ছাত্রলীগের শাস্তি চেয়েছে প্রগতিশীল ছাত্রজোট

নিউজচিটাগাং২৪/ এক্স প্রকাশ:| সোমবার, ২৯ জানুয়ারি , ২০১৮ সময় ০৭:৫৩ অপরাহ্ণ

শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে ধর্মঘটের সমর্থনে প্রগতিশীল ছাত্রজোটের মিছিল-সমাবেশ ও দলীয় কার্যালয়ে হামলাকারী ছাত্রলীগ নেতাকর্মীদের শাস্তি চেয়েছেন চট্টগ্রামের প্রগতিশীল ছাত্রজোটের নেতাকর্মীরা। হামলার সময় পুলিশের নীরব ভূমিকারও তদন্ত চেয়েছেন তারা।

সোমবার (২৯ জানুয়ারি) বিকেলে নগরীর নিউমার্কেট মোড়ে অবস্থিত দোস্ত বিল্ডিংয়ে সংবাদ সম্মেলন করে এই দাবি জানান তারা।

লিখিত বক্তব্যে প্রগতিশীল ছাত্রজোট নেত্রী তাজনাহার রিপন বলেন, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্রলীগের ছাত্র নিপীড়নের প্রতিবাদে ও চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ে হামলা, শিক্ষাঙ্গনে গণতান্ত্রিক পরিবেশ নিশ্চিত করতে কেন্দ্রীয় কর্মসূচি হিসেবে সোমবার ধর্মঘট আহ্বান করা হয়। কিন্তু অত্যন্ত এই শান্তিপূর্ণ সমাবেশে সরকারী সিটি কলেজের ছাত্রলীগের নেতাকর্মীরা দফায় দফায় হামলা চালায়। এতে সমাজতান্ত্রিক ছাত্রফ্রন্টের নগর সহ-সভাপতি মুক্তা ভর্ট্রাচার্য, মো.সায়েম, দীপা মজুমদার, মুশফিক উদ্দিন সায়েম আহত হন। এছাড়া ছাত্র ইউনিয়নের এ্যানি সেন ও রাজেশ্ব দাশগুপ্তকে মিউনিসিপ্যাল স্কুলে ধরে নিয়ে শিক্ষকের সামনে মারধর করে।

লিখিত বক্তব্যে তিনি আরও বলেন, এরপরও আমরা সমাবেশ চালিয়ে নিয়ে যায়। পরে দলীয় কার্যালয়ে এসে উপস্থিত হলে সিটি কলেজ থেকে একদল সন্ত্রাসী এসে দলীয় কার্যালয় লক্ষ্য করে ইটপাটকেল ছুঁড়ে। এমনকি কার্যালয়ে এসে ভাঙচুর চালায়। এতে ৩০-৪০জন নেতাকর্মী আহত হন। এছাড়া একই দিনে বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্রফ্রন্টের সাধারণ সম্পাদক আহসান হাবিবকেও তুলে নিয়ে ছাত্রলীগ মারধর করে।

সংবাদ সম্মেলনে এইসব ঘটনার তীব্র প্রতিবাদ জানিয়ে ছাত্রলীগের দৃষ্টান্তমীলক শাস্তি চান এবং হামলার প্রতিবাদে মঙ্গলবার (৩০ জানুয়ারি) বিকেলে চেরাগি পাহাড়ে এক প্রতিবাদ সমাবেশের ডাক দেন।

প্রগতিশীল ছাত্রজোটের পক্ষ থেকে এইসময় চার দফা দাবি পেশ করা হয়।

দাবিগুলো হল- অবিলম্বে ধর্মঘটে হুমকি,মারধর, দলীয় কার্যালয়ে হামলা ও পুলিশের নীরব ভূমিকার সুষ্ঠ তদন্তের বিচার করা, ঢাবি, চবিসহ সারাদেশে প্রগতিশীল ছাত্রজোটের নেতাকর্মীর উপর হামলা ও নির্যাতনের বিচার, চট্টগ্রামের বিভিন্ন শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে সন্ত্রাস-দখলদারিত্বের বন্ধ করা ও ডাকসু, চাকসুসহ সকল বিশ্ববিদ্যালয়ে ছাত্র সংসদ