জেদ্দা কনস্যুলেটে বর্ষ বরণ উৎসব

প্রকাশ:| শুক্রবার, ১৪ এপ্রিল , ২০১৭ সময় ১১:৪৪ অপরাহ্ণ

সৌদিআরব প্রতিনিধি : বৈশাখ আসে নতুন আশার আলো নিয়ে। বাঙালির আবেগ দোল খায় নববর্ষ বৈশাখের আগমনে। কেবল দেশে নয়, জীবন জীবিকার তাগিদে প্রবাসে যেখানে বাঙালির অবস্থান, সেখানে বেজে ওঠে আবহমান বাংলার সুর- “এসো হে বৈশাখ, এসো এসো”।
১৪ এপ্রিল-বাংলাদেশের সাংস্কৃতিক ঐতিহ্য রক্ষা এবং নিজস্ব সংস্কৃতিচর্চাকে এগিয়ে নেওয়ার জন্য নানা আয়োজনের মধ্য দিয়ে সৌদিআরবের জেদ্দা প্রবাসী বাঙালিরা বর্ষবরণ করেন। জেদ্দাস্থ বাংলাদেশ কনস্যুলেট জেনারেল এর উদ্যোগে বরণ করা হয় বাংলা নববর্ষ ১৪২৪। বিপুল উৎসাহ-উদ্দীপনায় জেদ্দাস্থ বাঙালিরা অনুষ্ঠানটি উপভোগ করেন। বাংলাদেশ থেকে কয়েক হাজার কিলোমিটার দূরে অবস্থান করলেও বর্ষবরণ অনুষ্ঠানে আনন্দের কোনো কমতি ছিল না। প্রবাসের নববর্ষের এই অনুষ্ঠান ক্ষণিকের জন্য হলেও সবাইকে নিয়ে যায় শৈশব-কৈশোরের অতীত দিনগুলোতে।
শুক্রবার সকাল বেলা মরুর আকাশের মন কিছুটা মলিন থাকলেও দুপুর গড়াতে গড়াতে মনটা ভাল হতে চলেছে সাথে সাথে প্রকৃতিও সেজেছে নবরূপে। নারীদের পরনে সুতির শাড়ি, হাতে কাচের চুড়ি আর কবরীতে তাজা ফুলের মালা। পুরুষদের রঙীন পাঞ্জাবি সাথে গামছা। ধর্ম-বর্ণ, শ্রেণী-পেশা, বয়স নির্বিশেষে সব বাঙলাদেশীরা শামিল হয়েছেন বৈশাখী উৎসবে। ভেদাভেদ ভুলে উৎসবে রঙে ১৪২৪ বঙ্গাব্দকে বরণ করে নিয়েছেন সৌদিআরবের বাংলাদেশীরা।
মঙ্গল শোভাযাত্রা, পান্তা- বর্তা, ঢাক-ঢোল, নাচ-গান, ব্যানার, ফেস্টুন রং আর উল্লাসের সব আয়োজনই ছিল উৎসবে আর এই উৎসবের মধ্য দিয়ে বাংলাদেশ কনস্যুলেট জেনারেল মাঠ প্রাঙ্গনে এক সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান আয়োজন করে। সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান পরিচালনা করেন দ্বিতীয়ত সচিব শ্রম কাজী সালাউদ্দিন আহাম্মেদ। এতে জেদ্দাস্থ বাংলাদেশী শিল্প গোষ্ঠী মিজান ও তার দল এবং বাংলা ও  ইংলিশ মিডিয়ামের ছাত্রীরা সংগীত পরিবেশন করেন। নৃত্য পরিবেশন করেন নাবিলা ও হাইফা নৃত্যদলের শিল্পীরা। অনুষ্ঠানের শুরুতে উদ্বোধনী বক্তব্যে বাংলাদেশ কনস্যুলেট কনসাল জেনারেল এফ এম বোরহান উদ্দিন প্রবাসীদের নববর্ষের উৎসবে উপস্থিত হওয়ার জন্য সবাইকে আন্তরিক ধন্যবাদ জানান।  এতে আরো উপস্থিত ছিলেন কনস্যুলেটের কাউন্সিলর শ্রম আমিনুল ইসলাম, কাউন্সিলর হজ্জ মাকসুদুর রহমান, কাউন্সিলর আলতাফ হোসেন, কাউন্সিলর ডিপ্লোমেটিক আজিজুর রহমান, কনসাল হজ্জ জহিরুল ইসলাম, প্রথম সচিব কামরুজ্জামান সহ জেদ্দাতে বসবাসরত বাংলাদেশি কমিউনিটির বিশিষ্ট ব্যক্তিবর্গ, প্রবাসী সাংবাদিক, বাংলাদেশ দূতাবাসের কর্মী, সামাজিক-সাংস্কৃতিক-রাজনৈতিক সংগঠনের নেতৃবৃন্দ ও ছাত্র-ছাত্রীসহ প্রবাসীরা অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন।


আরোও সংবাদ