জেমিমার হাতে রাসেলের দেয়া বাগদানের আংটি

প্রকাশ:| মঙ্গলবার, ২৫ মার্চ , ২০১৪ সময় ০৭:৫১ অপরাহ্ণ

ব্রিটিশ কৌতুকশিল্পী, অভিনেতা ও লেখক রাসেল ব্র্যান্ডের সঙ্গে পাকিস্তানি ক্রিকেটার ইমরান খানের সাবেক স্ত্রী ও ব্রিটিশ লেখিকা জেমিমার বাগদান সম্পন্ন হয়েছে । এ খবর জানিয়েছে যুক্তরাজ্যের মিরর ডটকম । সম্প্রতি জেমিমার আঙুলে চমৎকার একটি হীরার আংটি দেখা যাওয়ার পর বয়সে দুই বছরের ছোট রাসেল ব্র্যান্ডের সঙ্গে তার বাগদানের খবর চাউর হয়েছে। এ প্রসঙ্গে ঘনিষ্ঠ একটি সূত্র জানিয়েছে, সম্প্রতি লন্ডনে হীরার আংটি পরা অবস্থায় ক্যামেরাবন্দি হন জেমিমা। আরেক দিন আংটিটি পরে একটি রেস্তোরাঁয়ও যান তিনি। চমৎকার নকশা করা রুচিশীল এ আংটিটি দেখে বাগদানের আংটি বলেই মনে হয়েছে। এ ছাড়া জেমিমাকে দেখে দারুণ আনন্দিত বলে মনে হচ্ছিল। যুক্তরাজ্যের রাজনীতি ও সংস্কৃতিবিষয়ক সাপ্তাহিক পত্রিকা নিউ স্টেটম্যানের সহযোগী সম্পাদক ৪০ বছর বয়সী জেমিমা। ভ্যানিটি ফেয়ার ম্যাগাজিনে প্রদায়ক সম্পাদক হিসেবেও দায়িত্ব পালন করছেন তিনি। কয়েক বছর আগে জেমিমার ম্যাগাজিনে একটি আর্টিকেল লিখেছিলেন রাসেল। এভাবেই একে অপরের সঙ্গে প্রথম পরিচিত হন তারা। গত বছরের শেষ দিকে হাত ধরাধরি করে ঘুরে বেড়ানোর সময় ক্যামেরাবন্দি হওয়ার পর প্রথম জেমিমা ও রাসেলের প্রেমের খবর চাউর হয়। চলতি বছরের জানুয়ারি মাসে একটি টিভি অনুষ্ঠানে সাক্ষাৎকার দেয়ার সময় রাসেল বলেন, আমি সত্যিই জেমিমাকে অনেক ভালবাসি। এবারের প্রেম নিয়ে আমি খুবই সিরিয়াস। যে কোনো উপায়ে প্রেমমটাকে টিকিয়ে রাখব আমি। রাসেল আরও বলেন, জেমিমা অসাধারণ রূপবতী একজন নারী। তাকে আমার জীবনে পেয়ে আমি খুব আনন্দিত। ভালবাসার এমন তীব্র অনুভূতি আগে কখনও অনুভব করিনি। আমার উপলব্ধি, আমাদের সম্পর্কটা গড়ে উঠেছে বন্ধুত্ব আর ভালবাসার ওপর ভিত্তি করে। সব মিলিয়ে চমৎকার ও সম্পূর্ণ ভিন্ন রকম এক অভিজ্ঞতার মধ্য দিয়ে যাচ্ছি আমি। উল্লেখ্য , ১৯৯৫ সালে ইসলামি রীতিতে ইমরান খান ও জেমিমার বিয়ে সম্পন্ন হয়েছিল প্যারিসে। বিয়ের কয়েক মাস আগেই ইসলাম ধর্ম গ্রহণ করেছিলেন জেমিমা। বিয়ের পর তাদের ঘরে আসে দুই সন্তান। কিন্তু ২০০৪ সালে নয় বছরের দাম্পত্য জীবনের ইতি টানেন ইমরান-জেমিমা। একই বছর দুই ছেলেকে সঙ্গে নিয়ে পাকিস্তান ছেড়ে লন্ডনে চলে যান জেমিমা। পরবর্তী সময়ে ‘নটিং হিল’খ্যাত ব্রিটিশ অভিনেতা ও প্রযোজক হিউ গ্র্যান্টের সঙ্গে জেমিমার প্রণয়ের সম্পর্ক গড়ে ওঠে। কিন্তু শেষ পর্যন্ত টেকেনি সেই প্রেম। ২০০৭ সালে হিউ গ্র্যান্ট জানান, পারস্পরিক সমঝোতার ভিত্তিতে প্রেমের ইতি টেনেছেন তিনি ও জেমিমা।