ট্রাফিক পুলিশ হচ্ছে হিজড়া

প্রকাশ:| বুধবার, ২০ মে , ২০১৫ সময় ০৯:৩৫ অপরাহ্ণ

সমাজে উপেক্ষিত জনগোষ্ঠী তৃতীয় লিঙ্গের ব্যক্তিদের (হিজড়া) জন্য চাকরি ও অন্যান্য উদ্যোগের মাধ্যমে পুনর্বাসিত করার চিন্তাভাবনা করছে সরকার। আসন্ন বাজেটে তাদের জন্য আলাদা বরাদ্দ রাখা হচ্ছে। এছাড়া ট্রাফিক পুলিশ বা শিক্ষাগত যোগ্যতা অনুযায়ী চাকরি দেয়ার ব্যাপারেও আলোচনা চলছে।

গতকাল মঙ্গলবার সচিবালয়ে অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আবদুল মুহিতের সভাপতিত্বে সামাজিক নিরাপত্তা সংক্রান্ত মন্ত্রিসভা কমিটির বৈঠকে এসব বিষয়ে আলোচনা হয়। বৈঠকে উপস্থিত ছিলেন- মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক মন্ত্রী একেএম মোজাম্মেল হক, সমাজকল্যাণ মন্ত্রী সৈয়দ মোহসিন আলী এবং নারী ও শিশু বিষয়ক মন্ত্রী মেহের আফরোজ চুমকি।

বৈঠক সূত্রে জানা যায়, আগামী বাজেটে সামাজিক নিরাপত্তা বেষ্টনীর আওতা বাড়ছে। এ উদ্যোগের অংশ হিসেবে হিজড়াদের পুনর্বাসন করা হচ্ছে। তাদের সমাজের মূলধারায় নিয়ে আসা হবে। এজন্য যোগ্যতা অনুযায়ী তাদের কর্মসসংস্থানের ব্যবস্থা করছে সরকার। বিশেষ করে ট্রাফিক পুলিশে নিয়োগের বিষয়টি গুরুত্ব দিয়ে দেখা হচ্ছে। এ বিষয়ে আগামী বাজেটে বিশেষ বরাদ্দ রাখা হচ্ছে।
হিজড়া
এ ব্যাপারে বুধবার মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক মন্ত্রী একেএম মোজাম্মেল হক বাংলামেইলকে বলেন, ‘হিজড়ারা অনেক পিছিয়ে আছে। তাদের সামাজিকভাবে পুনর্বাসনের জন্য কর্মসংস্থানের ব্যবস্থা করবে সরকার।’

উল্লেখ্য, ২০১৩ সালে হিজড়াদের স্বতন্ত্র লিঙ্গ হিসেবে স্বীকৃতি দেওয়া হয়। বর্তমানে দেশে বসবাসরত হিজড়ার সংখ্যা প্রায় ১০ হাজার।
হিজড়া২
বৈঠকে মুক্তিযোদ্ধাদের ভাতা দ্বিগুণ (প্রতি মাসে ১০ হাজার টাকা) করার প্রস্তাব করে মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক মন্ত্রণালয়। বর্তমানে ২ লাখ মুক্তিযোদ্ধা মাসে ৫ হাজার টাকা করে ভাতা পাচ্ছেন। চলতি অর্থবছরে এ খাতে ব্যয় ১ হাজার ২০০ কোটি টাকা। ভাতা দ্বিগুণ করা হলে বাজেটে অতিরিক্ত ৮০০ কোটি টাকা বরাদ্দ প্রয়োজন হবে।