ছালামকে ধন্যবাদ জানিয়ে মহানগর ছাত্রলীগ’র বিবৃতি

প্রকাশ:| বৃহস্পতিবার, ২ মার্চ , ২০১৭ সময় ০৯:৪৪ অপরাহ্ণ

প্রেস বিজ্ঞপ্তি: বাংলাদেশ ছাত্রলীগ চট্টগ্রাম মহানগরের ভর্তি বানিজ্য বিরোধী চলমান আন্দোলনের অংশ হিসাবে সিডিএ পাবলিক স্কুল এন্ড কলেজ চান্দগাঁও শাখার ভর্তি বানিজ্যের প্রায় ১ কোটি টাকা আগামীতে সমন্বয়ের মাধ্যমে ফেরত দেয়ার ঘোষনা দিয়েছে চট্টগ্রাম উন্নয়ন কতৃপক্ষের চেয়ারম্যান জনাব আব্দুস সালাম।
অত্র স্কুলের নোটিশ বোর্ডে আজ এ সংক্রান্ত এক বিজ্ঞপ্তিতে অতিরিক্ত অর্থ ফেরতের ঘোষনা প্রকাশিত হওয়ার পর বাংলাদেশ ছাত্রলীগ চট্টগ্রাম মহানগর সভাপতি ইমরান আহমেদ ইমু ও সাধারন সম্পাদক নূরুল আজিম রনি এক যৌথ বিবৃতিতে স্কুল পরিচালনা নির্বাহী কমিটির সভাপতি আব্দুস ছালামকে ধন্যবাদ জানিয়ে অত্র স্কুলের শিক্ষার্থীদের আগামীর সুন্দর শিক্ষা জীবন কামনা করেন।
এক যৌথ বিবৃতিতে এসময় নগর ছাত্রলীগের পক্ষ থেকে জানানো হয়, যেসকল এমপিও ভুক্ত, নন-এমপিও ভুক্ত এবং সেবা মূলত প্রতিষ্ঠান চসিক পরিচালিত স্কুলে সরকারের নিয়ম-নীতি তোয়াক্কা না করে শিক্ষা আইনকে বৃদ্ধাআঙ্গুলী দেখিয়েছেন তাদের বিরুদ্ধে সকলের প্রতিবাদ করা নৈতিক দায়িত্ব। সরকারী শিক্ষা নীতিমালার সকল সুযোগ ব্যবহার করে শিক্ষা প্রতিষ্ঠানকে বানিজ্যকায়নের মাধ্যমে শিক্ষাকে পণ্য বানানোর এই প্রক্রিয়া আর চলতে দেয়া যায়না। শিক্ষাকে সরকার সুষম বিন্যাসের মাধ্যমে স্বল্পমূল্যে শিক্ষাসেবা হিসাবে জনগনের মাঝে পৌছে দেয়ার মাধ্যমে যখন স্বশিক্ষিত ও নিরক্ষরমুক্ত জাতি গঠনের ঘোষনা দিয়েছে ঠিক সময় কোন কোন শিক্ষা প্রতিষ্ঠান নিজেদের আখের গোছানোর কাজে শিক্ষা প্রতিষ্ঠানকে ব্যবহার করেছে। অভিভাবকদের জিম্মি করে কয়েক দশক ধরে হাজার কোটি টাকা এই শিক্ষা বানিজ্যের সাথে জড়িত গৌষ্ঠি শিক্ষার্থীদের কাছ থেকে লুট করেছেন।
এসময় নগর ছাত্রলীগের এই দুই নেতা সরকারকে ইতিপূর্বে দেয়া চট্টগ্রাম মহানগর ছাত্রলীগের দশ দফা সুপারিশ বাস্তবায়ন করে অভিযুক্ত শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা গ্রহনের জোর দাবী জানান।সিডিএ পাবলিক স্কুলের সকল শিক্ষার্থী অভিভাবক ও নগরীর ক্যাব নেতাদেরকেও আন্দোলন বেগবান করায় কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করা হয়।
উল্লেখ্য বাংলাদেশ ছাত্রলীগ চট্টগ্রাম মহানগরের চলমান ভরিত বানিজ্য প্রতিরোধের আন্দোলনের সাথে একাত্মতা ঘোষনা করে দীর্ঘদিন অত্র শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের শিক্ষার্থী ও অভিভাবকরা না কর্মসূচী পালন করে আসছিল। চট্টগ্রামে ছাত্রলীগের আন্দোলনে সায় দিয়ে চট্টগ্রাম জেলা প্রশাসন অতিরিক্ত অর্থ আদায়ের অভিযোগে চট্টগ্রামের শতাধিক শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে নির্বাহী ম্যাজিষ্ট্রেটের নেতৃত্বে তদন্ত কমিটি অভিযানে পাঠান। কমিটির রিপোর্টের প্রেক্ষিতে চট্টগ্রা জেলা প্রশাসক বিগত ৮ ফেব্র“য়ারী নগরীর ৪৬ বেসরকারী স্কুল প্রধানকে তলব করে ২৩ ফেব্র“য়ারির মধ্যে আদায়কৃত অতিরিক্ত অর্থ ফেরত দেয়ার আল্টিমেটাম দেন। আল্টিমেটামের নির্ধারিত সময় অতিবাহিত হলেও সিংহভাগ স্কুলে তা মানা হয়নি। যার কারনে বিগত ২৫ ফেব্র“য়ারি অত্র সিডিএ পাবলিক স্কুল এন্ড কলেজে অধ্যায়নরত শিক্ষার্থী ও অভিভাবকরা ভর্তি বানিজ্য বন্ধ,অর্থ ফেরত ও প্রধান শিক্ষকের এ নিয়ে গাফিলতি আছে দাবী করে দিনব্যাপী ক্লাস বর্জন ও প্রতিবাদ সমাবেশ করেন।স্কুল শিক্ষার্থীদের ক্লাস বর্জনের খবরে চট্টগ্রাম মহানগর ছাত্রলীগ নেতৃবৃন্দ সেদিনের সমাবেশে একাত্মতা ঘোষনা করে শিক্ষার্থীদের ক্লাসে ফিরে যেতে অনুরোধ করার পর প্রধান শিক্ষকের সেচ্ছাচারিতার অভিযোগ খতিয়ে দেখে এবং সরকার নির্ধারিত ফি কার্যকর করার জন্য অতি: ভর্তি ফি ফেরতের যুক্তিক দাবী তুলে ধরে তা সমাধানের জন্য প্রতিষ্ঠান নির্বাহী কমিটির সভাপতি ও চউক চেয়ারম্যান আব্দুছ সালামের বিশেষ দৃষ্টি আকর্ষন করেছিলেন।
পরবর্তীতে আজ মার্চ ২ তারিখ রোজ বৃহস্পতিবার সিডিএ চেয়ারম্যান আব্দুস ছালামের নির্দেশনা পেয়ে শিক্ষা প্রতিষ্ঠানটিক নোটিশ বক্সে স্কুলের আদায়কৃত সকল অর্থ ফেরত দেয়ার বিষয়টি জানিয়ে দেয়া হয়।
নোটিশে আগামী ৬ মার্চ শিক্ষার্থীদের অভিভাবদের সাথে বৈঠক করে অর্থ ফেরতের সকল করনীয় শীর্ষক বৈঠকের কথা বলা হয়েছে।
উল্লেখ্য স্কুলটির অত্র শাখার নতুন পুরাতন সর্বমোট ১৭৭৮ জন শিক্ষার্থীর কাছ থেকে কোটি টাকা অতিরিক্ত ভর্তি ফি আদায়ের অভিযোগ ছিল সংশ্লিষ্ট সকলের কাছে।
অতি: অর্থ ফেরত পাওয়ার খবরে স্কুলের শিক্ষার্থী ও অভিভাবকদের চলমান আন্দোলন স্থগিত করা হয়েছে।
চট্টগ্রাম মহানগর ছাত্রলীগের পক্ষ থেকে ধন্যবাদ জানানো হয়েছে চউক চেয়ারম্যান আব্দুস ছালামকে।এছাড়াও দীর্ঘ সফল এই আন্দোলনে বরাবরের মতো একাত্মতা ঘোষনা করে সক্রিয় ভূমিকা রাখায় ক্যাব চট্টগ্রাম মহানগরের সকলকে কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করেন নগর ছাত্রলীগ।