জাতীয় সংলাপের আহবান

প্রকাশ:| সোমবার, ২৩ মার্চ , ২০১৫ সময় ১১:১৭ অপরাহ্ণ

প্রাক্তন ছাত্রলীগ ফাউন্ডেশনের আলোচনা সভায় বক্তারা অসহিষ্ণু, অস্থিরতা থেকে দেশ ও জাতিকে মুক্তি দেয়ার জন্য জাতীয় সংলাপের আহবান জানিয়েছেন। ২৩শে মার্চ পতাকা দিবস উপলক্ষে আয়োজিত আলোচনা সভায় এ আহবান জানান তারা। রাজধানীর ডিপ্লোমা ইঞ্জিনিয়ার্স ইনষ্টিটিউশন মিলনায়তনে এ আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়। এতে সভাপতিত্ব করেন প্রাক্তন ছাত্রলীগ ফাউন্ডেশনের আহবায়ক ও সাবেক ছাত্রলীগ নেতা নূরে আলম সিদ্দিকী। বক্তব্যে তিনি বলেন, জনগণতো বটেই দুই জোটের কোন নেতাকর্মীই আজ শঙ্কামুক্ত নন। ক্ষমতাসীন শীর্ষ নেত্রী জনগণের কাছে দায়বদ্ধ। তাই এই অসিহষ্ণু, অস্থিরতা এবং অনিশ্চয়তা থেকে দেশ ও জাতিকে মুক্তি দেয়ার জন্য স্ব-উদ্যোগে তিনি একটি জাতীয় সংলাপের আহবান করবেন বলে আমি বিশ্বাস করি। দেশের দুই প্রধান রাজনৈতিক দলের দুই শীর্ষ নেত্রীর সমালোচনা করে তিনি জাতীয় সংলাপের আহবানবলেন, আজকে একজনের দম্ভ ও অন্যজনের জেদ এই স্বাধীনতার মাসকে মানুষের কাছে আতঙ্ক, উদ্বেগ ও উৎকণ্ঠার একটি অসহিষ্ণু মাসে পরিণত করেছেন। তবে আশার কথা বরফ গলা শুরু হয়েছে। আল্লাহপাক বাংলাদেশকে আফগানিস্তান, পাকিস্তান বানাবেন না।
আলোচনা সভার প্রধান বক্তা খালেদ মোহাম্মদ আলী ২৩শে মার্চের তাৎপর্য উল্লেখ করে বিএনপির বর্তমান আন্দোলনের সমালোচনা করেন।
মোস্তফা মহসিন মন্টু বলেন, দেশ ধ্বংসের দিকে যাচ্ছে। এমতাবস্থায় দুই প্রধান রাজনৈতিক দলকে সংলাপের আহবান জানাই। ফিলিস্থিন ও ইসরাইলের মধ্যেও সংলাপ হয়। তিনি বলেন, এখন রাষ্ট্রীয় ক্ষমতায় আমলা ও ব্যবসায়ীদের আনা হচ্ছে। সাবেক ছাত্র নেতাদের আনা হচ্ছে না। এটি দু:খজনক।
২৩শে মার্চ পতাকা দিবস উদযাপন কমিটির আহবায়ক এজাজ আহমেদ মুক্তা বলেন, মুক্তিযুদ্ধের সময় পাকিস্তানী সেনারা মানুষ পুড়িয়ে হত্যা করেছিল। নীল নক্সা বাস্তবায়নের জন্য এখন আবার মানুষ পুড়িয়ে হত্যা করা হচ্ছে। এ হত্যাকান্ড বন্ধ করতে হবে। আলোচনা সভায় আরও বক্তব্য রাখেন আবুল কাশেম, আবুল হাসান চৌধুরী প্রমুখ।