জন হয়রানি রোধ করা হবে

প্রকাশ:| বুধবার, ১৯ জুলাই , ২০১৭ সময় ১০:২০ অপরাহ্ণ

টেকনাফ মডেল থানার ওপেন হাউজডে অনুষ্ঠানে জেলা পুলিশ সুপার

টেকনাফ প্রতিনিধি::: টেকনাফ মডেল থানার ওপেন হাউজ ডে অনুষ্ঠানে জেলা পুলিশ
সুপার ডঃ একেএম ইকবাল হোসেন বলেছেন, ইয়াবা চোরাচালানসহ যাবতীয় মাদক পাচার
দমনে সবাইকে এগিয়ে আসতে হবে। সাধারণ মানুষ পুলিশী হয়রানির শিকার হলে কঠোর
পদক্ষেপ নেওয়া হবে। ১৯ জুলাই বুধবার বিকাল সাড়ে ৪টায় টেকনাফ মডেল থানা
ভবনের হলরোমে অনুষ্ঠিত ওপেন হাউজ ডে অনুষ্ঠান ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা মোঃ
মাঈন উদ্দিনের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত হয়। এএসআই মহির খানের পরিচালনায় এতে
প্রধান অতিথি ছিলেন কক্সবাজার জেলা পুলিশ সুপার ডঃ একেএম ইকবাল হোসেন।
বিশেষ অতিথি ছিলেন এএসপি আফরোজুল হক টুটুল,(উখিয়া সার্কেল) চাইলাউ
মারমা,সাবেক এমপি ও টেকনাফ উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি আলহাজ্ব অধ্যাপক
মোহাম্মদ আলী,সাধারণ সম্পাদক আলহাজ্ব নুরুল বশর,টেকনাফ পৌর মেয়র হাজী
মোহাম্মদ ইসলাম। স্বাগত বক্তব্য রাখেন টেকনাফ মডেল থানার ওসি মোঃ মাঈন
উদ্দিন খান। অন্যান্যদের মধ্যে বক্তব্য রাখেন উখিয়া থানার ওসি আবুল
খায়ের,টেকনাফ উপজেলা কমিউনিটি পুলিশিং সভাপতি আলহাজ্ব নুরুল হুদা,সাধারণ
সম্পাদক আবুল কালাম আজাদ,হ্নীলা ইউপি চেয়ারম্যান এইচকে
আনোয়ার(সিআইপি),টেকনাফ সদর ইউপি চেয়ারম্যান মুহাম্মদ শাহজাহান
মিয়া,সাবরাং ইউপি চেয়ারম্যান নুর হোসেন, উপজেলা ছাত্রলীগের সভাপতি মোঃ
সোলতান মাহমুদ, সাংবাদিক মোঃ আশেক উল্লাহ ফারুকী, কাইছার পারভেজ চৌধুরী,
ফরিদ আহমদ, জহিরুল চৌদুরী, জসিম উদ্দীন।। প্রধান অতিথি ববলেন, সম্প্রতি
এই টেকনাফ সীমান্তে ইয়াবাসহ যাবতীয় মাদক শুরু আইন-শৃংখলা পরিস্থিতির চরম
অবনতি ঘটাচ্ছে। যা জাতির প্রাণশক্তি যুব ও ছাত্র সমাজকে ধ্বংস করে
দিচ্ছে। আগামী প্রজন্মকে রক্ষায় সরকার জিরো টলারেন্স নীতি ঘোষণা করেছেন।
এই ব্যাপারে কোন আপোষ নেই। আর এই মাদক বিরোধী অভিযান পরিচালনা করতে গিয়েই
আইন প্রয়োগকারী সংস্থার সদস্যরা অনিয়ম-দূর্নীতির আশ্রয় নিলে কাউকে রেহাই
দেওয়া হবেনা। পোষাক পরিধান করে অভিযান চালাতে হবে। ডিবি সদস্যদের থানা
পুলিশকে অবহিত করে পরিচয়পত্র সাথে নিয়ে অভিযান পরিচালনা করতে হবে। এসব
অপরাধ দমনে থানা পুলিশকে তথ্য ও সহায়তা দিয়ে সবাইকে আন্তরিকতার সাথে
এগিয়ে আসতে হবে। সন্ধা ৭ টা পর্যন্ত সভা চলে।###টেকনাফে জাতীয় মৎস্য
সপ্তাহের দ্বিতীয় দিন ঃ র‌্যালী ও আলোচনা সভা এবং পোনা অবমুক্তকরণ

টেকনাফে জাতীয় মৎস্য সপ্তাহের দ্বিতীয় দিন অতিবাহিত হয়েছে র‌্যালী ও
আলোচনা সভার মাধ্যমে। এরপর পুকুরে মাছের পোনা অবমুক্ত করা হয়। জানা
যায়,১৯ জুলাই সকালে “মাছ চাষে গড়ব দেশ;বদলে দেব বাংলাদেশ” শ্লোগানে এক
র‌্যালী উপজেলা পরিষদ হতে শুরু হয়ে পৌর এলাকার বিভিন্ন সড়ক প্রদক্ষিণ
শেষে উপজেলা অডিটরিয়াম মিলনায়তনে এসে এক আলোচনা সভায় মিলিত হয়। উপজেলা
সিনিয়র উপজেলা মৎস্য কর্মকর্তা মোঃ ইমরান হোসেন চৌধুরীর সভাপতিত্বে
অনুষ্ঠিত সভায় প্রধান অতিথি ছিলেন উপজেলা নির্বাহী অফিসার জাহিদ হোসেন
ছিদ্দিক। মৎস্য অধিদপ্তরের শহিদুল আলমের পরিচালনায় এতে বক্তব্য রাখেন
প্রদর্শনী চিংড়ী খামার ও প্রশিক্ষণ কেন্দ্রের ইনচার্জ দীপক পাল,উপজেলা
সমবায় কর্মকর্তা শামসুল আলম কুতুবী,মহিলা বিষয়ক কর্মকর্তা আলম গীর
কবীর,উপজেলা কৃষি সম্প্রসারণ কর্মকর্তা মনোয়ার হোসেন,জেলে প্রতিনিধি
আব্দুস সালাম,মোঃ ইব্রাহীম,শ্রেষ্ঠ মৎস্য চাষী জালাল উদ্দিন আহমদ,শ্রেষ্ঠ
চিংড়ী খামারী সিরাজুল ইসলাম প্রমুখ। এসময় উপস্থিত ছিলেন মৎস্য চাষী,জেলে
প্রতিনিধি,জনপ্রতিনিধি,রাজনৈতিক ও প্রশাসনিক ব্যক্তিবর্গ উপস্থিত ছিলেন।
সভা শেষে উপজেলা পরিষদ পুকুরে রুই ও কাতাল মাছের পোনা অবমুক্ত করা হয়।