‘জাহানারা ইমাম’ একটি আন্দোলনের নাম

নিউজচিটাগাং২৪/ এক্স প্রকাশ:| মঙ্গলবার, ২৬ জুন , ২০১৮ সময় ১১:০৯ অপরাহ্ণ

শহীদ জননী জাহানারা ইমামের মৃত্যুবার্ষিকীতে প্রমা আবৃত্তি সংগঠনের আয়োজনে শ্রদ্ধার্ঘ্য অনুষ্ঠান চট্টগ্রাম কেন্দ্রীয় শহীদ মিনার প্রাঙ্গণে অনুষ্ঠিত হয়।

প্রমার সভাপতি রাশেদ হাসানের সভাপতিত্বে প্রধান আলোচক ছিলেন প্রিমিয়ার বিশ্ববিদ্যালয়ের উপচার্য, খ্যাতিমান সমাজবিজ্ঞানী প্রফেসর ড. অনুপম সেন। আলোচনা করেন মুক্তিযোদ্ধা-সাংবাদিক রইসুল হক বাহার। বক্তব্য দেন সাংস্কৃতিক সংগঠক শীলা দাশগুপ্তা, গণজাগরণ মঞ্চের সংগঠক শরীফ চৌহান ও প্রমার সাধারণ সম্পাদক বিশ্বজিৎ পাল।

শুরুতে প্রমার আয়োজনে শহীদ মিনার থেকে শোকমিছিল বের হয়। মিছিলটি শহরের গুরুত্বপূর্ণ সড়ক প্রদক্ষিণ করে পুনরায় শহীদ মিনার এসে শেষ হয়।

প্রফেসর ড. অনুপম সেন বলেন, শহীদ জননী জাহানারা ইমাম একটি আন্দোলনের নাম। স্বাধীনতার পরে দেশের মানুষ যখন রাজাকারদের অত্যচার ও দুঃসহ কার্যকলাপকে ভুলতে বসেছিল জাহানারা ইমাম সব ভয়ভীতি উপেক্ষা করে নতুন করে গণআদালত গঠনের মাধ্যমে রাজাকারের বিচারের কাজ শুরু করেন। একাত্তরের পর জাহানারা ইমাম বাঙালি জাতিকে জাগিয়ে তুলেছেন মুক্তিযুদ্ধের চেতনায়।

রইসুল হক বাহার বলেন, জাহানারা ইমাম নতুন প্রজন্মের কাছে মুক্তিযুদ্ধের চেতনাকে পুনরুজ্জীবিত করেছেন। তিনি রাজাকারের বিচারের দাবিতে জনগণকে সংঘবদ্ধ করেছিলেন।

রাশেদ হাসান বলেন, জাতির যেকোনো ক্রান্তিলগ্নে জাহানারা ইমাম সবসময় আলোর মশাল হাতে জাতিকে পথ দেখিয়েছেন। জাহানারা ইমামের গঠিত গণআদালতের মাধ্যমেই আজকের বাংলাদেশে শুরু হয়েছে যুদ্ধাপরাধীদের বিচারের প্রক্রিয়া। জাহানারা ইমামের আদর্শকে বুকে ধারণ করে প্রগতিশীল তরুণ সমাজ এ বাংলার মাটিতে যুদ্ধাপরাধীদের বিচারের প্রক্রিয়া সম্পন্ন করবে।

শহীদ জননীর জীবনী পাঠ করেন প্রমার সহ-সভাপতি জেরিন মিলি। নিবেদিত কবিতা আবৃত্তি করেন প্রমার সহ-সভাপতি কংকন দাশ, সদস্য মঞ্জুর মুন্না ও স্বরনন্দনের দীপ্ত চক্রবর্তী। সঞ্চালনা করেন প্রমার সদস্য নাজমুল আলীম সাদেকী সুমন।