ধে অভিযোগ গঠন করেন আদালত। অভিযোগপত্রে উল্লিখিত ১৯ জন সাক্ষীর মধ্যে রাষ্ট্রপক্ষে পাঁচজনের সাক্ষ্য গ্রহণ শেষে বুধবার আদালত এ রায় ঘোষণ‍া করেন।

পিপি জানান, রায় ঘোষণ‍ার সময় দন্ডিত পারভেজ ও রানা আদালতে হাজির ছিলেন। বাকিরা পলাতক আছেন। রায় ঘোষণার পর পারভেজ ও রানাকে কারাগারে পাঠানো হয়।