টেকনাফের ঝিমংখালী প্রাথমিক বিদ্যালয়ে মাঠিতে বসে শিশুদের পাঠদান

প্রকাশ:| শনিবার, ৭ মার্চ , ২০১৫ সময় ০৯:৩৩ অপরাহ্ণ

ফরহাদ রহমান,টেকনাফ প্রতিনিধি:
হ্নীলা শাহ মজিদিয়া মাদ্রাসার বার্ষিক সম্মেলনটেকনাফের ঝিমংখালী সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়টি বহুমুখী সমস্যায় জর্জড়িত হয়ে পড়েছে। তৎমধ্যে বিদ্যালয়ের শেণী কক্ষ ও আসবাবপত্রের সংকট অন্যতম। একারণে স্কুলের বারান্দা ও ক্লাস রুমে মাঠিতে বসে শিশু শিক্ষার্থীদের পাঠদান দিতে হয়। মাঠিতে বই খাতা রেখে শিশু ছাত্রছাত্রীদের পাঠদানের চিত্র দেখে সত্যি অবাক হতে হয়।
সরেজমিন পরিদর্শনে গিয়ে দেখা যায়, ১৯৩২ সালে বিদ্যালয়টি প্রতিষ্টার পর হতে এলাকায় ব্যাপক শিক্ষার আলো ছড়ায়ে আসে এবং সুশিক্ষিত আদর্শিক মানুষ গড়তে ব্যাপক ভুমিকা রেখে চলছে। উপজেলার অন্যন্য প্রাইমারী স্কুলের মধ্যে এ স্কুলটি অন্যতম। ঐতিয্যবাহী এই স্কুলে প্রাথমিক শিক্ষা লাভের মাধ্যমে এলাকার অসংখ্য লোকজন উচ্ছ শিক্ষা অর্জনের সুযোগ পায় এবং শিক্ষা অর্জনদ্বারা অসংখ্য লোকজন শিক্ষক সচিবসহ সরকারী বেসরকারী বিভিন্ন প্রতিষ্টানে দায়িত্বে নিয়োজিত রয়েছে এবং অসংখ্য ছাত্র ছাত্রী উক্ত বিদ্যালয়ে শিক্ষা লাভের মাধ্যমে উন্নত ও আদর্শিক জীবনের সন্ধান পায়। উল্লেখ্য যে, বিদ্যালয়টির বর্তমান প্রধান শিক্ষক মাষ্টার মোঃ জাকারিয়া খোদ প্রাথমিক শিক্ষা লাভ করে অত্র বিদ্যালয়ে । এমনকি তা গর্ভধারনী বৃদ্ধা মা আনোয়ারা বেগম (৬২) এই বিদ্যালয়ের ছাত্রী ছিলেন। কিন্তু প্রাচীনতম শিক্ষার আলো ছড়ানো এ্ই বিদ্যালয়টি এখনো নানা সমস্যায় জর্জরিত রয়েছে। পরিদর্শনকালে দেখা যায়, ঝিমংখালীস্থ কক্সবাজার টেকনাফ মহাসড়কের পশ্চিম পার্শ্বে ৩৮ শতক জমিতে পাচ কক্ষের পৃথক ২ দালানে এলাকার ৫০০ শত ছাত্র ছাত্রীকে প্রতিদিন পাঠ দান দিয়ে যাচ্ছে বিদ্যালয়ে নিযুক্ত ৫ শিক্ষক যথাক্রমে মোঃ জাকারিয়া, জসিম উদ্দিন, মোঃ ্ ইলিয়াছ, ওসমান সরওয়ার ও সাবেকুন্নাহার। বিদ্যালয়ের বর্তমান ছাত্র ছাত্রীর সংখ্যা অনুপাতে শ্ক্ষিক শ্রেনীকক্ষ ও আসবাব পত্রের মারাতœক সংকট দেখা দিয়েছে। স্কুলের ৯টি শিক্ষক পদে ৪ টি দীর্ঘদিন ধরে শুন্য রয়েছে। শ্রেনী কক্ষ গুলোতে এমনিতে ঠাসাঠাসি অবস্থা অসহনীয় গরমে অস্থির শিক্ষার্থীরা। বিদ্যালয়ে বিদ্যুৎ সংযোগ না থাকায় যেন নরক যন্ত্রনায় ভোগছে শিক্ষার্থীরা। এছাড়া বিদ্যালয়ের বাউন্ডারীসহ নানা সমস্যা বিরাজমান। স্কুলের প্রধান শিক্ষক মোঃ জাকারিয়া বলেছেন, গত ২০১০ সালে তিনি যোগদানের পর হতে উপরোল্লেখিত সমস্যাদি নিয়ে কর্তৃপক্ষের বরাবরে বারবার আবেদন করেও প্রতিকার ব্যবস্থা গ্রহন করা হ্য়নি।


আরোও সংবাদ