টেকনাফ উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সর ইপি আই কর্মসূচী এগিয়ে চলছে

প্রকাশ:| মঙ্গলবার, ২৪ মার্চ , ২০১৫ সময় ০৮:৩৮ অপরাহ্ণ

ফরহাদ রহমান,টেকনাফ প্রতিনিধি:
টেকনাফ উপজেলা ৫০ শয্যা বিশিষ্ট হাসপাতালের টীকাদান কর্মসূচী সাফল্যের সহিদ ন্দ্রত এগিয়ে চলছে। এগিয়ে চলা কর্মসূচীকে বাধা গ্রস্থ করার জন্য সংশ্লিষ্ঠ দপ্তরের এক কর্মচারী ইন্ধনে বাইরের তৃতীয় পক্ষদের নিয়ে ষডযন্ত্রে লিপÍ হয়ে পড়েছে বলে এলাকার সতেচন মহল জানায়। সাম্প্রতিক সময়ে ইপি আই কর্মসূচী নিয়ে ধু¤্রজলে সৃষ্টি করেছে এলাকার কতিপয় ব্যক্তি। এর খুঁটির জোর হচ্ছে সংশ্লিষ্ঠ দপ্তরের একজন নি¤œতম কর্মচারীর বলে। হাসপাতাল পরিদর্শন করে দেখা যায়, ইপি আই কার্যালয়ে মহিলা ও শিশুদের টীকা দেওয়ার দীর্ঘ লাইন। সু-শূংগল ভাবে বিনা পয়সায় টীকা দিয়ে যাচ্ছে। তদারকি করছে এম টি ই পি আই ইনচার্জ মিজানুর রহমান মজুমদার। তার সাথে টীকা দিতে আসা মহিলাদের সাথে আলাপ করে জানা যায়, ১১ মাস হতে ১৫ মাস বয়সি পযর্ন্ত শিশুদেরকে টীকা দেওয়া হচ্ছে। এর উর্ধে বয়স্কদের টীকা দেওয়া হয় না। টীকা দেওয়া শিশুদেরকে কার্ড দেওয়া হচ্ছে, পরবর্তী টীকা কবে কখন দেওয়া হবে কর্মসূচী সম্মলিত। ইদানিং স্থানীয় একজন লোক ৪ বছর ৭ মাস বয়সের শিশু এনে টীকা মারার জন্য এবং কার্ড দেওয়ার জন্য চাপ সৃষ্টি করে এম টি ই পি আই এর উপর। তিনি ঐ বয়সের শিশুদেরকে কার্ড ও টীকা দেওয়া যাবেনা মর্মে ম্যানুয়েল দেখালেও ঐ লোক মারমুখি হয়ে হাসপালের অভান্তরে এম টি ই পি আই ইনচার্জকে মারার জন্য আসে এবং পরবর্তীতে তাকে অন্যেত্রে বদলা করার জন্য হুমকিও মানব বন্ধন করে । এ ব্যপারে হাসপাতালের কর্মকর্তা কর্মচারীদের মধ্যে চাপা উত্তেজনা বিরাজ করে। এবং ঐ সন্ত্রাসি ব্যক্তিদেরকে আইনের আওতায় এনে শাস্তি দায়ের আহবান জানায়। এ ব্যাপারে টেকনাফ উপজেলা স্বাস্থ্য পঃ পঃ কর্মকর্তা ডাঃ বখতিয়ার আলমের সাথে যোগাযোগ করা হলে তিনি জানান, এ ব্যাপারে তিনি উপজেলা নির্বাহী অফিসার, স্থানীয় উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান ও সংসদের সাথে আলাপ করে দোষি ব্যক্তির বিরুদ্ধে ব্যবস্তা নিবেন বলে জানায়।


আরোও সংবাদ