দীর্ঘদিন পর রাজপথে বিএনপি নেতাকর্মীদের উচ্ছাস

প্রকাশ:| বুধবার, ১৬ ডিসেম্বর , ২০১৫ সময় ১০:৫৯ অপরাহ্ণ

দীর্ঘদিন পর রাজধানীতে বিএনপির বিজয়র‌্যালি

দীর্ঘদিনের আড়াল ছেড়ে রাজপথে নামলো দেশের অন্যতম প্রধান রাজনৈতিক দল বিএনপি। বিশাল শোডাউনে কাঁপলো রাজপথ। শত শত নেতাকর্মীর কণ্ঠে একসঙ্গে ধ্বনিত হলো বাংলাদেশের নাম। উৎসুক শহরবাসীও দেখলো এতোদিন ধরে আত্মগোপনে থাকা নেতাকর্মীদের উচ্ছাস।

বুধবার মহান বিজয় দিবস উপলক্ষে দেশের অন্যতম জনপ্রিয় রাজনৈতিক দল বিএনপির নেতাকর্মীরা বিজয় দিসব পালন করেছে। রাজধানীসহ সারাদেশে নেতাকর্মীরা বের হয়েছে বিজয় র‌্যালির বিশাল শোডাউন নিয়ে।

গেল বছরের ৫ জানুয়ারি জাতীয় সংসদ নির্বাচনের পর সরকারবিরোধী আন্দোলনে নেমে মামলায় জড়িয়ে মাঠছাড়া হয়ে গিয়েছিল দলের নেতাকর্মীরা। এরপর গেল প্রায় দুই বছর ধরেই রাজপথে পা পড়েনি নেতাকর্মীদের। দেশে এমন রাজনৈতিক গুমোট দশায় জনমনে বাড়ছিল অস্বস্তিও।

আর এমন গুমোট পরিস্থিতির অবসান ঘটিয়ে বাংলাদেশের ৪৪তম মহান বিজয় দিবস পালন উপলক্ষে রাজপথে দেখা মিলল বিএনপি ও এর অঙ্গ ও সহযোগী সংগঠনের নেতাকর্মীদের।

বুধবার বিকেলে বিএনপির কেন্দ্রীয় কার্যালয় থেকে বিশাল র‌্যালি বের করা হয়। এরপর সে র‌্যালিতে যোগ দেয় দলের অঙ্গ ও সহযোগী সংগঠনের অসংখ্য নেতাকর্মী। তাদের পদচারণায় মুখর হয়ে ওঠে রাজধানীর নয়াপল্টন, বিজয়নগর, কাকরাইলসহ আশপাশ এলাকা। নেতাকর্মীদের স্লোগানে প্রকম্পিত হয় রাজপথ।

দলের কেন্দ্রীয় কর্মসূচির অংশ হিসেবে সারাদেশে দলীয়ভাবে উদযাপন করা হয় মহান বিজয় দিবস।

বরিশাল নগরীতে বিজয় র‌্যালিতে বড় রকমের শোডাউনে নামে বিএনপি। সেই সঙ্গে দলটির অঙ্গ-সংগঠন যুব, ছাত্র, স্বেচ্ছাসেবক ও শ্রমিকদলের নেতাকর্মীরাও বিশাল আকারের র‌্যালি বের করে।

বরিশাল বিএনপির র‌্যালি

দীর্ঘদিন পর বিএনপিকে রাজপথে দেখে সাধারণ মানুষের মধ্যে ব্যাপক কৌতুলহের সৃষ্টি হয়। এ ঘটনা নিয়ে শহরময় নানামুখী আলোচনা চলে। অনেকের ভাষ্য, অবশেষে দীর্ঘদিন পরে স্বতঃস্ফুর্তভাবে রাজপথে দেখা মিললো বরিশাল বিএনপির। গুমোট কেটে এভাবে রাজপথে নামার কারণে নেতাকর্মীদের মধ্যে নতুন করে প্রাণসঞ্চার হবে।

গেল বছরের ৫ জানুয়ারির নির্বাচনপরবর্তী সময়ে বিএনপির ঘাঁটি হিসেবে পরিচিত বরিশালে সরকারবিরোধী আন্দোলনে নামে নেতাকর্মীরা। তবে মামলায় জড়িয়ে পরে মাঠ ছেড়েছিল তারা। একই সঙ্গে আত্মগোপনে গিয়েছিল গ্রেপ্তার আতঙ্কে।

এসব কারণে গত ৯ মাসে বরিশাল বিএনপিকে কোনো কর্মসূচি নিয়ে মাঠে নামতে দেখা যায়নি। এমনকি কেন্দ্র ঘোষিত কর্মসূচিও তেমন জোরালোভাবে পালন হয়নি।

এ পরিস্থিতিতে বুধবার কেন্দ্রীয় বিএনপির সাংগঠনিক সম্পাদক বরিশাল মহানগর সভাপতি অ্যাডভোকেট মজিবর রহমান সরোয়ারের নেতৃত্বে মহান বিজয় দিবস পালনে বড় রকমের শো-ডাউন করে নেতাকর্মীরা। সকাল ১০টার দিকে বরিশাল নগরীর অশ্বিনী কুমার টাউন হলের সামনে থেকে র‌্যালি বের হয়। এতে অংশ নেয় কয়েক হাজার নেতাকর্মী।

বরিশাল মহানগর ছাত্রদলের র‌্যালি

র‌্যালিটি মিছিল আকারে বরিশাল জেলা প্রশাসকের কার্যালয় সংলগ্ন শহীদ বেদিতে যায়। সেখানে বরিশাল মহানগর বিএনপির পক্ষ থেকে শহীদ বেদিতে ফুল দিয়ে শ্রদ্ধা জানান দক্ষিণা বিএনপি কর্ণধার সরোয়ার।

এসময় উপস্থিত ছিলেন বরিশাল মহানগর বিএনপির ভারপ্রাপ্ত সাধারণ সম্পাদক কাউন্সিলর জিয়া উদ্দিন সিকদার, সহ-সভাপতি অ্যাডভোকেট মহশিন মন্টু, সহ-সভাপতি মনিরুজ্জামান ফারুক ও সহসাধারণ সম্পাদক আনোয়ারুল হক তারিন প্রমুখ।

এর কিছুক্ষণ পরে বরিশাল দক্ষিণ জেলা বিএনপির সাধারণ সম্পাদক অ্যাডভোকেট আবুল কালাম শাহীনের নেতৃত্বে একটি র‌্যালি অশ্বিনী কুমার টাউন হল থেকে মিছিল আকারে বের করা হয়। এতেও দলের সিনিয়ার সহ-সভাপতি তারেক রহমানের ছবি সংবলিত ব্যানার হাতে কয়েক হাজার নেতাকর্মী অংশ নেয়। পরে তারা শহীদ বেদিতে গিয়ে ফুল দিয়ে শ্রদ্ধা জানায়।

এছাড়াও বরিশাল মহানগর ছাত্রদলের যুগ্ম আহ্বায়ক আফরোজা খানম নাসরিনের নেতৃত্বে একই স্থান থেকে একটি র‌্যালি বের করা হয়। এতেও অংশ নেয় কয়েক হাজার নেতাকর্মী।

দলীয় সূত্রমতে, বিজয় দিবসে মাঠে থাকার জন্য এখানকার নেতারা কয়েক দফা সভা করেছেন। ওই সভায় কর্মীদের মাঠে নামতে নির্দেশনা দেন নেতারা। সেই নির্দেশনা অনুযায়ী বুধবার মাঠে নেমে বিজয় র‌্যালিতে অংশ নেয় তারা।