ছবি নয় সত্যি সুসং দুর্গাপুর

প্রকাশ:| রবিবার, ২১ জুন , ২০১৫ সময় ১১:৫২ অপরাহ্ণ

সুসং দুর্গাপুরনেত্রকোনা জেলার একটি উপজেলার নাম দূর্গাপূর। এই দুর্গাপুরে রয়েছে প্রকৃতির অপরূপ লীলাক্ষেত্র।গারো উপজাতি অধ্যুষিত এ স্থানটির নাম বিরিসিরি। মূল দূর্গাপুরে প্রবেশের কয়েক কিলোমিটার আগেই এ জায়গাটির দেখা মিলে। এখানেই রয়েছে উপজাতি কালচালারাল একাডেমী। এখানে রয়েছে সোমেশ্বরী নদী।যা আপনাকে প্রকৃতির কোলে শুইয়ে দিবে এক নিমিষেই।নদীর অপর পারে রয়েছে চিনামাটি,সাদা,গোলাপী,কমলাসহ নানা রঙের পাহাড়। সেই সাথে বিজয়পুর বিডিআর ক্যাম্প,

রানীক্ষং চার্চ, পুটিমারী মিশন আপনার নজর কাড়বে একথা নিশ্চিতভাবে বলা যায়।

কালচারাল একাডেমি আর উপজাতীয় যাদুঘর।

কীভাবে যাবেন?

বিরিসিরিতে যাওয়ার জন্য মহাখালী থেকে সরাসরি বাস পাওয়া যায়। সকাল সাড়ে ৭টায় বিরিসিরি উদ্দেশে প্রথম বাস ঢাকা ত্যাগ করে। তারপর প্রতি ৪৫ মিনিট অন্তর অন্তর একটা বাস ছেড়ে যায়।মাত্র ৪শ টাকা ভাড়ায় বিরিসিরি যেতে আপনার সময় লাগবে প্রায় ৫ ঘণ্টা।বাস যাবে বিরিসিরি বাজার পর্যন্ত ।

সুসং দুর্গাপুর1বিকল্প রুটে যেতে চাইলে আপনাকে প্রথমে ঢাকা থেকে ময়মনসিংহ যেতে হবে। এর পর ময়মনসিংহ থেকে মাইক্রোবাস ভাড়া নিয়েও দূর্গাপূর পারেন। এজন্য আপনাকে খুব সকাল সকাল রওনা দিতে হবে। আপনি যদি সকাল ৬টার দিকে ঢাকা থেকে রওনা হন তাহলে দূর্গাপূর পৌঁছাতে আপনার ৫ থেকে ৬ ঘণ্টা লাগবে।

শীতকালে এ যাত্রাটা সহজ হলেও বর্ষাকালে মে থেকে নভেম্বর একটু কষ্টসাধ্যই বটে।বাস যেখান পর্যন্ত যাবে সে স্থানটির নাম জারিয়া/জাইরার বাজার/ঝাঞ্ঝাইল/শুকনা খড়ি। বাস থেকে নেমে সেখানে সামান্য একটু হেটে কিংবা রিক্সায় গিয়ে আবার একটা ছোট্ট নদী (কংশ) ইঞ্জিন চালিত নৌকায় পার হতে হবে। নদী পার হয়ে ভাড়ায় চালিত মটরসাইকেলে চড়ে মাত্র ২০ মিনিটে আপনি বিরিসিরি কিম্বা দূর্গাপুর পৌঁছাতে পারেন।

থাকবেন কোথায়?

দু চার জনের ছোট গ্রুপ করে যেতে পারে। এতে আপনার খরচ অকেটা বাঁচাতে পারবেন।আর এর জন্য যেটা সবচেয়ে ভালো হবে স্বর্ণা রেস্ট হাউজ। বাস থেকে যেখানে নামবে সেখানেই এই রেস্ট হাউজটি।মাত্র ৫ থেকে ৮শ টাকার মত ভাড়াই মিলবে ডাবল বেডের একেটা কক্ষ।এছাড়া YWCA নামের আরেকটা রেস্ট হাউস রয়েছে। এ জায়গাটা বেশ ভালো।তবে এ রেস্ট হাউজের সামনে একটা সুন্দর বাগান রয়েছে। যাদিও এখানে কিছু ঝামেলায় আপনাকে পোহাতে হবে। এটা মূল রাস্তা থেকে বেশ খানিকটা ঝোপঝাড়ের ভিতর দিয়ে হেটে গিয়ে পৌঁছাতে হবে। যদি বড় দলবল নিয়ে যাওয়া হয়, তবে এটা ঠিক জায়গা। ।নৈসর্গের লীলাভূমি সুসং দুর্গাপুর

YMCA রেস্ট হাউজ অনেক পুরাতন। সেজন্য সুযোগ-সুবিধা অনেকটাই মান্ধাতা আমলের। এছাড়া উপজেলা ডাকবাংলোও আছে যেখানে সরকারী কেউ হলেই শুধুমাত্র থাকার সুবিধা পাবেন।

খাওয়া-দাওয়াঃ

নিরালা হোটেলটা বোধহয় সবচেয়ে প্রসিদ্ধ। তবে আরো কয়েকটা ছোটখাট হোটেল আছে। পরাটা আর ডিম এগুলো দিয়ে খাওয়ার কাজ সারাটাই বোধহয় বুদ্ধিমানের কাজ।


আরোও সংবাদ