জয়ের পথে অস্ট্রেলিয়া

প্রকাশ:| শনিবার, ২৮ ডিসেম্বর , ২০১৩ সময় ০৭:২৮ অপরাহ্ণ

imagesএবারের অ্যাশেজ সিরিজে বক্সিং ডে টেস্টেই কিছুটা হাসি ফুটেছিল ইংলিশ সমর্থকদের মুখে। প্রথম ইনিংসে লিড নিয়ে ঘুরে দাঁড়ানোর জোর ইঙ্গিত দিয়েছিলেন অ্যালিস্টার কুকরা। কিন্তু সেই হাসি মিলিয়ে যেতেও খুব বেশি সময় লাগল না। ৫৫ রানের লিড নেওয়ার পর দ্বিতীয় ইনিংসে ব্যাটিং বিপর্যয়ের শিকার হয়ে এখন আবারও ধুঁকছে সফরকারীরা। জয়ের জন্য ২৩১ রানের লক্ষ্যে ব্যাট করতে নেমে কোনো উইকেট না হারিয়ে ইতিমধ্যে ৩০ রান সংগ্রহও করে ফেলেছে স্বাগতিক অস্ট্রেলিয়া। আগামীকাল চতুর্থ দিনে জয়ের জন্য তাদের চাই আর ২০১ রান। অন্যদিকে টানা চতুর্থ হারের লজ্জা এড়ানোর জন্য অবিশ্বাস্য ধরনেরই কিছু করে দেখাতে হবে ইংলিশ বোলারদের।
প্রথম ইনিংসে পিছিয়ে পড়ার শোধটা বল হাতে বেশ ভালোমতোই নিয়েছে মাইকেল ক্লার্কের দল। দুর্দান্ত বোলিং করে ইংল্যান্ডকে মাত্র ১৭৯ রানেই গুটিয়ে দিয়েছেন নাথান লায়ন ও মিচেল জনসন। ১৭৩ থেকে ১৭৯, এই ছয়টি রান সংগ্রহ করতেই শেষ পাঁচটি উইকেট হারিয়েছে ইংল্যান্ড। এর আগে তাদের টপ অর্ডারও হয়েছিল আকস্মিক বিপর্যয়ের শিকার। ৮৬ থেকে ৮৭ রান পর্যন্ত যেতেই ইংল্যান্ড খুইয়েছিল ওপেনার মাইকেল ক্যারবেরি, জো রুট ও ইয়ান বেলের উইকেট।
অথচ অধিনায়ক কুকের ৫১ রানের ইনিংসটিতে ভর করে শুরুটা ভালোভাবেই করেছিল ইংল্যান্ড। উদ্বোধনী জুটিতেই ৬৫ রান সংগ্রহ করেছিলেন কুক ও ক্যারবেরি। কুক আউট হওয়ার পর দ্রুতই বেশ কয়েকটি উইকেট হারিয়েছে ইংল্যান্ড। টানা দুই ওভারে মাইকেল কারবেরি, জো রুট ও ইয়ান বেলকে আউট করেছেন পিটার সিডল ও নাথান লায়ন। পঞ্চম উইকেটে ৪৪ রানের জুটি গড়ে ঘুরে দাঁড়ানোর চেষ্টা করেছিলেন পিটারসেন ও বেন স্টোকস। কিন্তু দলীয় ১৩১ রানের মাথায় স্টোকসকে আউট করে ইংল্যান্ডকে কিছুটা চাপের মুখে ফেলে দিয়েছেন লায়ন। প্রথম ইনিংসের মতো দ্বিতীয় ইনিংসেও ইংল্যান্ডের ভরসার প্রতীক হয়েছিলেন পিটারসেন। ষষ্ঠ উইকেটে জনি বেয়ারস্ট্রোকে নিয়ে তিনি গড়েছিলেন ৪২ রানের জুটি। এটাই ছিল ইংল্যান্ডের শেষ প্রতিরোধ। দলীয় ১৭৩ রানের মাথায় বেয়ারস্ট্রো আউট হওয়ার পর তাসের ঘরের মতো ভেঙে পড়েছে ইংল্যান্ডের লোয়ার অর্ডার। ৪৯ রান করে ইংল্যান্ডের নবম ব্যাটসম্যান হিসেবে আউট হয়েছেন পিটারসেন।


আরোও সংবাদ