তামিমকে গালি দিয়েছিলেন সিলেটের মালিক!

প্রকাশ:| সোমবার, ২৩ নভেম্বর , ২০১৫ সময় ১১:৩৯ অপরাহ্ণ

চিটাগং ভাইকিংস-সিলেট সুপার স্টারস ম্যাচের আগেই জমেছিল প্রশ্নের পাহাড়। ফলে অনুমিতই ছিল, ম্যাচ পরবর্তী সংবাদ সম্মেলন অন্যরকমই হতে যাচ্ছে। হলোও তা-ই। ম্যাচের আগের নাটক নিয়ে জানতে চাইলে রীতিমতো বিস্ফোরক মন্তব্যই করলেন তামিম ইকবাল। চট্টগ্রাম অধিনায়ক অভিযোগ করেছেন, তাঁর বাবা-মা তুলে বাজে মন্তব্য করা হয়েছে! কে বাজে মন্তব্য করেছেন, নামটা স্পষ্ট উল্লেখ না করলেও ইঙ্গিতটা সিলেটের মালিক আজিজুল ইসলামের উদ্দেশে।
টসে কেন দেরি হলো, মাঠে নামতে কেন দেরি হলো এবং তাঁর সঙ্গে আসলে কী হয়েছে—সব খুলে বললেন তামিম। বললেন, ‘সব খুলে বলতে চাই। প্রথমে যখন শুনি টস ১০-১২ মিনিট দেরি হচ্ছে, তখন আসল কারণ জানতাম না। ম্যাচ রেফারির কাছে জানতে চাইলাম, কী হয়েছে? টেকনিক্যাল কমিটি নাকি জানিয়েছে, ওদের কিছু খেলোয়াড়ের অনাপত্তিপত্র (এনওসি) নিয়ে সমস্যা হওয়ার কারণে দেরি হয়েছে। আমি বলেছি, ঠিক আছে। অপেক্ষা করেছি। টস হওয়ার কথা ১টা ৪০ মিনিটে। অপেক্ষা করেছি ১টা ৫৫ মিনিটে। তারপরও সিদ্ধান্ত হয়নি।’
আসল সমস্যা এর পরই শুরু হয়েছে বলে জানালেন তামিম, ‘ম্যাচ রেফারি ও উপস্থিত টেকনিক্যাল কমিটির একজন সিদ্ধান্ত নিলেন, যাদের এনওসি নেই, তাদেরকে খেলানো যাবে না। ওদের খেলোয়াড় তালিকা আনা হলো। সেখানে দুই বিদেশি খেলোয়াড় ছিল—দিলশান মুনাবীরা ও অজন্তা মেন্ডিস। তালিকার একটা কপি আনা হয়েছিল। কিন্তু সাধারণত তিনটা কপি আনা হয়। ম্যাচ রেফারিকে বললাম, আমার কপি কোথায়? রেফারি বললেন, তুমি টস কর। পরে পাঠিয়ে দেব। এর পর টস করলাম। ব্যাটিংয়ে নেমে দেখি ওদের চারজন বিদেশি মাঠে। জশ কব ও রবি বোপারাকে দেখে বললাম, এটা কী হলো? আমরা এটা মানব না। এর পর ম্যাচ রেফারি ও অন্যান্যরা এলেন। গন্ডগোল হলো। খেলা হলো…।’
এর পরই তামিম অভিযোগ করলেন, তাঁকে অশ্রাব্য ভাষায় গালাগাল করা হয়েছে, “একটা জিনিস বলতে চাই, জাতীয় দলের খেলোয়াড়কে সম্মান দেখানো উচিত। আপনার কাছে অনেক টাকা থাকতে পারে, তার মানে এই নয়, একজন জাতীয় দলের খেলোয়াড়কে ভিখিরির মনে করে আচরণ করবেন! আমরা এখানে এসেছি খেলতে। বাবা-মায়ের নামে গালি শুনতে আসিনি! ব্যক্তিগতভাবে তাঁকে বিনয়ের সঙ্গে বারবার ‘স্যার’ বলে সম্বোধন করেছি। আমি বসেছিলাম। আমাকে উঠে দাঁড়াতে বললেন। তা-ই করলাম। তখন তিনি আমার পরিবারকে টেনে বাজে মন্তব্য করলেন। যা খুবই অপমানজনক।”
বিপিএলের ব্যবস্থাপনা নিয়ে প্রথম আসর থেকেই নানা প্রশ্ন ছিল। এবারও চরম অব্যবস্থাপনা দেখা গেছে। দেশ যখন স্পর্শকাতর সময় পার করছে, সে সময় স্টেডিয়ামের নিরাপত্তার তোয়াক্কা না করে মানুষের স্রোত ঢুকিয়ে দিতে হুট করে খুলে দেওয়া হয়েছে গেট। তামিমের কণ্ঠেও বিপিএলের অব্যবস্থাপনা নিয়ে আছে হতাশা, ‘আপনারা দেখেছেন আমি বসে দলের অন্য খেলোয়াড়দের সঙ্গে কথা বলছিলাম। আমাকে বলে তো লাভ নেই যে, তুমি খেলা শুরু কর। আমি তো খেলছি ফ্র্যাঞ্চাইজির হয়ে। ওরা যদি না খেলতে বলে, আমি তা-ই করব। আমি আইপিএলে গিয়েছি। হয়তো খেলার সুযোগ পাইনি। তবে জানি, তারা কীভাবে খেলোয়াড়দের সঙ্গে ব্যবহার করে।’
তামিমের একটাই চাওয়া এ ঘটনার সুষ্ঠু বিচার করবে বিসিবি, ‘আমি বিসিবির অংশ। আশা করি, বিসিবি কমিটি এ ব্যাপারে ব্যবস্থা নেবে। আমরা বাংলাদেশকে প্রতিনিধিত্ব করি। ভিখিরি নই!’


আরোও সংবাদ