দুই নেত্রীর প্রস্তাব সংলাপের দ্বার উন্মোচিত হবে : মোজীনা

প্রকাশ:| সোমবার, ২১ অক্টোবর , ২০১৩ সময় ১০:১২ অপরাহ্ণ

ড্যান ডব্লিউ মজীনাদুই নেত্রীর প্রস্তাব সংলাপের দ্বার উন্মোচিত হবে বলে আশাবাদী যুক্তরাষ্ট্র। সোমবার সন্ধ্যায় বিরোধী দলীয় নেতা খালেদা জিয়ার সঙ্গে বৈঠকের পর যুক্তরাষ্ট্রের রাষ্ট্রদূত ড্যান ড্যাব্লিউ মোজীনা সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে বলেন, বিরোধী দলীয় নেতার সঙ্গে অর্থবহ আলোচনা হয়েছে। আমরা আগামীতে সুষ্ঠু, অবাধ ও গ্রহনযোগ্য নির্বাচন ও আলোচনার ভবিষ্যত নিয়ে কথা বলেছি। সম্প্রতি প্রধানমন্ত্রী বক্তব্য দিয়ে আলোচনার দরজা খুলে দিয়েছেন। বিরোধী দলীয় নেতাও আজ বক্তব্য রেখেছেন। আমরা আশাবাদী দুই নেত্রীর বক্তব্যে আলোচনা দ্বার উন্মোচিত হবে।

সোমবার সন্ধ্যা সোয়া ৭টায় ড্যান মোজীনা গুলশানে বিএনপি চেয়ারপারসনের কার্যালয়ে আসেন। এরপর প্রায় ঘন্টাব্যাপী বিরোধী দলীয় নেতার সঙ্গে বৈঠক হয়। বৈঠকে বিকালে সংবাদ সম্মেলনে দেওয়া বক্তব্য, আগামী নির্বাচন ও সংলাপের বিষয় নিয়ে খোলামেলা আলোচনা হয়। বৈঠকে দলের চেয়ারপারসনের উপদেষ্টা রিয়াজ রহমান ও যুক্তরাষ্ট্র দূতাবাসের পলিটিক্যাল অফিসার ক্যাথলিন গিবিলিস্কো উপস্থিত ছিলেন।

বৈঠক শেষে সংবাদ সম্মেলন করেন ড্যান ডাব্লিউ মোজীনা। তিনি বলেন, বিরোধী দলীয় নেতা আগামীতে ক্ষমতায় গেলে জঙ্গিবাদ, সন্ত্রাস দমন, প্রতিবেশীদেশের সঙ্গে সুসম্পর্ক স্থাপন, প্রতিহিংসার রাজনীতি পরিহারের বিষয়ে তার অঙ্গীকারের কথা আমাকে জানিয়েছেন।

জাতির উদ্দেশে দেওয়া প্রধানমন্ত্রীর বক্তব্য সম্পর্কে যুক্তরাষ্ট্রের রাষ্ট্রদূত বলেন, আমি ব্যক্তিগতভাবে তার বক্তব্যে উৎসাহিত হয়েছি। এতে আলোচনার দরজা খুলেছে। আমি আশাবাদী মানুষ। আমি মনে করি, আলোচনার মাধ্যমে দুই বড় দল আগামীতে অবাধ, সুষ্ঠু ও নিরপেক্ষ নির্বাচন অনুষ্ঠানের পথ খুঁজে বের করবে।

বিরোধীদলীয় নেতা তার সরকারের আমলে বাংলাদেশের অর্থনীতি, শিক্ষা ও নারী উন্নয়নে সাফল্যের দিকগুলো অবহিত করেন বলে জানান রাষ্ট্রদূত।

মহানগরের সভা-সমাবেশের ওপর নিষেধাজ্ঞা আরোপের গণতন্ত্র ব্যাহত হচ্ছে কিনা এমন প্রশ্নের জবাবে মোজীনা বলেন, আমার মত হচ্ছে, শান্তিপূর্ণ সভা-সমাবেশ, প্রতিবাদ জানানো গণতান্ত্রিক প্রক্রিয়ার একটি অংশ। এটা গণতান্ত্রিক চর্চার মধ্যে পড়ে। আমি প্রশ্নের নেতিবাচক দিক নিয়ে কথা বলতে চাই না।