জাহাজ ভাঙা শিল্পে সহায়তা দেবে জার্মান

প্রকাশ:| মঙ্গলবার, ২৩ জুন , ২০১৫ সময় ১১:৪০ অপরাহ্ণ

জাহাজ ভাঙা শিল্পে সহায়তা দেবে জার্মানবাংলাদেশের জাহাজ ভাঙা শিল্প বিকাশের ধারাবাহিক অগ্রগতি দেখতে এসে এই শিল্পের উন্নয়নে জার্মান সরকারের পক্ষ থেকে সব ধরণের সহায়তা অব্যাহত থাকবে বলে জানিয়েছেন জার্মান রাষ্ট্রদূত ড. থমাস প্রিনজ।

মঙ্গলবার বিকেলে সীতাকুন্ডের শীতলপুরে পিএইচপি শিপ ব্রেকিং এন্ড রিসাইক্লিং ইয়ার্ড পরিদর্শনকালে তিনি একথা জানান।

ড. থমাস প্রিনজ পিএইচপি শিপইয়ার্ডকে একটি মডেল আখ্যা দিয়ে বলেন, ‘আমার দেখা শিপ ইয়ার্ডগুলোর মধ্যে এটাই সম্ভবত সবচেয়ে ভালো অবস্থায় রয়েছে। এই ইয়ার্ডের সার্বিক পরিবেশ অত্যন্ত প্রশংসনীয়। এ ইয়ার্ডের মতো করে যদি অন্য ইয়ার্ডগুলো গড়ে উঠে, তাহলে এই শিল্পের উপর নেতিবাচক যে মনোভাব উন্নত বিশ্বের রয়েছে, সে মনোভাবের অবশ্যই পরিবর্তন ঘটবে।’

জার্মান রাষ্ট্রদূত মঙ্গলবার বিকেল তিনটার দিকে পিএইচপি ইয়ার্ডে আসেন। সেখানে তাঁকে স্বাগত জানান পিএইচপি শিপ ব্রেকিং এন্ড রিসাইক্লিং ইয়ার্ডের ব্যবস্থাপনা পরিচালক ও শীপ ব্রেকার্স এসেসিয়েশনের বৈদেশিক বিষয়ক সম্পাদক মো. জহিরুল ইসলাম রিংকু।

এসময় রাষ্ট্রদূতের সাথে উপস্থিত ছিলেন জার্মান এম্বাসীর হেড অব ডেভেলপমেন্ট কো-অপারেশন মিস্ রোজইতা এমেলস্, অন্যান্যদের মধ্যে ক্রিয়েটিভ কনসালটেন্ট ধরমেষ জানি ও ইয়ার্ডের নির্বাহী পরিচালক নূর মোহাম্মদ ফারুকউপস্থিত ছিলেন।

রাষ্ট্রদূত প্রায় একঘন্টা ধরে ইয়ার্ডের বিভিন্ন অংশ ঘুরে ঘুরে দেখেন। তিনি ইয়ার্ডের ভেতর স্থাপিত বিভিন্ন অবকাঠামো বিশেষ করে হাসপাতাল, শ্রমিকদের কর্মক্ষেত্রে দুর্ঘটনা এড়ানোর জন্য গৃহীত নিরাপত্তা ব্যবস্থা নিয়ে সন্তোষ প্রকাশ করেন।

ইতিপূর্বে এ বছর পিএইচপি শিপ ইয়ার্ডে ফ্রান্স, নেদারল্যান্ডস, মালয়েশিয়া, দক্ষিণ কোরিয়ার রাষ্ট্রদূত পরিদর্শন করেছেন। এছাড়া ইউরোপিয় ইউনিয়নের একটি শক্তিশালী প্রতিনিধিদল ইইউ পার্লামেন্ট সদস্যে জীন ল্যানবার্ড এর নেতৃত্বে এ ইয়ার্ড পরিদর্শন করেন।

এ প্রসঙ্গে পিএইচপি শিপ ব্রেকিং ইয়ার্ডের ব্যবস্থাপনা পরিচালক জহিরুল ইসলাম রিংকু বলেন, ‘শিপ ব্রেকিং ইয়ার্ডগুলো নিয়ে বহিঃর্বিশ্বে যে মনোভাব রয়েছে, আমরা তা পরিবর্তন করতে চাই। এ লক্ষ্যে আমরা কাজ শুরু করেছি। পশ্চিমা বিভিন্ন দেশের প্রতিনিধিদের এখানে আমন্ত্রন জানাচ্ছি। তারই অংশ হিসেবে বিভিন্ন দেশের রাষ্ট্রদূত এখানে আসছেন। তারা আমাদের ইয়ার্ডের সার্বিক পরিস্থিতি দেখে মুগ্ধ হয়েছেন। তেমনি জার্মান এম্বেসেডর আজ এ ইয়ার্ড পরিদর্শন করছেন।’

প্রসঙ্গত, আশির দশক থেকে বিকাশ হওয়া জাহাজ ভাঙা শিল্পের প্রসারে ইতিমধ্যে এগিয়ে এসেছে হল্যান্ড সরকার। দুষন কমানো এবং বর্জ্য ব্যবস্থাপনা আরও উন্নত করতে নেদারল্যান্ডস সরকারের আর্থিক সহায়তায় শ্রমিকদের উন্নত প্রশিক্ষণ দেওয়ার লক্ষ্যে বাংলাদেশ শিপ ব্রেকার্স এসোসিয়েশনের (বিএসবিএ) সঙ্গে ভারতভিত্তিক প্রতিষ্ঠান ক্রিয়েটিভ কনসালটেন্ট’র মধ্যে একটি দ্বিপাক্ষিক চুক্তিও স্বাক্ষর করেছে।


আরোও সংবাদ