টানা বর্ষণে বন্দর পতেঙ্গায় ও ইপিজেড এলাকায় জলাবদ্ধতার সৃষ্টি

প্রকাশ:| রবিবার, ১১ মে , ২০১৪ সময় ০৬:৫৫ অপরাহ্ণ

বাবুল হোসেন বাুবলা:

টানা বর্ষণে বন্দর পতেঙ্গায় ও ইপিজেড এলাকায় জলাবদ্ধতার সৃষ্টিঋতু পরিবর্তনের ফলে হঠাৎ করে মোসুমী বায়ু দক্ষিণ দিকে প্রবাহিত হওয়ায় চট্টগ্রামে গতকাল শনিবার এবং আজ রবিবার ভোর ৬টা হতে প্রবল বৃষ্টি, বজ্রবৃষ্টি এবং দমকা হাওয়া বইতে শুরু করে। আর হঠাৎ বর্ষণে শিকার হয়েছে মহানগরীর বন্দর , পতেঙ্গা , ডবলমুরিং, হালিশহর, পাহারতলী এবং ইপিজেড এলাকায় হাটু থেকে কোমড় পর্যন্ত পানি জমে রয়েছে । সরেজমিনে বিভিন্ন এলাকা ঘুরে দেখা গেছে, নি¤œাঞ্চলের গৃহস্থালী ও ভাড়াবাসায় পানি জমে জলাবদ্ধতা সৃস্টি হয়েছে

তবে সবচাইতে বেশী জলাবদ্ধতা হয়েছে বন্দরে বন্দরটিলা , কোরবানআলী পাড়া , ব্যারিষ্টার কলেজ রোড ,ফকির মো: সড়ক , ব্যাংক কলোনী রোড , পতেঙ্গা খেজুর তলা ,চরবস্তি , হাজিপাড়া , রাজা-বাদশা রোড , নাজির পাড়া , মুসলিমাবাদ জেলে পাড়া , হিন্দু পাড়া ( মহাজন বাড়ীর ভেতর প্রাঙ্গন ) , নুরগনি পাড়া , ইপিজেডে আকমল আলী রোড , মাদ্রাজী শাহ পাড়া, এবং ইপিজেড গেইট হতে ২ নং মাইলের মাথা, কলসী দিঘী রোড এলাকায় হাঁটু পানি জমে গার্মেন্টস শ্রমিকদের জন্য দূর্ভোগ সৃস্টি হয়েছে । এছাড়া গোসাইলডাঙ্গা , ১ নং সাইড , আগ্রাবাদ এক্সেস রোড,টিএনটি কলোনী ,সিডিএ কলোনী রোড , ডবলমুরিং , কমার্স কলেজ এরিয়া , বেপারী পাড়া ও ইদগাঁও মোললা পাড়ার অধিকাংশ বাসা-বাড়ীতে পানি জমে থাকে বলে মহসিন জানান। পাহাড়তলীর দুলালবাদ , এবং রেল কলোনী এরিয়া জলাবদ্ধতা সৃস্টি হয়েছে বলে আর কে বাবুল মিয়া জানান ।

আমবাগান আবহাওয়া অফিসের সহকারী কর্মকর্তা ইকবাল হোসেন জানান, ভোর ৬টা হতে বিকাল ৫টা পর্যন্ত প্রায় ২০৭.৫ মি:মি: বৃস্টিপাত রেকর্ড করা হয় । এছাড়া আজ সহ আগামীকাল ভোর পর্যন্ত বৃস্টি , বজ্রবৃস্টি এবং দমকা হাওয়া চট্টগ্রামে বয়ে যেতে পারে । চট্টগ্রামে ৩ নং সর্তক সংকেত রয়েছে বলে জানান, জলাবদ্ধতা সৃস্টি প্রসঙ্গে পতেঙ্গার ৪০ নং ওর্য়াড কাউন্সিলর বারেক জানান, পর্যাপ্ত বাজেট না থাকায় নিজের অর্থ খরচ করে জলাবদ্ধতা রোধ করার চেস্টা করছি । চসিকের যে প্রকল্প কথা তাও এই ৪০ নং ওয়ার্ডের জন্য বরাদ্দ দেন না বলে জানান। ড্রেনের ব্যবস্থা পুরাতন এবং নালা সংস্কার না থাকায় এই জলাবদ্ধতা তৈরী হয়েছে । তবে আমার ওয়ার্ডকে জনবল দিয়ে জলাবদ্ধতা রোধ চেস্টা করে যাচিছ ।

এদিকে ইপিজেডের মোড়ে জলাবদ্ধতার প্রসঙ্গে কতৃপক্ষ কিছু না জানালেও এক প্রহরী ও গার্মেন্টস কর্মী মহিউদ্দিন জানান , সাময়িক বৃস্টিতে এই জলাবদ্ধতা হয়েছে । বৃস্টি বন্ধ হলে তা কমে যাবে । নগরীর ৩৯নং ওয়ার্ডের বন্দরটিলার বড়মিয়া বাড়ী রোড , নয়াহাট এলাকায় হাঁটু পানি সম্পর্কে বাসিন্দা শাহরুখ জানান যে, কর্ণফুলী নিকটে তাই সামান্য বৃস্টি হলেই ও জোয়ারের পানিতে নয়া হাট এলাকায় স্থায়ী জলাবদ্ধতা সৃস্টি হচেছ । তবে ড্রেনের ব্যবস্থা তেমন ভালো না থাকায় পানি দ্রুত নামতে পারছে না ।

এলাকাবাসী ও ভুক্তভোগীদের দ্রুত খাল খনন, ড্রেনেজ ব্যবস্থা আধুনিকায়ন এবং নালা গুলোকে পানি যাবার উপযোগী করে জলাবদ্ধতা রোধ করা সম্ভব বলে মত প্রকাশ করেন ।