জাতীয় দলে ফেরার স্বপ্ন এবং ইচ্ছা কোনোটাই বিসর্জন দেইনি -নাফিস ইকবাল

প্রকাশ:| শুক্রবার, ১৩ সেপ্টেম্বর , ২০১৩ সময় ১২:৫৩ পূর্বাহ্ণ

নাফিস ইকবাল২০০৬ সালের মার্চ থেকে বাংলাদেশ দলের বাইরে। কাল ব্রাদার্সের হয়ে প্রিমিয়ার লিগের প্রথম ম্যাচেই ১৫০ রানের ইনিংস খেলার পর নাফিস ইকবাল জানালেন, জাতীয় দলে ফেরার স্বপ্ন এবং ইচ্ছা কোনোটাই বিসর্জন দেননি তিনি

 দারুণভাবে শুরু করলেন প্রিমিয়ার লিগটা। এত ভালো আশা করেছিলেন?
নাফিস ইকবাল: সবারই ভালোভাবে শুরু করার স্বপ্ন থাকে। আমারও ছিল। তবে প্রথম ম্যাচেই ১৫০ করব, আশা করিনি। চট্টগ্রামে অনুশীলনের খুব ভালো সুযোগ-সুবিধা নেই। তার পরও আমি, আফতাব, নাজিমউদ্দিনসহ আরও কয়েকজন নিজেরা নিজেরা অনুশীলন করেছি। ঢাকায় এসেও অনুশীলনের জন্য বেশি সময় পাইনি। এ নিয়ে চিন্তিত ছিলাম খেলা শুরুর আগে।

 যখন সেঞ্চুরি করলেন বা ১৫০ ছুঁয়ে ফেললেন, কেমন লাগছিল?
নাফিস: আমি কিন্তু ১০০ করার পর হেলমেট খুলিনি। দেড় শ করার পরও খুলিনি। কারণ, আমাদের দলের অবস্থা তখন ভালো ছিল না। দলের অবস্থা ভালো থাকলে আমার সেলিব্রেশনটা আরও ভালো হতো।

 আহত হয়ে মাঠ ছাড়তে হলো কেন?
নাফিস: আমার রান যখন ১১০, তখনই মনে হচ্ছিল পুরো শরীর যেন ক্র্যাম্প করছে। প্রচণ্ড গরম ছিল। ফিল্ডাররাও দাঁড়িয়ে দাঁড়িয়ে ঘামছিল। একটা বলে ডাউন দ্য উইকেটে মারতে গিয়ে ক্র্যাম্প হলো। ইচ্ছা ছিল আরও ব্যাটিং করি। কিন্তু ফিজিও বলল, এর পরও খেললে সমস্যা বাড়তে পারে। সে জন্য উঠে আসি।

 এবারের প্রিমিয়ার লিগে বিশেষ কোনো লক্ষ্য কি আছে?

নাফিস: লক্ষ্য নির্ধারণ করিনি। তবে শুরুটা ভালো হওয়ার পর এখন এই ধারাবাহিকতা ধরে রাখতে চাই। আমি কঠোর পরিশ্রম করছি, সেটার পুরস্কারও পাচ্ছি।
 সাত বছর ধরে তো জাতীয় দলে সুযোগ পাচ্ছেন না। তার পরও এই কঠোর পরিশ্রমের অনুপ্রেরণা পান কোত্থেকে?
নাফিস: বছর দুয়েক আগে আমার স্ত্রী আমাকে একটা কথা বলেছিল। বলেছিল, ‘তুমি এখনো বয়সে তরুণ। কেন বড় কিছুর জন্য একটা শেষ চেষ্টা করে দেখছ না! কঠোর পরিশ্রম করো। পরিশ্রমটাকে অভ্যাসে পরিণত করো।’ সেই থেকে আমি ওর কথাটা অনুসরণ করে চলছি। এ ছাড়া লিগ শুরুর আগে আকরাম চাচাকে (প্রধান নির্বাচক আকরাম খান) বলেছিলাম, আমাকে একটা পরিকল্পনা দিন। তাঁর পরামর্শ আর মানসিক সমর্থন দারুণ কাজে দিয়েছে। আজকেও (গতকাল) তিনি বলেছেন, খারাপ খেলতে থাকলে কেউ তেমন কিছু আশা করে না। কিন্তু ভালো ব্যাটিং করা শুরু করলে সেটা ধরে রাখতে হয়। আমি এখন সে চেষ্টাই করব।
 জাতীয় দলে ফেরার স্বপ্ন দেখেন এখনো?
নাফিস: দেখেন, আমি কোনো চাপ নিতে চাচ্ছি না। হ্যাঁ, স্বপ্ন আছে। ইচ্ছাও আছে। বয়স মাত্র ২৮—কেন থাকবে না? আমি আগের তুলনায় অনেক ফিটও হয়েছি। ১১-১২ কেজি ওজন কমিয়েছি। আমি মনে করি, ফিটনেস থাকলে এবং পারফর্ম করে যেতে পারলে বয়স কোনো বাধা হবে না। মানুষ তো ৩৫-৩৬ বছর বয়স পর্যন্তও খেলে।
 বড় ভাইয়ের এমন ব্যাটিং দেখে তামিম ইকবালের প্রতিক্রিয়া কী?
নাফিস: খুশি। সত্যি বলতে কি, এই ইনিংসে ওরও অবদান আছে। কথা ছিল, আজ (গতকাল) আমি আর তামিম ওপেন করব। কিন্তু প্রাইম ব্যাংকের রানটা বেশি হয়ে যাওয়ায় তামিমই বলল আমাকে তিনে খেলতে। ও ইমতিয়াজকে নিয়ে ওপেন করবে। তামিমের যুক্তি ছিল, ওরা ভালো একটা শুরু করে দেবে। এরপর আমি লম্বা ইনিংস খেলে এগিয়ে নেব দলকে। আমাকে ও বারবার বলছিল, এক দিক থেকে লম্বা ইনিংস খেলার চেষ্টা করতে।সূত্র প্রথম আলো


আরোও সংবাদ