ডেল এক্সপিএস ১৫ ৯৫৭৫

নিউজচিটাগাং২৪/ এক্স প্রকাশ:| শনিবার, ১৪ জুলাই , ২০১৮ সময় ০৯:৫৪ অপরাহ্ণ

এমন কিছুও যে সম্ভব তা অনেকের ভাবনাতেই আসেনি। সেই অসম্ভব কিছুই সাম্প্রতিক সময়ে ঘটেছে প্রসেসর জগতে। এক সময়ের দুই প্রতিদ্বন্দ্বী ইন্টেল ও এএমডি একত্রে প্রসেসর বানাচ্ছে।প্রসেসর জগতের যারা খোঁজ খবর রাখেন তাদের কাছে এটি অবাক হওয়ার মতোই ব্যাপার। এরই সূত্র ধরে এএমডি গ্রাফিক্স সমৃদ্ধ ৮ম প্রজন্মের ইন্টেল প্রসেসর সমৃদ্ধ ল্যাপটপ মাত্র বাজারে আসতে শুরু করেছে, যার একটি ডেলের প্রসিদ্ধ এক্সপিএস ১৫ সিরিজের মডেল ৯৫৭৫। চলুন জেনে নেয়া যাক ল্যাপটপটি কেমন কাজের।

এক নজরে ডেল এক্সপিএস ১৫ ৯৫৭৫
১৫ দশমিক ৬ ইঞ্চি, ৩৮৪০ x ২১৬০ পিক্সেল রেজুলেশনের আইপিএস এলসিডি ডিসপ্লে
টাচ ও পেন ব্যবহার সমর্থন
ইন্টেল কোর আই৫ ৮৭০৫জি প্রসেসর, ৮ম প্রজন্ম
এএমডি রেডিওন আরএক্স ভেগা এম জিএল/৮৭০ গ্রাফিক্স, ৪০৯৬ মেগাবাইট এইচবিএম২ গ্রাফিক্স মেমরি
১৬ গিগাবাইট ডিডিআর৪ র‌্যাম
৫১২ গিগাবাইট ধারণক্ষমতার এনভিএমই প্রযুক্তির এসএসডি
৪টি ইউএসবি ৩ দশমিক ১ জেন ১ টাইপ সি পোর্ট, যার দুটি থান্ডারবোল্ট ৩ সমর্থিত ও হেডফোন জ্যাক
মাইক্রোএসডি কার্ড রিডার
ফিঙ্গারপ্রিন্ট রিডার
৬ সেল ব্যাটারি
২ কেজি ওজন

ডিজাইন
অন্যান্য ডেল এক্সপিএস ল্যাপটপের চেয়ে এটির ডিজাইন কিছুটা আলাদা। বড়সড় সাড়ে ১৫ ইঞ্চি ডিসপ্লে থাকলেও এক্সপিএস ১৫ খুবই পাতলা।ডিসপ্লে উল্টো ভাঁজ করে ট্যাবের মতো ব্যবহার করা যাবে। পুরো ইউনিট তৈরি করা হয়েছে অ্যালুমিনিয়ামে, প্লাস্টিকের কোনও অংশ নেই।
ডিসপ্লেটির কালার অ্যাকুরেসিতে ঘাটতি রয়েছে। যা এ মূল্যের, বিশেষ করে চিত্র ও ভিডিও শিল্পীদের জন্য তৈরি ডিভাইসে বেমানান। এডোবি আরজিবি কালার গ্যামুক ১০০ ভাগ সমর্থন করলেও, প্যানেলটির কালার ক্যালিব্রেশনে ঘাটতি রয়েছে।

পারফরমেন্স
অষ্টম প্রজন্মের ইন্টেল প্রসেসরটি আগের চেয়ে প্রায় দ্বিগুণ গতিতে কাজ করতে সক্ষম। আগে কোর আই৫ ল্যাপটপ সিরিজে দেয়া হতো দুটি করে কোর, এতে দেয়া হয়েছে ৪টি কোর আর ৮টি থ্রেড। ফলে সকল প্রকার কাজ দ্রুততার সঙ্গে করতে ফেলতে সক্ষম এক্সপিএস ১৫ ৯৫৭৫।
এমন কী, প্রসেসরটি কোর আই৭ এর চেয়ে পারফরমেন্সে তেমন পিছিয়েও নেই। ভিডিও এডিটিং বা থ্রিডি রেন্ডারিং এর মত ভারী কাজও সহজেই এতে করা যাবে।
র‌্যাম বদলানোর বা বাড়ানোর কোনও সুযোগ রাখা হয়নি। তাই ল্যাপটপটি কেনার সময় একেবারে ১৬ গিগাবাইট র‍্যামসহ কেনাই ভালো। র‌্যাম যথেষ্ট গতিসম্পন্ন। মাল্টিটাস্কিং করার সময় স্লো হওয়ার আশঙ্কা নেই। আর এখনও পর্যন্ত ভারি কাজের জন্যও ১৬ গিগাবাইট র‌্যাম চলনসই।
এসএসডির গতিও প্রসেসর ও র‍্যমের সঙ্গে সঙ্গতিপূর্ণ। এনভিএমই প্রযুক্তির এসএসডি সেকেন্ডে ১ গিগাবাইটের বেশ তথ্য রিড ও রাইট করতে পারবে। বিশেষ করে র‌্যান্ডম অ্যাক্সেসের সময় লাগবে খুবই কম, তাই সিস্টেম কখনো স্লো হবার আশঙ্কা নেই।

গেইমিং
কনভার্টিবল ল্যাপটপটির মূল আকর্ষণ, রেডিওন ভেগা গ্রাফিক্স। প্রসেসরের মধ্যেই সরাসরি এএমডির ভেগা গ্রাফিক্স কোর বসিয়ে দেয়া হয়েছে, সঙ্গে আছে ৪ গিগাবাইট হাই ব্যান্ডউইথ মেমরি। পারফরমেন্সে ভেগা এম জিএল জিপিউটি এনভিডিয়া জিটিএক্স ১০৫০ এর চাইতে শক্তিশালী, তবে ১০৫০টিআইর চেয়ে অল্প পিছিয়ে।
সরাসরি ডিসপ্লের ফোরকে রেজুলেশনে গেইম খেলার চিন্তা এই জিপিউতে বাদ দিতে হবে। ১০৮০ পিক্সেল রেজুলেশনে অনায়াসে সব গেইম অন্তত মিডিয়াম গ্রাফিক্সে খেলা যাবে। বিশেষ করে জিপিউর মেমরি ব্যান্ডউইডথ ও গতি দ্রুতগামী হওয়ার ফলে রেন্ডারিং করার সময়ও হঠাৎ ফ্রেম ড্রপ করবে না।বেশিরভাগ গেইম ১০৮০ পিক্সেল রেজুলেশনে সেকেন্ডে ৬০ ফ্রেম গতিতে খেলা যাবে, তবে গ্রাফিক্সের মান রাখতে হবে মিডিয়াম বা হাই।

ব্যাটারি লাইফ
মাঝারি ব্যবহার, যেমন লেখালেখি, ব্রাউজিং, ভিডিও চালানো আর গান শোনার জন্য ব্যবহার করলে ল্যাপটপটি থেকে ৭ ঘণ্টা বা আরও বেশ ব্যাকআপ পাওয়া যাবে। গেইমিংয়ের সময় ব্যাটারি লাইফ কমে আসবে ৩ থেকে ৪ ঘণ্টায়। অবশ্য ডিভাইসটি পাওয়ারব্যাঙ্ক থেকে চার্জ করা যাবে, যার কারণে চলার পথে ব্যাটারি লাইফ নিয়ে চিন্তা না করলেও চলবে।

অন্যান্য
ম্যাগলেভ প্রযুক্তির কিবোর্ডের কি ট্রাভেল মাত্র ০ দশমিক ৭ মিলিমিটার, ফলে টাইপ করার জন্য কিবোর্ডের সঙ্গে নতুন করে হাত মিলিয়ে নিতে হবে।বিশেষ করে অ্যারো কি ব্যবহার করা খুবই দুষ্কর। কিবোর্ডের প্রতিটি সুইচ যদিও সমানভাবে শক্ত এবং টাইপ করার সময় ছন্দপতন হবে না।
ওয়েবক্যাম দেয়া হয়েছে ডিসপ্লের নিচে। ভিডিও কলের সময় চেহারা অস্বাভাবিক লাগতে পারে।টাচপ্যাড আরও ভাল হতে পারত। আকৃতি ও অ্যাকুিরেসিতে বেশ পিছিয়ে আছে এটি। গ্লাস টাচপ্যাড ব্যবহারে আলাদা শান্তি আছে।

সাউন্ড
স্পিকারে ভালো সাউন্ড আশা না করাই ভালো। তবে হেডফোনে সাউন্ড চলনসই। আলাদা ড্যাক ও অ্যাম্প ছাড়া অবশ্য প্রফেশনাল সাউন্ডের কাজ করা যাবে না।

থার্মাল ডিজাইন
ল্যাপটপটির বাম পাশে প্রসেসর থাকায় গেইমিং করার সময় কিবোর্ডের বাম পাশ, বিশেষ করে যে পাশে গেইমিংয়ের জন্য দরকারি সকল বাটন আছে সে পাশ কিছুটা গরম হতে দেখা গেছে। হাত পুড়ে যাওয়ার মত না হলেও একেবারে কমও নয়।

মূল্য
দেশের বাজারে এখনও আনুষ্ঠানিকভাবে আসেনি এ ল্যাপটপ। অনানুষ্ঠানিকভাবে পাওয়া যাচ্ছে ১ লাখ ৯৮ হাজার টাকায়। আর আন্তর্জাতিকভাবে এর দাম নির্ধারণ করা আছে দুই হাজার ২০০ ডলার।

এক নজরে ভালো
তৈরির মান
ব্যাটারি লাইফ
পারফরমেন্স
গেইমিং

এক নজরে খারাপ
ডিসপ্লের মান আরও ভালো হতে পারত
থার্মাল ডিজাইনের কারণে কিবোর্ড কিছুটা গরম হয়
ইউএসবি টাইপ-সি ছাড়া অন্যান্য পোর্ট একেবারেই নেই


আরোও সংবাদ