তৃতীয় দিন শেষে সমানে-সমান বাংলাদেশ-দ. আফ্রিকা

প্রকাশ:| বৃহস্পতিবার, ২৩ জুলাই , ২০১৫ সময় ০৯:২২ অপরাহ্ণ

দক্ষিণ আফ্রিকার বিপক্ষে ৭৮ রানের লিড নিয়েছিল বাংলাদেশ। তবে প্রোটিয়াদের বিপক্ষে পরে ব্যাট করে প্রথমবারের মতো এই লিড নেওয়ার সুবিধা স্বাগতিকরা হারিয়েছে দ্বিতীয় ইনিংসে এখনও কোনো উইকেট না পাওয়ায়। তৃতীয় দিন শেষে তাই ভারসাম্য আছে চট্টগ্রাম টেস্ট।

বৃহস্পতিবারের খেলা শেষে দক্ষিণ আফ্রিকার সংগ্রহ বিনা উইকেটে ৬১ রান। স্টিয়ান ফন জিল ৩৩ ও ডিন এলগার ২৮ রানে ব্যাট করছেন। দেখেশুনে খেলে দলকে এগিয়ে নিচ্ছেন এই দুই বাঁহাতি উদ্বোধনী ব্যাটসম্যান।  এখনও ১৭ রানে পিছিয়ে রয়েছে অতিথিরা।

চট্টগ্রামের জহুর আহমেদ চৌধুরী স্টেডিয়ামে ৪ উইকেটে ১৭৯ রান নিয়ে তৃতীয় দিনের খেলা শুরু করে বাংলাদেশ। দ্বিতীয় সেশনে অলআউট হওয়ার আগে ৩২৬ রান করে স্বাগতিকরা। দক্ষিণ আফ্রিকার বিপক্ষে এটি তাদের সর্বোচ্চ সংগ্রহ।  ২০০৮ সালে এই মাঠেই করা ২৫৯ রান ছিল আগের সর্বোচ্চ।

টানা দ্বিতীয় দিনও সকাল থেকে আকাশ ছিল মেঘে ঢাকা। থেমে থেমে বৃষ্টি হলেও নির্ধারিত সময় সকাল সাড়ে নয়টায় খেলা শুরু হয়। এদিন বড় সংগ্রহ গড়তে অধিনায়ক মুশফিকুর রহিম ও সাকিব আল হাসানের দিকে তাকিয়ে ছিল স্বাগতিকরা। আত্মবিশ্বাসী সূচনা করলেও নিজের ইনিংস বড় করতে পারেননি মুশফিক।

আগের দিন ১৩ ওভার করে উইকেট পাননি ডেল স্টেইন। তৃতীয় দিনের প্রথম দুই ওভারেও কিছু করতে পারেননি তিনি। তবে তৃতীয় ওভারেই আঘাত হানেন আইসিসি টেস্ট র‍্যাংঙ্কিংয়ের এই শীর্ষ বোলার। মুশফিককে এলবিডব্লিউর ফাঁদে ফেলেন তিনি।

অতিথিদের জোরালো আবেদনে আম্পায়ার সাড়া না দিলে রিভিউ নেন হাশিম আমলা। তাতে সিদ্ধান্ত পাল্টে মুশফিককে আউট দেন জুয়েল উইলসন।  অধিনায়ক ফিরে যাওয়ার সময় ৫৩ রানে পিছিয়ে ছিল স্বাগতিকরা।

দিনের ষষ্ঠ ওভারেই অধিনায়ককে হারানো বাংলাদেশ লিড নিতে তাকিয়ে ছিল বিশ্বের অন্যতম সেরা অলরাউন্ডার সাকিব ও তরুণ লিটন দাসের দিকে। হতাশ করেননি এই দুই জনে। ৮২ রানের জুটিতে দক্ষিণ আফ্রিকার বিপেক্ষে দলকে সবমিলিয়ে দ্বিতীয়বারের মতো লিড এনে দেওয়ার সঙ্গে অতিথিদের বিপক্ষে সর্বোচ্চ রানের রেকর্ড গড়ায়ও সহায়তা করেন তারা।

৮১তম ওভারে দ্বিতীয় নতুন বল নেয় দক্ষিণ আফ্রিকা। সে সময় ৩৭ রান পেছনে ছিল বাংলাদেশ। দ্বিতীয় নতুন বলেও কোনো সমস্যা হয়নি সাকিব-লিটনের। বিপজ্জনক হয়ে উঠা এই জুটি ভাঙে সাকিব উইকেট বিলিয়ে এলে।

দারুণ ব্যাটিং করা সাকিবের অর্ধশতক প্রাপ্যই মনে হচ্ছিল। কিন্তু তিনি আউট হন চার হাঁকিয়ে সেই অর্ধশতকে পৌঁছাতে গিয়ে।

অফ স্পিনার সাইমন হারমারের শর্ট বলে মিডউইকেট দিয়ে সীমানার বাইরে পাঠাতে চেয়েছিলেন সাকিব। তিন বল আগে একবার শর্ট বলে টাইমিংয়ে গড়বড় করে বেঁচে যান। এবার ব্যাটের কানায় লেগে অনেক উঁচুতে উঠা বল শর্ট মিডউইকেটে তালুবন্দি করেন জেপি দুমিনি।

এসেই ঝড়ো ব্যাটিংয়ে দ্রুত রান তুলতে থাকেন মোহাম্মদ শহীদ। লিটনের সঙ্গে ৩৪ রানের জুটি গড়ে দলের সংগ্রহ তিনশ’ পার করেন তিনি। ১৯ বলে ২৫ রানের আক্রমণাত্মক ইনিংস খেলার পথে হারমারের এক ওভারে ১৮ রান নেন এই পেসার।

ভার্নন ফিল্যান্ডারের বলে উড়িয়ে মারতে স্টিয়ান ফন জিলের ক্যাচে পরিণত হয়ে বিদায় নেন শহীদ। তার বিদায়ের পর বেশি দূর এগোয়নি বাংলাদেশের প্রথম ইনিংস। ১৫ রানে শেষ চার উইকেট হারানোয় লিড আরও বড় হয়নি স্বাগতিকদের।

শহীদের বিদায়ের পর বেশিক্ষণ টিকেননি লিটন। দারুণ সব শট খেলে ক্যারিয়ারের প্রথম অর্ধশতকে পৌঁছেই ফিরে যান ২০ বছর বয়সী এই ব্যাটসম্যান। হারমারের বলে কুইন্টন ডি ককের ভালো একটি ক্যাচে পরিণত হন তিনি। ১০২ বলে খেলা লিটনের ৫০ রানের দারুণ ইনিংসটি গড়া ৭টি চারে।

শেষ দিকে বোলিংয়ে এসে পরপর দুই ওভারে তাইজুল ইসলাম ও মুস্তাফিজুর রহমানকে ফিরিয়ে বাংলাদেশের ইনিংস গুটিয়ে দেন স্টেইন। ৭৮ রানে তিন উইকেট নেন এই পেসার। টেস্টে চারশ’ উইকেটের মাইলফলকে পৌঁছাতে আর একটি উইকেট চাই তার।

তৃতীয় দিন মধ্যাহ্ন-বিরতির সময় বৃষ্টি হলে দ্বিতীয় সেশনের খেলা শুরু হতে আধ ঘণ্টা দেরি হয়। তৃতীয় সেশনে আলোক স্বল্পতার জন্য বেলা ৪টা ২০ মিনিটে খেলা বন্ধ হয়ে যায়, পরে বৃষ্টিও নামে; এর পর আর খেলা হয়নি।

তৃতীয় দিনে ২৪.৫ ওভার খেলা হতে পারেনি, এর আগে বুধবার বৃষ্টির কারণে ২৫ ওভার খেলা কম হয়।

সংক্ষিপ্ত স্কোর:

দক্ষিণ আফ্রিকা: ৮৩.৪ ওভারে ২৪৮ (এলগার ৪৭, ফন জিল ৩৪, দু প্লেসি ৪৮, আমলা ১৩, বাভুমা ৫৪, দুমিনি ০, ডি কক ০, ফিল্যান্ডার ২৪,হারমার ৯, স্টেইন ২, মরকেল ৩*; মুস্তাফিজ ৪/৩৭, জুবায়ের ৩/৫৩,মাহমুদউল্লাহ ১/৯, সাকিব ১/৪৫, তাইজুল ১/৫৭) ও ২১.১ ওভারে ৬১/০ (এলগার ২৮*, ফন জিল ৩৩*)

বাংলাদেশ: ১১৬.১ ওভারে ৩২৬ (তামিম ৫৭, ইমরুল ২৬, মুমিনুল ৬, মাহমুদউল্লাহ ৬৭, মুশফিকুর ২৮, সাকিব ৪৭, লিটন ৫০, শহীদ ২৫, তাইজুল ৯, মুস্তাফিজুর ৩, জুবায়ের ০*; স্টেইন ৩/৭৮,  হারমার ৩/১০৫,  ফিল্যান্ডার ২/৪০, এলগার ১/৬, ফন জিল ১/২৩)