জমকালো সাজের সময় এখন নয়

প্রকাশ:| সোমবার, ২ জুন , ২০১৪ সময় ০৭:৫২ অপরাহ্ণ

হালকা সাজজমকালো সাজের সময় এখন নয়। আবার হালকা সাজ বলতে যে একদম সাদামাটা থাকতে হবে, এমনও নয়। সাজ এবং পোশাক, দু’দিক মিলিয়ে হালকা আর পরিপাটি সাজেই আপনি হয়ে উঠতে পারেন গর্জিয়াস। গরমের এ সময়টাতে এমন সাজপোশাকই আপনার জন্য স্বস্তিদায়ক আবার দেখতেও জমকালো। পরামর্শ দিয়েছেন রূপবিশেষজ্ঞ রাহিমা সুলতানা রিতা।

কেমন সাজ : প্রথমে মুখে সানস্ক্রিন মেখে পাউডার লাগিয়ে নিন। গরমে ফাউন্ডেশন ব্যবহার না করাই ত্বকের জন্য ভালো। তাই মুখে দাগ থাকলে সেটা কনসিলার দিয়ে ঢেকে উপরে ফেসপাউডার লাগিয়ে নিন। সবচেয়ে ভালো হয়ে যদি সানস্ক্রিনসমৃদ্ধ ফেসপাউডার ব্যবহার করতে পারেন। চোখের আই শ্যাডোলাইনার ওয়াটারবেজড ও ওয়াটারপ্রুফ হতে হবে। প্রথমেই আইশ্যাডো লাগান। এ শ্যাডো দুটো বা একাধিক রঙ বেস্নন্ড করে লাগাতে পারেন। তবে পোশাকের রঙের সঙ্গে ম্যাচ করে লাগানোই শ্রেয়। অনেকে আবার ম্যাচ না করেও লাগান। সেক্ষেত্রে শ্যাডো হবে হালকা। এবার ওয়াটরপ্রুফ লাইনার ও মাশকারা লাগাবেন।

গরমে প্লসি লিপস্টিক ব্যবহার করলে সেটা ছড়িয়ে যাওয়ার আশঙ্কা থাকে। তাই ম্যাট লিপস্টিক বেছে নিন। লিপস্টিক দেয়ার পর একটু পাউডার ছড়িয়ে নিন। এর ওপর আবার লিপস্টিক দিন। তাহলে দীর্ঘসময় ঠিক থাকবে লিপস্টিক। পোশাকে সবচেয়ে সি্নগ্ধ যে রঙটা আছে, সেই রঙের প্রাধান্যে মেকআপ করুন। চোখে ন্যাচারাল শ্যাডো দিয়ে বাইরের দিকে পোশাকের রঙের সঙ্গে মিলিয়ে হালকা ছোঁয়া দিতে পারেন। তবে যতই হালকা সাজের কথা বলা হোক, পার্টিতে যেতে হলে সাদামাটা সুতি শাড়ি তেমন মানানসই নয়। এজন্য মসলিন শাড়ি পরতে পারেন। আর জামদানি তো সব সময়ই দারুণ। অ্যান্ডি শাড়িও বেছে নিতে পারেন।

মসলিন শাড়ি দুই ধরনের হতে পারে। সুতার কাউন্ট বেশি হলে দোতারি আর কম হলে একতারি। একতারি শাড়িটা বেশ হালকা। এটা গরমে পরতে পারেন। এখন শাড়িতে স্ক্রিনপ্রিন্ট আর এমব্রয়ডারির কাজ বেশি দেখা যাচ্ছে। ছোট মোটিফই চলছে এখন, আর সরু পাড়। বস্নাউজের নকশায় এসেছে বৈচিত্র্য। লেসের ব্যবহারে বস্নাউজে ভিন্নতা আনা হচ্ছে। আর পেছনে দেখা যাচ্ছে নানা নকশা। ব্যাকলেস বস্নাউজও পরছেন অনেকে। আর বস্নাউজের হাতটা খাটো হলেই ভালো দেখাবে।

চুলের সাজ : চুল বাঁধার ধরন নির্ভর করবে গয়নার ওপর। কানে বড় শ্যান্ডেলিয়ার ধাঁচের দুল পরলে চুল খুলে দিন। আবার ছোট টপ পরলে টেনে বাঁধতে পারেন। একই কথা গলার গয়নার জন্যও। মনে রাখুন, প্রথমে পোশাক বাছুন, তারপর গয়না। এ দুটোর ওপর নির্ভর করবে সাজটা কেমন হবে। সবশেষে চুলের সাজ বেছে নিন। চুলটা টেনে খোঁপা করুন অথবা ওয়েট লুক করাতে পারেন।

হালকা গয়নায় : যাদের গন্তব্য অফিস তারা প্রতিদিনের জন্য গলায় পেনডেন্ট, ছোট চেইনের সঙ্গে লকেট, টেরাকোটার কাজের গয়না পরতে পারেন। শাড়ি, সালোয়ার-কামিজ, স্যুট-টাই যে কোনো ধরনের পোশাকের সঙ্গে সহজেই এসব গয়না মানিয়ে যায়। সঙ্গে হাতের আঙুলে দু-একটি আংটিও পরতে পারেন। তরুণীরা পায়ের সাজও বেশ পছন্দ করেন। পায়েল বেশি মানানসই স্কার্টের সঙ্গে। পুঁতি, রুপা ও পাথর বসানো পায়েলের চাহিদা বেশি। পা আকর্ষণীয় করতে চাইলে মেহেদি লাগিয়ে আংটি পরতে পারেন। কানে মুক্তার ছোট টপ বা হাতে একটি এক লহরের ব্রেসলেট পরলে স্বস্তি আসে, ফ্যাশনও হয়। গলায় এক লহরের মুক্তার মালা পরতে পারেন। সাদা, সবুজ, সোনালি ও গোলাপি রঙের মুক্তা সব রঙের পোশাকের সঙ্গে মানিয়ে যায়।

শিপন ও ক্রেপ শাড়ির সঙ্গে মুক্তার গয়না ভালো দেখায়। অনেকে রুপার গয়না পরতে পছন্দ করেন। স্বল্প উজ্জ্বল, ম্যাট ধরনের অঙ্ডিাইজ, সাধারণ রুপার গয়না হিসেবে এখন ব্যবহৃত হচ্ছে। গরমে হালকা ধরনের গয়না স্বস্তিদায়ক হবে। জিন্স-ফতুয়ার সঙ্গে ধাতু, মাটি, কড়ি এমনকি কাচের গয়নাও ভালো লাগে। এসব ছোট গয়না পরে যেতে পারেন যে কোনো অনুষ্ঠানে। সেক্ষেত্রে পোশাকটা একটু জমকালো হওয়া উচিত। চিকন পাড়ের রাজশাহী সিল্ক, এক রঙের শাড়ি ভালো লাগে ছোট গয়নার সঙ্গে। জরিপাড়, জামদানি শাড়ির সঙ্গে পরতে পারেন সোনারঙা ছোট গয়না।

রঙ বাছাই : পোশাকের ক্ষেত্রে কালো রঙটা এড়িয়ে চলুন। কারণ এ সময়ে রোদের তীব্রতা অনেক বেশি থাকে। আর কালো রঙের পোশাক সূর্যের তাপ বেশি শোষণ করে। যার ফলে এ রঙের পোশাক পরলে গরম বেশি লাগবে। যতটা সম্ভব হালকা রঙ যেমন পিংক, পার্পেল, আকাশি, হালকা সবুজ, হালকা অরেঞ্জ, ইয়েলো, ফিরোজা- এ ধরনের রঙ বেছে নিতে পারেন। হালকা আর পরিপাটি সাজে এ রঙগুলো চমৎকার মানিয়ে যাবে।


আরোও সংবাদ