ঢাক-ঢোল পিটিয়ে গনসমাবেশ ডেকে উধাও আয়োজক জাপানী মানিক

প্রকাশ:| মঙ্গলবার, ২৪ জুন , ২০১৪ সময় ০৮:৫৮ অপরাহ্ণ

ঢাক-ঢোল পিটিয়ে গনসমাবেশ ডেকেনিজস্ব প্রতিবেদক, বান্দরবান ॥
জনপ্রতিনিধি হতে চান আবদুর রহমান মানিক। লোকে যারে চেনে জাপানী মানিক নামে, অনেকে তারে পাগলা মানিক বলেও ডাকে। কারণ জাতীয় সংসদ ও আঞ্চলিক নির্বাচন এলেই বান্দরবান দেখা মিলে তারে। কোনটা ছেড়ে কোনটা ধরি দ্বিধাদ্বন্ডে দল বদলের প্রতিযোগীতায় নেমেছেন তিনি। আঞ্চলিক ও জাতীয় রাজনৈতিক দলে নাম লেখানোর পাশাপাশি নাগরিক কমিটিও গঠন করেছে। বাংলাদেশে ন্যাশনালিস্ট ফ্রন্ট (বিএনএফ) নতুন রাজনৈতিক দলের ৫১ সদস্য বিশিষ্ট আহবায়ক কমিটি গঠন করেও সমালোচিত হয়েছেন। সম্প্রতি পাহাড়ী-বাঙ্গালী সংহতি পরিষদ নামে একটি সংগঠন করে নতুনভাবে আলোচনা-সমালোচনার জন্ম দিয়েছেন পাগলা মানিক।
গতকাল মঙ্গলবার বিকাল তিনটায় বান্দরবান বাজারস্থ বঙ্গবন্ধু মুক্তমঞ্চে পাহাড়ী-বাঙ্গালী সংহতি পরিষদের উদ্যোগে রোয়াংছড়িতে পাহাড়ী শিক্ষিকা উপ্রু মারমা এবং বাঙ্গালী কাঠ ব্যবসায়ী মুসলিম উদ্দিন হত্যার ঘটনায় মহা-গনসমাবেশের ডাকা দেন। দুদিন ধরে শহরে মাইকিং এবং লিফলেট বিতরণ করা হয়। ঢাক-ঢোল পিটিয়ে এবং ব্যানার টাঙ্গিয়েও লোকসমাগম না হওয়ায় গনসমাবেশ পন্ড হয়েছে। এমনকি আয়োজক পাহাড়ী-বাঙ্গালী সংহতি পরিষদের সভাপতি আবদুর রহমান মানিক নিজেও লজ্জায় সমাবেশস্থলে উপস্থিত হয়নি। বিষয়টি নিয়ে জেলা শহরের সর্বস্তরের মানুষের মধ্যে হাস্যরসের সৃষ্টি হয়েছে। স্থানীয় মুক্তিযোদ্ধা সেলিম চৌধুরী ও ব্যবসায়ী সোহেল কান্তি নাথ’সহ আরো কয়েকজন জানান, আবদুর রহমান মানিক প্রকাশ জাপানী মানিক নিজেরে সর্বজান্তা এবং সকল কাজের কাজী ভাবেন। আসলে লোকজন তারে একজন সুবিধাবাদী পাগল মনে করেন। সেটি সে বুঝতে পারেনি, মঙ্গলবার লজ্জা দিয়ে বুঝিয়ে দিয়েছেন। তবে বিষয়টি মানতে নারাজ পাহাড়ী-বাঙ্গালী সংহতি পরিষদের সভাপতি আবদুর রহমান মানিক। তার ভাষায় ষড়যন্ত্র মূলক মুষ্টিমেয় কয়েকজন ব্যক্তি পরিকল্পিতভাবে তার গন-সমাবেশ পন্ড করেছে। পাহাড়ী-বাঙ্গালীদের মধ্যে ঐক্য চাইনা প্রভাবশালী একটি মহল। তবে আমি নিজের স্বার্থেও
জানাগেছে, আবদুর রহমান মানিকের জাপান এবং বাংলাদেশে সেকেন্ড হ্যান্ডস গাড়ির ব্যবসা রয়েছে তার।
জনপ্রতিনিধি হওয়ার স্বপ্ন রয়েছে তার। ইতিমধ্যে পাহাড়ী-বাঙ্গালী সংহতি পরিষদ, জাতীয় পার্টি, পার্বত্য চট্টগ্রাম নাগরিক পরিষদ, নাগরিক কমিটি এবং বিএনএফ কমিটির দায়িত্বশীল পদে থাকার সুবাধে জনপ্রতিনিধি হওয়ার পথ অনেকটা সুগম করেছেন বলে দাবী তার। তবে স্থানীয়রা নির্বাচনের সময় তার বান্দরবান আগমন ঘটার কারণে তারে ভন্ড মানিক বলে নাম দিয়েছেন