ছাত্রমৈত্রীর প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী

প্রকাশ:| রবিবার, ৬ ডিসেম্বর , ২০১৫ সময় ১১:৩৭ অপরাহ্ণ

প্রপ্রতিষ্ঠাবার্ষিকীতে ফুল দিয়ে শ্রদ্ধা জানিয়ে বীর শহীদদের স্মরণ করেছে ছাত্রমৈত্রীর চট্টগ্রাম জেলা কমিটির নেতাকর্মীরা।  এসময় ছাত্র গণজমায়েত,  র‌্যালি, আলোচনা সভা, প্রাক্তন ও বর্তমান ছাত্রনেতাদের পুর্নমিলনীসহ বিভিন্ন কর্মসূচীও পালন করে সংগঠনটি।

ছাত্রমৈত্রীর ৩৫ বছর পূর্তি উপলক্ষে রোববার (৬ ডিসেম্বর) বিকেল ৩টা থেকে নগরীর শহীদ মিনার প্রাঙ্গণে জড়ো হতে থাকেন সংগঠনের বিভিন্ন পর্যায়ের নেতাকর্মীরা।  ছাত্র গণজমায়েতের পর নেতাকর্মীরা সম্মিলিতভাবে শহীদ বেদিতে পুষ্পস্তবক অর্পণ করেন।

সংগঠনের সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে জানানো হয়েছে, পুষ্পস্তবক অর্পণের পর শহীদ মিনার থেকে বর্ণাঢ্য র‌্যালি বের হয়।  র‌্যালিটি রিয়াজউদ্দিন বাজারের সামনে দিয়ে নিউমার্কেট হয়ে নগরীর বিভিন্ন গুরুত্বপূর্ণ সড়ক প্রদক্ষিণ করে দোস্ত বিল্ডিংয়ে সংগঠনের কার্যালয়ের সামনে এসে শেষ হয়।

সেখানে সংগঠনের প্রাক্তন ও বর্তমান ছাত্রনেতাদের পুর্নমিলনী এবং আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়।

জেলা ছাত্রমৈত্রীর সভাপতি ফারুক আহমেদ রুবেলের সভাপতিত্বে এবং সাধারণ সম্পাদক সম্পদ রায়ের সঞ্চালনায় সভায় অন্যান্যের মধ্যে বক্তব্য রাখেন সংগঠনের সাবেক নেতা শরীফ চৌহান, কায়সার আলম, নূরুন্নবী আরিফ, মো.মহসিন, শাহজাদা আবদুল্লাহ, আশীষ ভৌমিক, বর্তমান কমিটির সহ-সভাপতি দোলন পাল, শিবলি সাদিক, সাইফুদ্দিন সুজন ও সহ সাধারণ সম্পাদক সঞ্জয় দে।

সভায় বক্তারা বলেন, ১৯৮০ সালের ৬ ডিসেম্বর সাম্রাজ্যবাদ, সামরিক স্বৈরাচার এবং সাম্প্রদায়িক শক্তির বিরুদ্ধে বাংলাদেশের প্রগতিশীল বিভিন্ন ছাত্রসংগঠনের ঐক্যে গঠিত ছাত্রমৈত্রী যে লড়াই-সংগ্রাম শুরু করেছিল আজ ৩৫ বছর পরও সংগঠনটি সেই লড়াই-সংগ্রাম অব্যাহত রেখেছে।  যতদিন পর্যন্ত বাংলাদেশকে একটি অসাম্প্রদায়িক গণতান্ত্রিক রাষ্ট্র হিসেবে কায়েম করা যাবেনা ততদিন ছাত্রমৈত্রী ঐক্যবদ্ধভাবে লড়াই-সংগ্রাম চালাবে।

তারা বলেন, জামায়াত-শিবির, মৌলবাদ ও জঙ্গিবাদের বিরুদ্ধে ছাত্রমৈত্রী ৩৫ বছর আগে যে লড়াই সংগ্রাম শুরু করেছে বাংলার মাটি থেকে তারা উৎখাত না হওয়া পর্যন্ত সেই আন্দোলন অব্যাহত রাখবে এবং আরও বেগবান করবে।


আরোও সংবাদ