জনগণের উপর অযৌক্তিক ট্যাক্স’র চাপাবেন না

প্রকাশ:| শনিবার, ৭ জানুয়ারি , ২০১৭ সময় ০৯:২৫ অপরাহ্ণ

কেন্দ্রীয় বিএনপির সাবেক সাংগঠনিক সম্পাদক ও চট্টগ্রাম মহানগর বিএনপির সভাপতি ডা. শাহাদাত হোসেন বলেছেন, আমরা ট্যাক্স দিতে চাই, চট্টগ্রামের উন্নয়নও চাই, কিন্তু অযৌক্তিকভাবে জনগণের উপর ট্যাক্স’র বোঝা চাঁপিয়ে নয়, চট্টগ্রাম সিটি কর্পোরেশন একটি সেবাদানকারী প্রতিষ্ঠান হওয়া সত্ত্বেও জনগণের উপর হোল্ডিং ট্যাক্স আদায়ের নামে অতিরিক্ত কর চাপিয়ে দিয়ে মরার খারার ঘাঁ সৃষ্টি করেছে। কারণ নগরবাসীকে হোল্ডিং টেক্স’র পাশাপাশি বাড়ির মালিক হিসেবে ইনকাম টেক্স দিতে হচ্ছে, বাড়ী নির্মাণ করার জন্য যে লোন নিয়েছিল তা সুদ সহ পরিশোধ করতে হবে, আর ঘর ভাড়া থেকে গ্যাস বিল, বিদ্যুৎ বিল, পানির বিল দিতে হচ্ছে। এছাড়াও মেরামত ব্যয় তো আছেই। এসব কিছু চিন্তা না করে ইনকামের উপর কর পুনঃমূল্যায়ন না (অংংবংংসবহঃ) করে বাড়ীতে বাড়ীতে গিয়ে কর্পোরেশনের কর্মকর্তারা বাড়ী পরিমাপ করে বাড়ীর মালিকের হাতে অযৌক্তিকভাবে ট্যাক্স প্রদানের রশিদ ধরিয়ে দিচ্ছে। যা সম্পূর্ণভাবে অযৌক্তিক ও অমানবিক। ডা. শাহাদাত হোসেন মেয়র আলহাজ্ব আ.জ.ম. নাছির উদ্দিনের উদ্দেশ্যে বলেন, আপনি মেয়র নির্বাচনের আগে বলেছিলেন আমি আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক, আমি নির্বাচিত হতে পারলে চট্টগ্রামের উন্নয়নের ছয়লাব হয়ে যাবে। কিন্তু আপনি নিজেই স্বীকার করেছেন আমি পর্যাপ্ত পরিমাণ বাজেট পাচ্ছি না। যদি তাই হয় আপনি নগরবাসীর উপর মরার উপর খড়ার ঘাঁ, হোল্ডিং ট্যাক্স বৃদ্ধি না করে চট্টগ্রামের উন্নয়নে সকলকে ঐক্যবদ্ধ করে রাস্তায় নামুন। আমরাও দল মত নির্বিশেষে চট্টগ্রামের উন্নয়নের স্বার্থে আপনার সাথে থাকব। ডা. শাহাদাত আরও বলেন, দেশ আজ ক্রান্তিকাল অতিক্রম করছে, দেশের মানুষের বাক স্বাধীনতা ও গণতান্ত্রিক অধিকার আজ নির্বাসিত। সরকার বিএনপির জনপ্রিয়তায় ভয় পায়। তাই আজকে ৫ জানুয়ারি কালো দিবসের পূর্ব নির্ধারিত সরওয়ার্দ্দী উদ্যান ছাড়াও নয়াপল্টন বিএনপির দলীয় কার্যালয়ের সমাবেশ করতে দেয়নি। তিনি অদ্য ৭ জানুয়ারি সন্ধ্যা ৭ ঘটিকার সময় স্থানীয় মেট্টোপোল কমিউনিটি সেন্টারে হোল্ডিং ট্যাক্স বৃদ্ধির প্রতিবাদে নগর বিএনপি আয়োজিত মহল্লা সর্দার ও সচেতন নাগরিকদের নিয়ে মতবিনিময় সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে উপরোক্ত বক্তব্য রাখেন।
চন্দনপুরা মহল্লা কমিটির সভাপতি সবুক্তগীন সিদ্দিকী মক্কি বলেন, আমরা অতীতেও হোর্ল্ডিং ট্যাক্স দিয়েছি কিন্তু এ বছরে যে হোল্ডিং ট্যাক্স আরোপ করা হয়েছে এটা সম্পূর্ণ অযৌক্তিক। আমরা এ হোল্ডিং ট্যাক্স’র উপর এসেসমেন্ট করে প্রকৃত হোন্ডিং ট্যাক্স নির্ধারণ করার জন্য অনুরোধ জানাচ্ছি।
এস.এম. সাইফুল আলমের সভাপতিত্বে অন্যান্যের মধ্যে মধ্যে বক্তব্য রাখেন, চন্দনপুরা মহল্লা কমিটির সভাপতি সবুক্তগীন ছিদ্দিকী মক্কি, শুলকবহর মহল্লা কমিটির সভাপতি মঞ্জুরুল আলম মঞ্জু, দক্ষিণ আগ্রাবাদ উন্নয়ন কমিটির সভাপতি মোঃ সেকান্দর, ধনীওয়ালা পাড়া সমাজ কল্যাণ পরিষদের সভাপতি মুহাম্মদ জাহেদ, এনায়েত বাজার মহল্লা কমিটির নুরুল হক সর্দার ও চকবাজার পুরানা উর্দু গলি মহল্লা কমিটির সাধারণ সম্পাদক এম এ হালিম বাবলু, বিএনপি নেতাদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন ইয়াছিন চৌধুরী লিটন, জাহাঙ্গীর আলম দুলাল, জয়নাল আবেদীন জিয়া, মনোয়ারা বেগম মনি, সামশুল আলম, ফাতেমা বাদশা, হাজী নবাব খান, জিয়া উদ্দিন জিয়া, আলী ইউসুপ, আলী আব্বাস খান, জাকির হোসেন, আখি সুলতানা, সাব্বির আহমেদ, তৌহিদুস সালাম নিশাদ, হাবিবুর রহমান চৌধুরী হাবিব প্রমুখ।


আরোও সংবাদ