তাঁতের শাড়ি! সব সময় ফ্যাশনেবল

প্রকাশ:| শনিবার, ৫ এপ্রিল , ২০১৪ সময় ১০:৩৭ অপরাহ্ণ

তাঁতের শাড়িযুগের চাহিদার সঙ্গে সঙ্গে বদলাতে থাকে মানুষের রুচি এবং ফ্যাশন। কিন্তু তাঁতের শাড়ি! সেটা সব সময় ফ্যাশনেবল- এমনটিই জানালেন ফ্যাশন ডিজাইনার লিপি খন্দকার। তাঁতের শাড়ি দুই ধরনের হয়- সিল্ক এবং সুতি। যারা বাংলার ঐতিহ্যকে সব সময় লালন করতে চান, তাদের প্রথম পছন্দই হলো তাঁতের শাড়ি। নিজেকে একটু অন্যরকম করে সাজাতে তাঁতের শাড়ির বিকল্প নেই। যে কোনো সামাজিক অনুষ্ঠানে, পার্টিতে, ক্যাম্পাসের আড্ডায় খুব সহজেই তাঁতের শাড়িতে নিজেকে মানিয়ে নিতে পারেন। ভাবছেন, কখন কী রঙের তাঁতের শাড়ি পরবেন, আর সাজটাইবা কেমন হবে?তাঁতের শাড়ি1

তাঁতের শাড়ি

কারণ শাড়ির সঙ্গে সাজ ওতপ্রোতভাবে জড়িত। শাড়ির সঙ্গে সঠিক সাজ না হলে আপনাকে দেখতেও আকর্ষণীয় লাগবে না। তাই চলুন জেনে নেয়া যাক, কখন কোন অবস্থায় তাঁতের শাড়িতে আপনি নিজেকে কীভাবে রাঙাবেন।

বিয়ে অনুষ্ঠানে : রূপ বিশেষজ্ঞ আমিনা হক বলেন, বিয়ে অথবা যে কোনো সামাজিক অনুষ্ঠানের নিমন্ত্রণে তাঁতের শাড়ি একটা ভিন্ন মাত্রা যোগ করে। আর এসব পার্টিতে কী রঙের শাড়ি মানানসই, তা জানা জরুরি। এসব পার্টি সাধারণত রাতে হয়। তাই শাড়ির রঙ এবং সাজ দুটোই হওয়া চাই জমকালো।তাঁতের শাড়ি2

রূপ বিশেষজ্ঞ আমিনা হকের মতে, এসব পার্টিতে অফ-হোয়াইট, কমলা এবং লাল রঙের তাঁতের শাড়ি অনেক মনিয়ে যায়। শাড়ির রঙের সঙ্গে মিল রেখে ঠোঁটে লাগাতে তাঁতের শাড়ি4পারেন গাঢ় লিপিস্টিক। আর মাথার চুল একটু পরিপাটি করে গুঁজে নিতে পারেন সাদা রঙের যে কোনো ফুল। দেখতে অনেক সুন্দর লাগবে।

তাঁতের শাড়ি

যখন অফিসে : এখন ঋতুটাই এ রকম- কখনও কড়া রোদ আবার হঠাৎ বৃষ্টি। তাই এ সময় অফিসে তাঁতের শাড়ি পরে গেলে সুতির শাড়ি বেছে নিতে পারেন। যদি বৃষ্টিতে ভিজেও যান, কোনো সমস্যা হবে না। কারণ সুতি শাড়ি খুব দ্রুত শুকিয়ে যায়। আমিনা হকের মতে, অফিসে হালকা নীল, গোলাপি, বেগুনি, মিষ্টি এবং হালকা ঘিয়া রঙের তাঁতের শাড়ি অনেক উপযোগী। আর চোখে ঘন করে কাজল এবং মাশকারা লাগাতে পারেন। মন চাইলে কপালে বড় টিপও পরতে পারেন। দেখতে অনেক ভালো লাগবে।

জন্মদিনের উৎসবে : জন্মদিনের অনুষ্ঠান যদি রাতে হয়, তাহলে শাড়ির পাড়টা যেন একটু চওড়া হয়। তাতে দেখতে আকর্ষণীয় লাগবে। চোখে হালকা সাজেই ভালো, তবে অবশ্যই ঠোঁটে গাঢ় লিপিস্টিক লাগতে ভুলবেন না। লাল অথবা মেরুন রঙের লিপিস্টিক অনেক মানিয়ে যাবে। আর লম্বা চুলে একটু আয়রন করে ছেড়ে দিতে পারেন। যাদের ছোট চুল, তারা চুলটাকে পলিটেইল করে রাখতে পারেন- এমনটিই জানালেন আমিনা হক।

তাঁতের শাড়ি

ক্যাম্পাসে শাড়িতে : শাড়ি পরতে কে না ভালোবাসে! চাকরিজীবী, গৃহিণী, এমনকি শিক্ষার্থীরাও শাড়ি পরতে অনেক ভালোবাসেন। তাই আপনি চাইলে শাড়ি পরে ক্যাম্পাসেও যেতে পারেন। এ সময় সুতি তাঁতের শাড়িই আরামদায়ক হবে। তবে শাড়ির রঙ এবং সাজ হবে একদম হালকা। গোলাপি রঙের শাড়ি বেছে নিতে পারেন। কপালে একটা ছোট টিপ থাকলেও দেখতে মন্দ লাগবে না।তাঁতের শাড়ি5

যুগ বদলালেও তাঁতের শাড়ির ফ্যাশন বদলানোর কোনো সুযোগ নেই। বাংলাদেশ যতদিন থাকবে, ঠিক ততদিনই টিকে থাকবে বাঙালি ঐতিহ্যবাহী তাঁতের শাড়ি। তাই এখনই সংগ্রহ করতে পারেন আপনার পছন্দের নানা রঙের তাঁতের শাড়ি। সেই সঙ্গে সংগ্রহে রাখুন শাড়ির সঙ্গে মিল রেখে দেশীয় পণ্যের কানের দুল, মালা এবং চুড়ি। তাঁতের শাড়ির সঙ্গে মাটি এবং কাঠের তৈরি সাজের জিনিস কেনাই ভালো হবে। যখন যেটা প্রয়োজন, তখন সেটা সহজেই পরতে পারবেন। তাই এখনই হাতের নাগালে সবকিছু গুছিয়ে রাখুন।

তাঁতের শাড়ি যেমন সুন্দর, তেমনি আপনিও। তাই শাড়িতে আরও একটু সুন্দর করে রাঙিয়ে নিন নিজেকে। দেখতে তো ভালো লাগবেই, আবার সি্নগ্ধতাও অনুভব করবেন আপনি।