চেক বইয়ের জন্য দশ বছর

প্রকাশ:| বুধবার, ১৫ অক্টোবর , ২০১৪ সময় ০৮:২৮ অপরাহ্ণ

শফিউল আলম, রাউজানঃ রাউজানের গহিরা জনতা ব্যাংকের এক গ্রাহক তার একউন্টের চেক বই হারিয়ে চেক বই পাওয়ার জন্য দশ বৎসর ধরে ধর্না চেক বইদিয়ে বেড়াচ্ছে । রাউজান উপজেলার নোয়াজিশ পুর এলাকার আমির মোহাম্মদ চৌধুরী বাড়ীর সোলায়মান অভিযোগ করেন রাউজানের গহিরা জনতা ব্যাংক শাখায় তার একটি একাউন্ট ছিল । এই একাউন্টে তার বেশ কিছু টাকা জমা রাখা হয়েছে বলে দাবী করেন রাউজান উপজেলার নোয়াজিশ পুর এলাকার সোলায়মান । গহিরা জনতা ব্যাংকের একউন্ট নম্বর ২১০৭ তার একাউন্ট নম্বও বলে জানান সোলাইমান । সোলায়মানের ব্যাংক একাউন্টের নামে চেক বই ও পাশ বই হারিয়ে গেলে গত ২০১০ সালের ৮ জুলাই সোলাইমান রাউজান থানায় জিডি করেন । জিডি নম্বর ৩৬৩, তারিখ, ০৮,০৭,২০১০ ইংরেজী । রাউজান থানার জিডি করার পর সোলাইমান রাউজানের গহিরা জনতা ব্যাংক শাখায় গিয়ে জিডির কাপি সংযৃক্ত করে চেক বই ও পাশ বই পাওয়ার জন্য লিখিতভাবে আবেদন করেন । লিখিত ভাবে আবেদন করার পর প্রতিনিয়ত রাউজানের গহিরা জনতা ব্যাংকে গিয়ে সোলাইমান তার একাউন্টের পাশ বই, চেক বই পাওয়ার জন্য গত দশ বৎসর ধরে ধর্না দিলে ও সোলাইমানের একাউন্টের চেক বই পায়নি । সোলাউমানের একাউন্টে কত টাকা জমা আছে তার হিসাব চাইলে তাকে তা ও বলছেনা ব্যাংক কতৃপক্ষ । ব্যাংকের ম্যানেজার সোলাইমনের নামে কোন একাউন্ট নেই বলে তাকে ব্যাংক থেকে ধাক্কা দিয়ে বের করে দিয়েছে বলে অভিযোগ করেন সোলাইমান । এ ব্যাপারে রাউজানের গহিরা জনতা ব্যাংকের ম্যানেজার সালাউদ্দিনের কাছে জানতে চাইলে তিনি বলেন, সোলাইমান নামে যে ব্যক্তি ব্যাংকে সিডি একাউন্ট নং ২১০৭ রয়েছে বলে দাবী করছেন তা মিথ্যা । রাউজানের গহিরা জনতা ব্যাংকের শাখায় এখনো সিডি একাউন্ট সাতশত পর্যন্ত হয়েছে । ২১০৭ নম্বর সিরিয়ালের এই সিডি একাউন্ট করার দাবী মিথ্যা বলে দাবী করে ব্যাংকের ম্যানেজার সালাউদ্দিন সেলায়মানকে পাগল বলে সে প্রতিনিয়ত ব্যাংকে এসে তার একাউন্ট রয়েছে দাবী হয়রানী করে আসছে ।