‘জঙ্গি মুক্ত বাংলাদেশ গঠনে বঙ্গবন্ধুর আদর্শকে ধারণ করতে হবে’

প্রকাশ:| সোমবার, ১ আগস্ট , ২০১৬ সময় ১১:০৫ অপরাহ্ণ

জঙ্গি মুক্তজঙ্গিসহ দেশবিরোধী চক্রান্তকারীদের দাঁতভাঙা জবাব দিতে হবে বলে মন্তব্য করেছেন সিটি মেয়র ও নগর আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক আ জ ম নাছির উদ্দীন।

সোমবার (০১ আগস্ট) শহীদ মিনারে আমরা ক’জন মুজিব সেনা মহানগর শাখা আয়োজিত ‘আলোক পদযাত্রা’ শীর্ষক অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে মেয়র এ মন্তব্য করেন। শোকের মাস উপলক্ষে এ অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়।

বিএনপি-জামায়াতের দিকে ইংগিত করে মেয়র বলেন, বঙ্গবন্ধুকে যারা হত্যা করেছিল তারা চিহ্নিত। তারা আত্মস্বীকৃত খুনি। দীর্ঘদিন তারা আস্ফালন করেছিল। একটি রাজনৈতিক দল তাদের আশ্রয়-প্রশ্রয় দিয়েছিল। রাজনীতি করার সুযোগ করে দিয়েছিল। এ সুযোগে খুনিরা ঔদ্ধত্যপূর্ণ বক্তব্য দিয়েছিল।

তিনি বলেন, জীবিত মুজিবের চেয়ে মৃত মুজিব অনেক অনেক বেশি শক্তিশালী হবে বিষয়টি তারা আঁচ করতে পারেনি। তারা বঙ্গবন্ধুকে সপরিবারে খুন করে স্বাধীনতা যুদ্ধে পরাজয়ের প্রতিশোধ নিতে চেয়েছিল।

মেয়র বলেন, দেশের মানুষ মুক্তিযুদ্ধের চেতনায় উজ্জীবিত হয়ে বঙ্গবন্ধুর খুনি ও তাদের রাজনৈতিক আশ্রয়দাতাদের প্রত্যাখ্যান করেছে। তাদের কাছ থেকে জনগণ মুখ ফিরিয়ে নিয়েছে। তারপরও ইসলামকে রাজনৈতিক উদ্দেশ্যে ব্যবহারের চক্রান্ত অব্যাহত রেখেছে তারা। সূক্ষ্মভাবে তরুণদের বিপথগামী করে সন্ত্রাস ও জঙ্গিবাদের বীজ বপন করছে। কারণ তারা জানে জনগণের আস্থা আর অর্জন করতে পারবে না। তাই দিশেহারা হয়ে সন্ত্রাসের পথ বেছে নিয়েছে।

বিশেষ অতিথি আলকরণ ওয়ার্ডের কাউন্সিলর ও আমরা ক’জন মুজিব সেনার প্রধান উপদেষ্টা তারেক সোলেমান সেলিম বলেন, বাঙালির মৃত্যুঞ্জয়ী মহানায়ক হলেন বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান। তিনি বাংলাদেশকে স্বাধীন করেছেন আর তার কন্যা দেশরত্ব শেখ হাসিনা বাংলাদেশকে ক্ষুধা ও দারিদ্র্যমুক্ত উন্নত রাষ্ট্রে পরিণত করছেন।

বঙ্গবন্ধুকে হত্যার মধ্যদিয়ে দেশে মিথ্যার রাজনীতি শুরু হয়েছিল উল্লেখ করে তিনি বলেন, শেখ হাসিনার নেতৃত্বে ঐক্যবদ্ধ থেকে সন্ত্রাস ও জঙ্গিবাদমুক্ত বাংলাদেশ গড়ার কাজে মুজিব সেনাকে অগ্রণী ভূমিকা রাখতে হবে। আইএস, জঙ্গিদের ভয়কে জয় করতে হবে।

কাউন্সিলর হাসান মুরাদ বিপ্লব বলেন, কারা মোসাদ কানেকশনে যুক্ত, কারা হেফাজতকে লেলিয়ে দিয়ে সরকার উচ্ছেদের ষড়যন্ত্র করেছিল সবই জনগণ জানেন। বিপথগামী তরুণদের উদ্দেশে বলবো, জঙ্গিবাদী চিন্তাধারা থেকে ফিরে আসুন। স্বদেশ বাঁচান। লক্ষ করে দেখুন উন্নত দেশগুলোতেও জঙ্গি হামলা হয়েছে কিন্তু কেউ মুখ ফিরিয়ে নেয়নি। আমাদের ইনভেস্টররা মুখ ফিরিয়ে নিচ্ছে।

সংগঠন সভাপতি সরফরাজ নেওয়াজ খান রবিনের সভাপতিত্বে এবং সাধারণ সম্পাদক মোহাম্মদ বোখারী আজমের সঞ্চালনায় আলোক পদযাত্রা পূর্ববর্তী সমাবেশে বক্তব্য দেন আমরা ক’জন মুজিব সেনা চট্টগ্রাম জেলার সাধারণ সম্পাদক আব্দুল হান্নান চৌধুরী, সাংগঠনিক সম্পাদক হুমায়ন কবির রুকন, সাবেক ছাত্রনেতা চৌধুরী জহির উদ্দীন মোহাম্মদ বাবর, রোটারিয়ান আবু হাসনাত চৌধুরী, সাবেক ছাত্রনেতা সাহাব উদ্দীন সজিব, মনছুর আলী চৌধুরী, নাজমুল আলম খান, নগর স্বেচ্ছাসেবক লীগ নেতা এনামুল হক, আব্দুল মতিন, কেন্দ্রীয় ছাত্রলীগের সাবেক সহ-সম্পাদক ইয়াছির আরাফাত, সিটি কলেজ ছাত্রলীগের সাবেক সভাপতি মো. শাহা আলম, সিটি কলেজ ছাত্র সংসদের ভিপি আবু তাহের, জিএস মারুফ আহম্মদ সিদ্দিকী, আলকরণ ওয়ার্ড ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক আব্বাস রানা, জিএস জাহিদুল হক মার্শাল, সিটি কলেজ ছাত্রলীগের সভাপতি মোহাম্মদ ইমতিয়াজ, সাধারণ সম্পাদক এম রাশেদ চৌধুরী, চট্টগ্রাম হকার্স লীগের সভাপতি ঋষি বিশ্বাস, রিয়াজউদ্দিন বাজার দোকান কর্মচারী সমিতির সাধারণ সম্পাদক এমএ জিন্নাহ, ফুটপাত হকার্স সমিতির সভাপতি নুরুল আলম লেদু, চট্টগ্রাম হকার্স লীগের সাধারণ সম্পাদক হারুনুর রশিদ রনি, ফুটপাত হকার্স সমিতির সাধারণ সম্পাদক মোহাম্মদ শফি, সংগঠনটির সাবেক সহসভাপতি মিঠু কুমার শীল, মিল্টন দাস, অ্যাডভোকেট রাজু শীল, নগর ছাত্রলীগের আইনবিষয়ক সম্পাদক অছিউর রহমান, সদস্য কায়ছার হামিদ, সংগঠনটির নগর শাখার সম্পাদক মণ্ডলীর সদস্য তানভিন তারেক, লিটন কুমার শীল, রবিউল হোসেন, আরিফুল হক ফরহাদ, আবু বক্কর, সদরঘাট থানা শাখার সভাপতি মিশু ঘোষ, সাধারণ সম্পাদক নাজমুল হক টিপু, সংগঠনের নগর নেতা মোহাম্মদ শাহজাহান, মোহাম্মদ ফারুক, শামসুল হক হিরা, আরশাদ হোসেন, মোহাম্মদ খালেকুজ্জামান, সীমান্ত কুমার নাথ, সঞ্জয় কুমার নাথ, ফজলে রাব্বি সুমন, মোহাম্মদ নিজাম উদ্দীন, আশাদুজ্জামান রনি, সংগঠনটির নগর নেতা মোহাম্মদ ছোটন, হালিশহর শাখার সাধারণ সম্পাদক মোহাম্মদ রুবেল, সাইফুল্লা সাইফ, কফিল উদ্দীন, মোহাম্মদ রিদুয়ান, মোহাম্মদ সাদ্দাম, সঞ্জয় দেবনাথ প্রমুখ।

সমাবেশ শেষে আলোক পদযাত্রাটি কেন্দ্রীয় শহীদ মিনার থেকে শুরু হয়ে আমতল, নিউমার্কেট মোড়, জিপিও চত্বর প্রদক্ষিণ করে কোতোয়ালি মোড়ে গিয়ে শেষ হয়। এর আগে সদরঘাট, কোতোয়ালি, কর্ণফুলী, হালিশহর ও চান্দগাঁও থানা শাখা থেকে আসা মিছিলে ভরে যায় শহীদ মিনার এলাকা।