জিয়াউর রহমানের কাছে সমর্থন চাইলে তিনি নীরব সম্মতি দেন-শেখ হাসিনা

প্রকাশ:| শনিবার, ১৬ আগস্ট , ২০১৪ সময় ০৬:৫৮ অপরাহ্ণ

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, খুনি ফারুক-রশিদ সাক্ষাতকার দিয়ে বলেছিলেন, বঙ্গবন্ধুকে সরাতে হলে খুন করা ছাড়া তাদের সামনে আর কোনো গত্যন্তর ছিল না। তারা জিয়াউর রহমানের কাছে সমর্থন চাইলে তিনি নীরব সম্মতি দেন, সহায়তার ইঙ্গিত করেন।

আর এটি প্রমাণ করে, বঙ্গবন্ধু হত্যার ষড়যন্ত্রের সঙ্গে জিয়াও জড়িত ছিলেন।

তিনি বলেন, ১৫ আগস্ট সপরিবারে জাতির পিতাকে নির্মমভাবে হত্যা করে বিজয়ী বাঙালি জাতির ললাটে কলঙ্কতিলক এঁটে দিয়েছিল খুনিরা। বিজয়ী জাতিকে খুনির জাতি হিসেবে পরিচিত করেছিল।

জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ৩৯তম শাহাদত বার্ষিকী জাতীয় শোক দিবস উপলক্ষে আওয়ামী লীগের আলোচনা সভায় এসব কথা বলেন তিনি।

বঙ্গবন্ধু আন্তর্জাতিক সম্মেলন কেন্দ্রে আয়োজিত এ আলোচনা সভায় সভাপতিত্ব করছেন সংসদ উপনেতা আওয়ামী লীগের সভাপতিমণ্ডলীর সদস্য সৈয়দা সাজেদা চৌধুরী।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, গণপ্রজাতন্ত্রের এই বাংলাদেশকে ইসলামিক রাষ্ট্র ‍বানানো হয়েছিল ৭৫ এর পরে। কিন্তু জনগণের চাপে তা ধরে রাখতে পারেনি। জিয়াউর রহমান সংবিধান পরিবর্তন করে মানবতাবিরোধী রাজাকার আলবদরদের দেশে ফিরিয়ে আনে।

বঙ্গবন্ধুর নাম, স্বাধীন দেশকে পাকিস্তানের প্রদেশ বানানোর ষড়যন্ত্র করেন তিনি।

এ নির্মম হত্যাকাণ্ড কোনো ব্যক্তি বিশেষকে হত্যাকাণ্ড নয় বলে উল্লেখ করে প্রধানমন্ত্রী বলেন, দেশি-বিদেশি ষড়যন্ত্রকারী মহল এর মাধ্যমে বাঙালি জাতির বিজয় ও স্বাধীনতাকে নস্যাত করে দিতে চেয়েছিল। বাংলাদেশের মানুষকে তারা চিরদিন পদাবনত, পদদলিত করে রাখতে চেয়েছিল।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানকে হত্যার মাত্র ১৫ দিন আগে আমরা দেশ ছেড়ে গিয়েছিলাম। আমাদের দুর্ভাগ্যের যে আমরা সেদিন বাংলার মাটি ছেড়ে গিয়েছিলাম। এরপর এসেছি ১৯৮১ সালে । জিয়াউর রহমান আমাদের দুই বোনকে দেশে ফিরতে দেননি।

এসময় বেঈমানরা কখনো ক্ষমতায় থাকতে পারে না মন্তব্য করে তিনি বলেন, বেঈমানরা কখনো ক্ষমতায় থাকতে পারে না মীর জাফর পারেনি, জাতীয় বেঈমান খন্দকার মোশতাকও পারেনি। মাত্র ৩ মাসও তারা ক্ষমতায় থাকতে পারেনি।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, উপরে আল্লাহ ছাড়া আমি কারো কাছে মাথা নত করিনা। কাউকে ভয় পাই না। হারিয়েছি সব। পরিবারের আর কেউই বেঁচে নেই। আর কোনো কিছু হারাবার ভয় নেই আমার। তাই আমার জীবন আমি এদেশের মানুষের জন্য উৎসর্গ করেছি।

তিনি বলেন, আমি সুযোগ পেয়েছি এ দেশের মানুষের জন্য কিছু করার। এই সুযোগকে কাজে লাগিয়ে জাতির পিতার স্বপ্ন বাস্তবায়ন করতে চাই।

এসময় তিনি আবেগাপ্লুত কণ্ঠে বলেন, মরেও যাতে বাবাকে গিয়ে বলতে পারি যে মানুষকে আপনি এতো ভালোবেসেছিলেন, সেই মানুষের জন্য কিছু একটা করে আসতে পেরে


আরোও সংবাদ