দুই ভাগে বিভক্ত গ্যাস ও বিদ্যুৎ এর মূল্য বৃদ্ধির কর্মসূচি

প্রকাশ:| সোমবার, ৩১ আগস্ট , ২০১৫ সময় ১১:৫৬ অপরাহ্ণ

কেন্দ্রীয় কর্মসূচির অংশ হিসেবে গ্যাস ও বিদ্যুৎ এর মূল্য বৃদ্ধির প্রতিবাদে আয়েজিত মানববন্ধনেও দুই ভাগে বিভক্ত চট্টগ্রাম মহানগর জাতীয় পার্টি। একপক্ষ তড়িঘড়ি করে সর্বসাকুল্য দুই মিনিটে মানবন্ধন র্কমসূচি শেষ করলেও, ঘোষণা দিয়েও আসেনি অপর পক্ষ ।

চট্টগ্রাম মহানগর জাতীয় পার্টিসোমবার ”চট্টগ্রাম প্রেসক্লাবের সামনে পাল্টপাল্টি মানববন্ধন কর্মসূচির ডাক দেয় জাতীয় পার্টি চট্টগ্রাম মহানগরের সাবেক সভাপতি সোলায়মান আলম শেঠ ও মহানগর জাতীয় পার্টির আহ্বায়ক মেহজাবিন মোরশেদ এমপি সমর্থিত গ্রুপ।

দুই পক্ষ একই সময়ে কর্মসূচির ডাক দেয়ায় পুলিশ দুই পক্ষকে আলাদা-আলাদা সময় বেঁধে দেয়।

সোলায়মান আলম শেঠ সমর্থিতদের বিকেল চারটা ও মেহজাবিন মোরশেদ সমর্থিতদের বিকেল পাঁচটায় সময় নির্ধারণ করে দেয়া হয়।

কর্মসূচি পালনে দুই পক্ষই মুখমুখি হওয়ার আশংকায় পুলিশ আশপাশের এলাকায় শক্ত অবস্থান নেয়। পাশাপাশি সেখানে অবস্থানরত গণমাধ্যমকর্মীরা নড়েচড়ে বসেন। বিকেল চারটার কিছু পরে জনা ত্রিশেক কর্মী নিয়ে প্রেসক্লাব চত্ত্বরে আসেন সোলায়মান আলম শেঠ।

গণমাধ্যমকর্মীরা মানবন্ধন কাভার করতে ব্যস্তÍ হয়ে উঠলে সোলায়মান আলম শেঠ মাইকে ঘোষণা দেন তাদের আরো কর্মী আসছে। কিন্তু পাঁচ মিনিটর সময় অতিবাহিত হলেও, আগত কর্মীদের আর দেখা যায়নি। অবশেষে মানববন্ধন কর্মসূচি শুরু হলেও তার স্থায়িত্ব ছিলো মাত্র দুই মিনিট! আর সেই মানববন্ধনে বক্তব্য রাখেন সোলায়মান আলম শেঠ একাই।

এসময় তিনি বলেন, ‘এভাবে চলতে পারেনা। গ্যাস ও বিদ্যুৎ এর মূল্য বৃদ্ধি দেশকে পঙ্গু করে দেবে। কে প্রধানমন্ত্রীকে ভুল বুঝিয়েছে আমরা জানিনা। আগামীকালের মধ্যে যদি এই সিদ্ধান্ত বাতিল করা না হয়, তবে এরশাদ সৈনিকরা রাস্তায় নামবে।’

এরপরেই তড়িঘড়ি করে মানববন্ধন কর্মসূচি শেষ বলে ঘোষণা দিয়ে ব্যানার গুটিয়ে নেয়া হয়।

অপরদিকে বিকেল পাঁচটায় চট্টগ্রাম মহানগরের আহ্বায়ক মেহজাবিন মোরশেদ এমপি সমর্থিতদের মানববন্ধন কর্মসূচি পালন করার কথা থাকলেও, নির্দিষ্ট সময়ে তাদের কাওকে দেখা যায়নি।