দুইবার জীবন পেয়ে ৮৮ রানে অপরাজিত ডেভিড ওয়ার্নার

প্রকাশ:| মঙ্গলবার, ৫ সেপ্টেম্বর , ২০১৭ সময় ০৮:৪৯ অপরাহ্ণ

চট্টগ্রাম টেস্টে প্রথম ইনিংসে বাংলাদেশের ৩০৫ রানের জবাবে ব্যাট করতে নেমে দিন শেষে ২ উইকেট হারিয়ে ২২৫ রান করেছে অজিরা। সফরকারীরা বাংলাদেশের চেয়ে এখনও ৮০ রান পিছিয়ে।

দুইবার জীবন পেয়ে ৮৮ রানে অপরাজিত আছেন অজি ওপেনার ডেভিড ওয়ার্নার। অন্যদিকে পিটার হ্যান্ডসকম্ব ৬৯ রানে অপরাজিত আছেন। ১২৭ রানের অবিচ্ছিন্ন জুটিতে মাঠ ছাড়েন তারা।

ব্যাটিংয়ে নেমে শুরুতেই উইকেট হারায় অজিরা। বাংলাদেশের পক্ষে ব্রেকথ্রু এনে দেন মোস্তাফিজুর রহমান।নিজের প্রথম ওভার করতে এসে তৃতীয় বলেই তুলে নেন অসি ওপেনার রেনশোর উইকেট। এরপর অস্ট্রেলিয়ার হয়ে প্রতিরোধ গড়ে তোলেন ডেভিড ওয়ার্নার ও স্টিভেন স্মিথ। দীর্ঘ সময় উইকেটের দেখা নেই। অবশেষে উইকেটের খরা কাটালেন তাইজুল।

ডেভিড ওয়ার্নার ও স্টিভেন স্মিথের ৯৩ রানের জুটি ভাঙেন তাইজুল ইসলাম। নিজের প্রথম ওভারের প্রথম বলেই অসি অধিনায়ক স্মিথকে সরাসরি বোল্ড করে সাজঘরে পাঠান তিনি। আউট হওয়ার আগে ৯৪ বলে ৫৮ রান করেন স্মিথ।

এর আগে নিজেদের প্রথম ইনিংসে সবকটি উইকেট হারিয়ে ৩০৫ রান করেছে বাংলাদেশ। মঙ্গলবার আগের দিনের ৬ উইকেটে ২৫৩ রান নিয়ে ব্যাটিংয়ে নামেন মুশফিক ও নাসির।

সকালটা বেশ দেখে শুনেই খেলছিলেন তারা। কিন্তু হঠাৎ ছন্দপতন। লিওন দিনের অষ্টম ওভারের দ্বিতীয় বলেই পরাস্ত করেন মুশফিককে। একটু ভেতরে ঢোকা বল সামনে পা বাড়িয়ে ডিফেন্স করেছিলেন অধিনায়ক। ঠিক মতো পারেননি, বল তার ব্যাটের কানায় লেগে ড্রপ খেয়ে স্টাম্পে লাগে। ১৬৬ বল খেলে ৫টি চারে ৬৮ রান করেন মুশফিক। নাসির হোসেনের সঙ্গে মুশফিকের পার্টনারশিপে আসে ৪৩।

মুশফিকের উইকেট তুলে নিয়ে লিওন এই ইনিংসে ব্যক্তিগত ষষ্ঠ উইকেট তুলে নেন।

মুশফিক দ্রুত ফিরে গেলেও ধরে খেলছিলেন নাসির। ১৯ রান নিয়ে দিন শুরু করা নাসির একটু একটু করে এগিয়ে যাচ্ছিলেন ফিফটির দিকে। কিন্তু ব্যক্তিগত ৪৫ রানের সময় সাজঘরে ফিরতে হয় তাকে। মিরাজের সঙ্গে অষ্টম উইকেট জুটিতে ২৮ রানে জুটি ভাঙ্গে। অ্যাস্টন অ্যাগারের বলে উইকেটরক্ষক ম্যাথু ওয়েডের হাতে ধরা পড়ে প্যাভিলিয়নে ফেরেন নাসির।

নাসিরের আউটের পর ক্রিজে আসেন মেহেদী হাসান মিরাজ। তবে তিনি সুবিধা করতে পারেননি। নাথান লায়নের বলে দুই রান নিতে গিয়ে রানআউট হয়ে যান। ওয়ার্নারের ছুঁড়ে দেওয়া বল সরাসরি স্টাম্পে আঘাত হানলে ব্যক্তিগত ১১ রানে সাজঘরে ফেরেন মিরাজ।

বাংলাদেশ একাদশ: তামিম ইকবাল, সৌম্য সরকার, ইমরুল কায়েস, মুমিনুল হক, সাকিব আল হাসান, মুশফিকুর রহিম (উইকেটরক্ষক ও অধিনায়ক), সাব্বির রহমান, নাসির হোসেন, মেহেদি হাসান মিরাজ, তাইজুল ইসলাম, মোস্তাফিজুর রহমান।

অস্ট্রেলিয়া একাদশ: ডেভিড ওয়ার্নার, ম্যাট রেনশো, স্টিভেন স্মিথ (অধিনায়ক), পিটার হ্যান্ডসকম্ব, গ্লেন ম্যাক্সওয়েল, হিলটন কার্টরাইট, ম্যাথু ওয়েড (উইকেটরক্ষক), অ্যাশটন অ্যাগার, প্যাট কামিন্স, স্টিভ ও’কিফ, নাথান লায়ন।