হোপের’ ২ নাবিককে জীবিত, ২ লাশ উদ্ধার

প্রকাশ:| শুক্রবার, ৫ জুলাই , ২০১৩ সময় ১২:৩৮ অপরাহ্ণ

আন্দামান সাগরে মালবাহী জাহাজডুবির ঘটনায় দুই বাংলাদেশি নাবিককে জীবিত উদ্ধার করেছে রয়াল থাই নেভি।

বৃহস্পতিবার ভোরে আন্দামান সাগরের যে স্থানে ‘এমভি হোপ’ নামের জাহাজটি ডুবে যায়, সেই এলাকা থেকেই শুক্রবার বিকেলে তাদের উদ্ধার করা হয়েছে বলে এক প্রতিবেদনে জানিয়েছে থাইল্যান্ডের গণমাধ্যম ফুকেট নিউজ অনলাইন।
পাশাপাশি আরও দু’জনের মৃতদেহ উদ্ধার করা হয়েছে, যারা এমভি হোপের নাবিক বলে ধারণা করা হচ্ছে।

তবে তাদের কারও পরিচয় নিশ্চিত করতে পারেনি ফুকেট নিউজ।

থাইল্যান্ডের সমুদ্র ‍উপকূলে এমভি হোপ নামে বাংলাদেশি একটি মালবাহী জাহাজডুবির ঘটনায় নিখোঁজ ৭ জন বাংলাদেশি নাবিককে উদ্ধারে অভিযান অব্যাহত রয়েছে। jahaj 1

শুক্রবার থাই নৌবাহিনীর একটি বিমান পুনরায় উদ্ধার অভিযান শুরু করেছে বলে আন্তর্জাতিক সংবাদ মাধ্যম জানিয়েছে। যদিও এখন পর্যন্ত তাদের কোনো সন্ধান পাওয়া যায়নি।

এর আগে রয়্যাল থাই নেভির এক কর্মকর্তা আন্তর্জাতিক সংবাদ মাধ্যমকে জানান, শুক্রবার দিনের আলোয় উদ্ধার ‍অভিযান চলবে।

উল্লেখ্য, বৃহস্পতিবার ভোরে সাগর উত্তাল থাকায় থাইল্যান্ডের দক্ষিণে ফুকেট দ্বীপ থেকে ৩২ কিলোমিটার দূরে জাহাজটি ডুবে যায়। কার্গো জাহাজটি চট্টগ্রাম বন্দরের দিকে আসছিল।

জানা যায়, কার্গো জাহাজটিতে ১৭ জন নাবিক ছিলেন। এর মধ্যে দশজনকে উদ্ধার করা হলেও নিঁখোজ রয়েছেন ৭জন।

জাহাজটি ঠিক কি কারণে ডুবে গেছে সে বিষয়ে পরিষ্কারভাবে কিছু জানা যায়নি।তবে ধারণা করা হচ্ছে বৈরী আবহাওয়ায় উত্তাল সাগর ও বিপরীত দিক থেকে আসা তীব্র বাতাসের কবলে পড়ে জাহাজটি ডুবে যায়।

২৩ বছর পুরনো ৯৭ মিটার দীর্ঘ এবং পাঁচ হাজার ৫৫০ টন ওজনের এমভি হোপ জাহাজটি মালয়েশিয়ার মালাক্কা দ্বীপ থেকে বাংলাদেশে আসার পথে এই দুর্ঘটনা ঘটে।জাহাজটি ছয় হাজার ৫৪৫ মেট্রিক টন পণ্য পরিবহন করছিল।

শিপিং সংশ্লিষ্টরা ধারণা করছেন, অতিরিক্ত পণ্য পরিবহনের কারণেই সাগরের দুর্যোগপূর্ণ আবহাওয়ার মধ্যে জাহাজটি দুর্ঘটনার কবলে পড়ে।