ঢাকা বসবাসের অযোগ্য একটি নগরে পরিণত হবে

প্রকাশ:| রবিবার, ৬ অক্টোবর , ২০১৩ সময় ১১:৩৪ অপরাহ্ণ

ঢাকায় জলভাগের তুলনায় ১৯৬০ সালে নগরায়িত স্থলভাগের পরিমাণ ছিল পাঁচ গুণ বেশি। কিন্তু ৪০ বছর পর জলভাগের অনুপাত চার গুণ কমে যায়। এখন জলভাগের পরিমাণ আরও কম। গতকাল শনিবার রাজধানীতে এক সেমিনারে গবেষকেরা বলেছেন, নগরের জলাধার এভাবে শুধু কমেইনি, এর দূষণ অর্থনীতির ওপর হুমকি সৃষ্টি করছে। ২০১২ সালের মোট দেশজ উৎপাদনের (জিডিপি) সাত হাজার ৩৬৫ কোটি টাকার সমপরিমাণ অর্থ নষ্ট হয়েছে ঢাকার পানিদূষণের কারণে। বুয়েট মিলনায়তনে অ্যাসোসিয়েশন অব বুয়েট অ্যালামনাই আয়োজিত ঢাকা ও এর আশপাশের জলাশয় রক্ষায় দিনব্যাপী সেমিনারে দূষণপানি বিশেষজ্ঞ, পরিবেশবিদ, রাজনীতিক ও নগরবিদেরা বলেন, এভাবে দূষণ চলতে থাকলে ঢাকা বসবাসের অযোগ্য একটি নগরে পরিণত হবে। উদ্বোধনী অধিবেশনে এই দূষণের ভয়াবহ পরিস্থিতি তুলে ধরে এর জন্য বিভিন্ন সময়ের সরকারকেই দুষলেন প্রধান অতিথি অধ্যাপক আবদুল্লাহ আবু সায়ীদ। তিনি বলেন, লুণ্ঠনের বড় জায়গা হলো নদী। সরকারের সবচেয়ে দুর্বৃত্ত ও দুষ্ট লোকদের হাতে নদী রক্ষার দায়িত্ব রয়েছে। উদ্বোধনী অধিবেশনে অ্যাসোসিয়েশনের সভাপতি অধ্যাপক জামিলুর রেজা চৌধুরী বলেন, যে হারে নদীদূষণ চলছে, এভাবে আরও দুই দশক চললে ঢাকা পুরোপুরি বসবাসের অযোগ্য হয়ে যাবে। কিন্তু দূষণ রোধে সরকারের সদিচ্ছা দেখা যাচ্ছে না। উদ্বোধনী অধিবেশনে আরও বক্তব্য দেন বাংলাদেশ পরিবেশ আন্দোলনের (বাপা) সাধারণ সম্পাদক আবদুল মতিন। এরপর দুটি কারিগরি অধিবেশন অনুষ্ঠিত হয়। প্রথমটির আলোচকদের মধ্যে বুয়েটের পুরকৌশল বিভাগের অধ্যাপক মুজিবুর রহমান ঢাকার নদীদূষণের বিপুল পরিমাণ অর্থনৈতিক ক্ষতির চিত্র তুলে ধরেন। বাংলাদেশ ইনস্টিটিউট অব প্ল্যানার্সের সাধারণ সম্পাদক কে এম আনসার হোসেন বলেন, ঢাকা বিশদ অঞ্চল পরিকল্পনা (ড্যাপ) পাস হওয়ার পর ঢাকার বন্যাপ্রবাহ অঞ্চলে দখলের পরিমাণ বেড়েছে। তিনি এমন ছয়টি অঞ্চলের উপগ্রহ চিত্র দেখিয়ে বলেন, ২০১০ সালের ২২ অক্টোবর ড্যাপের গেজেট হওয়ার পর এসব অঞ্চল দখলে আরও বেপরোয়া হয়ে উঠেছে একটি গোষ্ঠী। বুয়েটের অধ্যাপক ইশরাত হোসেন ঢাকার সাংসদদের নদী দখল রোধে সচেষ্ট হওয়ার আহ্বান জানান। স্থপতি ইকবাল হাবিব অন্ন, বস্ত্র, বাসস্থানের পাশাপাশি সংবিধানে পরিবেশের ওপর অধিকারকে অন্যতম নাগরিক অধিকার হিসেবে স্বীকৃতি দেওয়ার দাবি করেন। গত ২০ বছরে পরিবেশ নিয়ে ভাবেন, এমন কাউকে পরিবেশমন্ত্রী হিসেবে পাওয়া যায়নি বলে অভিযোগ করেন বাংলাদেশ পরিবেশ আইনবিদ সমিতির (বেলা) প্রধান নির্বাহী সৈয়দা রিজওয়ানা হাসান। দিনের আরেক অধিবেশনে নগরবিদ অধ্যাপক নজরুল ইসলাম বলেন, ঢাকাকে নিয়ে কোনো সরকার কিছু ভাবে না। এর জনসংখ্যা ক্রমাগত বাড়লেও বিকেন্দ্রীকরণের কোনো চেষ্টা চোখে পড়ে না। এই অধিবেশনে নাগরিক ঐক্যের আহ্বায়ক মাহমুদুর রহমান মান্না নদী বাঁচানোর আন্দোলনকে রাজনৈতিক এজেন্ডাতে পরিণত করার তাগিদ দেন। সমাপনী অধিবেশনে সভাপতিত্ব করেন আইইবির সভাপতি শামীম জেড বসুনিয়া।


আরোও সংবাদ