জনতার মুক্তির ইতিহাসে কিংবদন্তী হলেন বঙ্গবন্ধু

প্রকাশ:| বৃহস্পতিবার, ১৮ আগস্ট , ২০১৬ সময় ০৯:৩১ অপরাহ্ণ

মহানগর যুবলীগের শোক সভায় ড. অনুপম সেন

জনতার মুক্তির ইতিহাসে কিংবদন্তী হলেন বঙ্গবন্ধুপ্রধান অতিথির বক্তব্যে প্রিমিয়ার বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য ও বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের উপদেষ্টা ড. অনুপম সেন বলেন, আগষ্ট মাস বাঙালির কাজে ট্রাজেডির মাস, নির্মমতার মাস। এক বুক দু:খ ও কষ্ট নিয়ে প্রতিবছর এ মাসটি স্মরণ করা হয়। শুধু বাংলাদেশ নয় বরং বিশ্বের নানা প্রান্তে ছড়িয়ে-ছিটিয়ে থাকা প্রতিটি বাঙালি এ মাসকে শোকের মাস হিসেবে পালন করে। বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান ছিলেন সাধারণ মানুষের হৃদয়ের সম্রাট। অবিসংবাদিত এই নেতা বাঙালির শোষিত, বঞ্চিত ও নিপীড়িত-নির্যাতিত জনতার মুক্তির ইতিহাসে কিংবদন্তী। ৭৫ এর ১৫ আগষ্ট বঙ্গবন্ধু হত্যা মামলার বিচার হতে সময় লেগেছে ৩৪ বছর। রায় ও আংশিক কার্যকর হয়েছে এবং আইনের শাসন প্রতিষ্ঠিত হয়েছে। ড. অনুপম সেন বিদেশে বসবাসরত বঙ্গবন্ধুর হত্যাকারীদের দেশে ফিরিয়ে এনে বিচারের রায় কার্যকর করার দাবী জানান।
স্বাগত বক্তা হিসেবে চট্টগ্রাম মহানগর আওয়ামী লীগের সভাপতি ও সাবেক মেয়র আলহাজ্ব এ.বি.এম. মহিউদ্দিন চৌধুরী বলেন, ৭৫ এর ১৫ আগষ্টের পর হতে বাঙালি জাতি বিবেকের কাছে দায়বদ্ধ হয়ে অহর্নিশ যন্ত্রণার দহনে দগ্ধ হচ্ছে প্রতিনিয়ত। জাতি যখন ৭১ এর মতো ঐক্যবদ্ধ হয়েছিল তখন বিশ্ব এই নৃশংস হত্যাকান্ডের রায় কার্যকর দেখতে পেয়েছে। আর এই বিচারহীনতার সংস্কৃতি দূর হয়ে আইনের শাসন প্রতিষ্ঠা এমনি এমনি হয়নি বরং এর জন্য দীর্ঘ সংগ্রাম করতে হয়েছে বর্তমান প্রধানমন্ত্রী জননেত্রী শেখ হাসিনাকে। তিনি আরো বলেন, আইনের শাসন প্রতিষ্ঠার এই অগ্রযাত্রার ধারাবাহিকতা রক্ষার্থে তিনি জননেত্রী শেখ হাসিনার প্রতিটি পদক্ষেপের সাথে চট্টগ্রাম মহানগর যুবলীগকে সক্রিয় অংশগ্রহণের আহ্বান করেন।
বাঙালি জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানসহ তাঁর পরিবারের শাহাদাৎ বার্ষিকী ও জাতীয় শোক দিবস উপলক্ষে বাংলাদেশ আওয়ামী যুবলীগ চট্টগ্রাম মহানগর শাখার উদ্যোগে নগরীর মুসলিম ইনষ্টিটিউল হলে সংগঠনের আহ্বায়ক মোহাম্মদ মহিউদ্দিন বাচ্চু’র সভাপতিত্বে এবং যুগ্ম আহ্বায়ক মাহবুবুল হক সুমনের সঞ্চালনায় আয়োজিত শোকসভায় প্রধান অতিথি ছিলেন প্রিমিয়ার বিশ্ববিদ্যালয়’র উপাচার্য ও বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের উপদেষ্টা ড. অনুপম সেন। শোকসভায় শুভেচ্ছা বক্তব্য রাখেন বাংলাদেশ আওয়ামীলীগ চট্টগ্রাম মহানগর শাখার সভাপতি ও সাবেক মেয়র আলহাজ্ব এ.বি.এম. মহিউদ্দিন চৌধুরী। বিশেষ অতিথি ছিলেন চট্টগ্রাম মহানগর আওয়ামী লীগের যুগ্ম সম্পাদক আলহাজ্ব বদিউল আলম, বাংলাদেশ আওয়ামী যুবলীগের প্রেসিডিয়াম সদস্য সৈয়দ মাহমুদুল হক। শোকসভায় আরো বক্তব্য রাখেন চট্টগ্রাম মহানগর যুবলীগের যুগ্ম আহ্বায়ক দেলোয়ার হোসেন খোকা, মহানগর যুবলীগ সদস্য এড. আনোয়ার হোসেন আজাদ, হাফিজ উদ্দিন আনসারী, আকবর হোসেন, হাসান মুরাদ বিপ্লব, রেজাউল্লাহ খোকন, সাইফুল ইসলাম, একরাম হোসেন, সাখাওয়াত হোসেন স্বপন, রেজাউল করিম কায়সার, মাসুদ রেজা, আবু সাঈদ জন, হেলাল উদ্দিন, আবদুর রহিম, হাবিব উল্লাহ নাহিদ, নুরুল আনোয়ারা, শহীদুল ইসলাম শামীম, সালেহ আহমেদ ডিগল, আবদুর রাজ্জাক দুলাল, সাবের আহমেদ, আসহাব রসূল চৌধুরী জাহেদ, নাছের তালুকদার, আবদুল আজিম, সোহেল রানা, মঈনুল ইসলাম রাজু, খোকন চন্দ্র তাঁতি, ওয়াসিম উদ্দিন, নুরুল আলম মিয়া, নাজমুল হাসান সাইফুল, আবু বক্কর সিদ্দিক, আলমগীর আলম, আজিজ উদ্দিন চৌধুরী, ইকবাল ইকরাম শামীম, এস.এম. ফারুক, শাহেদুল ইসলাম শাহেদ, সরওয়ার খান, মোস্তাক আহমেদ টিপু, কফিল উদ্দিন, কাজল প্রিয় বড়–য়া, মুজিবুর রহমান মুজিব, ইসতিয়াক আহমেদ সাজিদ, তানভীর আহমেদ রিংকু, সাখাওয়াত হোসেন সাকু, শহীদুর রহমান শহীদ, খোরশেদ আলম রহমান, নঈম উদ্দিন খানসহ বিভিন্ন নেতৃবৃন্দ।
সভাপতির বক্তব্যে সংগঠনের আহ্বায়ক মোহাম্মদ মহিউদ্দিন বাচ্চু বলেন, স্বাধীন ও সার্বভৌম বাংলাদেশ গঠন করে ব্যক্তি, বাক ও সংবাদ পত্রের স্বাধীনতাসহ গণতন্ত্র নিশ্চিত করা এবং মানুষের জীবন-জীবিকার নিরাপত্তার নিশ্চয়তাই ছিল স্বাধীনতার মূল চেতনা। স্বাধীনতার মৌলভিত অসাম্প্রদায়িকতা, গণতান্ত্রিক চেতনা আর বাংলাদেশ গড়ার সকল কর্মকান্ডে প্রধানমন্ত্রী জননেত্রী শেখ হাসিনার পাশে থাকার দৃঢ় প্রত্যয় ব্যক্ত করেন।


আরোও সংবাদ