চুয়েটে বার্ষিক ক্রীড়া প্রতিযোগিতা ২০১৭ সম্পন্ন

প্রকাশ:| রবিবার, ১২ ফেব্রুয়ারি , ২০১৭ সময় ০৭:৩৬ অপরাহ্ণ

দ্রুততম মানব সালাউদ্দীন দ্রুততম মানবী নিশাকো
চুয়েটের ভেতরে-বাইরে যে কোন অবকাঠামোগত উন্নয়নে কাজ করে যাব-এ বি এম ফজলে করিম চৌধুরী এমপি
শফিউল আলম, রাউজানঃচট্টগ্রাম প্রকৌশল ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয় (চুয়েট)-এ বার্ষিক ক্রীড়া প্রতিযোগিতা ২০১৭ এর সমাপনী ও পুরস্কার বিতরণ অনুষ্ঠান ১২ ফেব্রুয়ারি,রবিবার বিকেলে অনুষ্ঠিত হয়েছে। কেন্দ্রিয় খেলার মাঠে অনুষ্ঠিত পুরস্কার বিতরণী অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি ছিলেন রেলপথ মন্ত্রণালয় সংক্রান্ত সংসদীয় স্থায়ী কমিটির মাননীয় চেয়ারম্যান এবং স্থানীয় সংসদ সদস্য (চট্টগ্রাম-৬, রাউজান) জনাব এ বি এম ফজলে করিম চৌধুরী। এতে বিশেষ অতিথি ছিলেন চুয়েটের মাননীয় ভাইস চ্যান্সেলর অধ্যাপক ড. মোহাম্মদ রফিকুল আলম। সভাপতিত্ব করেন চুয়েটের ছাত্রকল্যাণ পরিচালক অধ্যাপক ড. মোহাম্মদ মশিউল হক। স্বাগত বক্তব্য রাখেন উপ-ছাত্রকল্যাণ পরিচালক ড. জি.এম সাদিকুল ইসলাম।
প্রধান অতিথির বক্তব্যে জনাব এ বি এম ফজলে করিম চৌধুরী বলেন, চুয়েট বাংলাদেশের মধ্যে অন্যতম সুন্দর জায়গা। এ চুয়েটকে ঘিরে অনেক গুরুত্বপূর্ণ স্থাপনা গড়ে উঠছে। চুয়েটের ভেতরে-বাইরে যে কোন অবকাঠামোগত উন্নয়নে আমি পাশে থেকে কাজ করে যাব। তিনি আরো বলেন, হার-জিত বড় কথা নয়, প্রতিযোগিতায় অংশগ্রহনের মানসিকতায়ই বড়। এর মাধ্যমে সুন্দর সংস্কৃতি ও প্রতিভার বিকাশ হয়।
বার্ষিক ক্রীড়া প্রতিযোগিতায় দ্রুততম মানব হন মো: সালাউদ্দীন, দ্রুততম মানবী হন নিশাকো চাকমা। ছাত্রদের মধ্যে চ্যাম্পিয়ন তোজাম্মেল হক (সিএসই), রানার আপ নাসিমুল হক (এমআইই)। ছাত্রীদের মধ্যে চ্যাম্পিয়ন শাহানাজ (ইইই) ও রানার আপ তানজিলা আলম (সিএসই)। হলের মধ্যে চ্যাম্পিয়ন ড. কিউ.কে হল এবং রানার আপ শহীদ মো: শাহ হল। বিজয়ীদের হাতে পুরস্কার ও ট্রফি তুলে দেন অনুষ্ঠানের প্রধান অতিথি ) জনাব এ বি এম ফজলে করিম চৌধুরী এমপি। তিনি একইসঙ্গে ব্যক্তিগত তহবিল থেকে বিজয়ীদের জন্য ৯০ হাজার টাকা নগদ অর্থ পুরস্কার প্রদান করেন। এ সময় চুয়েটের বিপুল সংখ্যক শিক্ষক, শিক্ষর্থী, কর্মকর্তা, কর্মচারী এবং ছাত্র-ছাত্রী উপস্থিত ছিলেন।
অনুষ্ঠান সঞ্চালনায় ছিলেন পুরকৌশল বিভাগের সহকারী অধ্যাপক জনাব শ্যামল আচার্য্য, মানবিক বিভাগের প্রভাষক জনাবা নাহিদা সুলতানা এবং সিএসই বিভাগের প্রভাষক জনাবা ফারজানা ইয়াছমিন। বার্ষিক ক্রীড়ার সার্বিক তত্ত্বাবধানে ছিলেন ডেপুটি চীফ শারীরিক শিক্ষা কর্মকর্তা জনাব নির্মুল কুমার বড়–য়া এবং শারীরিক শিক্ষা কর্মকর্তা জনাব মো: জসীম উদ্দিন।