‘টেস্ট’ মানে পরীক্ষা, বুঝলেন সৌম্য

প্রকাশ:| বুধবার, ২৯ এপ্রিল , ২০১৫ সময় ০৮:২৮ অপরাহ্ণ

সৌম্যপাকিস্তানের বিপক্ষে শেষ ওয়ানডেতে দুর্দান্ত সেঞ্চুরি করা সৌম্য আর আজকের সৌম্যের মধ্যে বেশ পার্থক্য দেখা গেল। টেস্ট অভিষেকে ব্যাট করতে নেমেছিলেন। কিন্তু দিনটা রাঙাতে পারেননি। দলও কাটিয়েছে একটা বাজে দিন। খুলনা টেস্টের দ্বিতীয় দিন শেষে সৌম্য সরকারের মুখে শান্তি-স্নিগ্ধ হাসিটা খুঁজে পাওয়া কঠিনই হলো।

নির্দিষ্ট সময়ের খানিকপরেই সংবাদ সম্মেলনে এলেন বাংলাদেশ দলের প্রতিনিধি হয়ে। আজ দলের যে পারফরম্যান্স, কাকে সংবাদ সম্মেলনে পাঠাবেন, তা নিয়ে হয়তো বেশ দ্বিধায় পড়ে গিয়েছিল টিম ম্যানেজমেন্ট! শেষমেশ সৌম্য রাজি হয়েছেন, নাকি তাঁকে ঠেলেঠুলে পাঠানো হয়েছে কে জানে!

মোহাম্মদ হাফিজের বলে ৩৩ রানে ফিরে বেশ আক্ষেপের পুড়ছেন সৌম্য। বললেন, ‘বাজে খেলে আউট হয়েছি। ওভাবে না খেললেও পারতাম। পরে ভাবলাম, প্রথম টেস্ট। যা ভুল হওয়ার হয়েছে। এ ভুল আর করা যাবে না।’
কেবল সৌম্যের কেন, গোটা দিনটাই তো খারাপ গেল বাংলাদেশের। তা সহজেই স্বীকারও করে নিলেন, ‘সব দিক দিয়ে আমাদের দিনটা খারাপ গেছে। ৬ উইকেট হাতে নিয়ে খেলতে নেমেছিলাম। দ্রুত অলআউট হয়ে গিয়েছি। বোলিংটাও ভালো হয়নি। জায়গায় মতো বল করতে পারিনি। কাল যে অবস্থায় ছিলাম, সে তুলনায় আজ আমরা বাজে খেলেছি। ফিল্ডিংয়ে কয়েকটা সুযোগ হাতছাড়া হয়েছে।’

ওয়ানডে, টি- টোয়েন্টি খেললেও আজই প্রথম ব্যাট করতে নামলেন টেস্টে। জানালেন শুরুতেই বেশ স্নায়ুচাপে ভুগেছেন, ‘যেভাবে সাধারণত ব্যাট করতে নামি, আজও তা-ই। তবে উইকেটে গিয়ে পার্থক্যটা বুঝলাম। তখন মনে হলো, আজ আমার অভিষেক হচ্ছে। কীভাবে শুরু করব, প্রথম বলটা কীভাবে খেলব—এসব নিয়ে খানিকটা নার্ভাস ছিলাম। দ্বিতীয় বলেও নার্ভাস ছিলাম। তবে তৃতীয় বল থেকে মোটামুটি স্বাভাবিক হয়েছিলাম। মুশফিক ভাই সঙ্গে ছিলেন। তিনি স্বাভাবিক খেলতে উত্সাহ জুগিয়েছেন।’

অন্য ক্রিকেটের সঙ্গে টেস্টের পার্থক্য ভালোই বুঝলেন অভিষিক্ত এ বাঁহাতি, ‘মূল পার্থক্যটা হচ্ছে, ঘরোয়া ক্রিকেটে যেভাবে বাজে বল পাওয়া যায়, এখানে সেটা খুবই কম। পাকিস্তান প্রথম দিন থেকেই ভালো বল করেছে। বাজে বল খুবই কম করেছে। যতক্ষণ উইকেটে ছিলাম, দেখেছি পাকিস্তানি বোলাররা খুবই ভালো বোলিং করেছে। অনেক সময় ওভারে একটা বাজে বল পাওয়া যায়, আজ তাও পাওয়া যায়নি। নিজেদের ছোটখাটো ভুলের কারণে দ্রুত অলআউট হয়েছি।’
ম্যাচের আগের দিন অধিনায়ক-কোচ জানিয়েছিলেন, জয়ের জন্য খেলব। দ্বিতীয় দিন শেষে সে লক্ষ্যে অটুট আছে বাংলাদেশ? সৌম্য বললেন, ‘কাল ঠিকভাবে বোলিং করতে পারলে দিনটা আমাদের হবে। আমরা জেতার জন্যই খেলব। ভালো বোলিং ও দ্বিতীয় ইনিংসে ভালো ব্যাটিং করলে জেতা সম্ভব।’

পাকিস্তানের বিপক্ষে ওয়ানডে, টি-টোয়েন্টিতে খেলেছেন ওপেনার হিসেবে। আজ নেমেছেন সাতে। তখন ‘ব্যাটসম্যান’ বলতে বাকি ছিলেন কেবল শুভাগত হোম। নিচে নামলেও বড় ইনিংস খেলার স্বপ্নই ছিল সৌম্যের, ‘আমার পরে মাত্র একজন ব্যাটসম্যান ছিল। আগেও কিছু বড় ইনিংস খেলেছি বোলারদের নিয়ে। আজও আত্মবিশ্বাস ছিল, তেমন খেলতে পারব।’
কিন্তু সব চাওয়া সব সময় পূরণ হয় না। এটাও বোধ হয় তাঁর নতুন উপলব্ধি।