জনশক্তি নিয়োগ ও বিনিয়োগের জন্য আমিরাতের প্রতি তারেকের আহ্বান

প্রকাশ:| বৃহস্পতিবার, ১৬ অক্টোবর , ২০১৪ সময় ০৮:১৩ অপরাহ্ণ

বাংলাদেশী নাগরিকদের ভিসা সমস্যা সমাধান, শ্রমবাজারে আরও বেশী বাংলাদেশী জনশক্তি নিয়োগ ও বাংলাদেশে আরও বিনিয়োগের জন্য আমিরাত সরকারের প্রতি আহ্বান জানিয়েছেন বিএনপির সিনিয়র ভাইস চেয়ারম্যান তারেক রহমান। আমিরাতের বৈদেশিক মন্ত্রণালয়ের রাজনৈতিক বিষয়ক সহকারী পররাষ্ট্রমন্ত্রী আহমেদ আব্দুল রহমান আল জারমানের কাছে পাঠানো এক চিঠিতে তারেক রহমান এই আহ্বান জানান। বিএনপি চেয়ারপার্সন বেগম খালেদা জিয়ার মধ্যপ্রাচ্য বিষয়ক দূত এনামুল হক চৌধুরী বৃহস্পতিবার সকাল ১০ টায় বাংলাদেশে নিযুক্ত আরব আমিরাতের রাষ্ট্রদূতের কাছে এই চিঠি হস্তান্তর করেন। লন্ডনে তারেক রহমানের বিশেষ উপদেষ্টা হুমায়ুন কবির মানবজমিনকে এই তথ্য নিশ্চিত করেছেন। তারেক রহমানের ঘনিষ্ট সূত্র জানায়, মধ্যপ্রাচ্যে বাংলাদেশী শ্রমিকদের সুযোগ সুবিধা নিশ্চিত করার জন্য তিনি দীর্ঘদিন ধরে চেষ্টা করে আসছেন। যার ফলশ্রুতিতে তারেক রহমানের বিশেষ উপদেষ্টা হুমায়ুন কবির গত সেপ্টেম্বরে শেখ মোহাম্মদ বিন রাশিদ আল মাকতুমের সঙ্গে লন্ডনে সাক্ষাত করে বাংলাদেশী শ্রমিকদের স্বার্থসংশ্লিষ্ট বিষয় নিয়ে আলোচনা করেন। এই যোগাযোগের ধারাবাহিকতায় তারেক রহমান এক চিঠির মাধ্যমে বাংলাদেশের সঙ্গে আরব আমিরাতের বিদ্যমান সুসম্পর্ক আরও দৃঢ় করার অনুরোধ জানালেন। চিঠিতে বাংলাদেশের অর্থনৈতিক উন্নয়নে আরব আমিরাতের অসামান্য অবদানের কথা স্মরণ করেন তারেক রহমান। তিনি আরব আমিরাতের প্রেসিডেন্ট ও আবুধাবীর শাসক খলিফা বিন জায়েদ বিন সুলতান আল নাহিয়ান, আরব আমিরাতের ভাইস প্রেসিডেন্ট, প্রধানমন্ত্রী ও দুবাইয়ের শাসক শেখ মোহাম্মদ বিন রাশিদ আল মাকতুমের কাছে বাংলাদেশে অব্যাহত সহায়তা প্রদানের জন্য কৃতজ্ঞতা জানান। বাংলাদেশে বিনিয়োগের আহ্বান জানিয়ে চিঠিতে তারেক রহমান বলেন, বাংলাদেশ জাতীয়তাবাদী দল বাংলাদেশে আরব আমিরাতের বিনিয়োগকে সব সময় স্বাগত জানায় যা বাংলাদেশের অর্থনৈতিক বুনিয়াদকে আরও বেশী মজবুত করবে। ভবিষ্যতে বিএনপি সরকার আরব আমিরাতের সঙ্গে বৃহত্তর দ্বি-পাক্ষিক চুক্তির অঙ্গীকার মেনে চলবে বলে তিনি আশ্বাস দেন। তারেক রহমান এই চিঠির মাধ্যমে মধ্যপ্রাচ্যের মুসলিম দেশগুলোর সঙ্গে সম্পর্ক উন্নয়নের ব্যাপারে তার অঙ্গিকার পূর্ণব্যক্ত করেন। তিনি আশা প্রকাশ করেন যে আরব আমিরাতে বসবাসরত বাংলাদেশীদের যাবতীয় সমস্যা সমাধানে আমিরাত সরকার সর্বাত্মক সহযোগিতা করবে।