চুয়েটে ‘ইটিই ডে’ পালিত

প্রকাশ:| রবিবার, ১৫ জুন , ২০১৪ সময় ১১:১৬ অপরাহ্ণ

যে কোন উন্নয়ন-অগ্রগতিতে তথ্য-প্রযুক্তির ভূমিকা অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ-চুয়েট ভিসি প্রফেসর ড. মো: জাহাঙ্গীর আলমচুয়েটে ‘ইটিই ডে’ পালিত
শফিউল আলম, রাউজান চট্টগ্রাম প্রকৌশল ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয় (চুয়েট)-এর ভাইস চ্যান্সেলর প্রফেসর ড. মো. জাহাঙ্গীর আলম বলেছেন, বর্তমান যুগ তথ্য-প্রযুক্তির। যে কোন উন্নয়ন-অগ্রগতিতে তথ্য-প্রযুক্তি গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখছে। তিনি বলেন, চুয়েটের ইলেকট্রিনিক্স এন্ড টেলিকমিউনিকেশন ইঞ্জিনিয়ারিং (ইটিই) বিভাগ বিশ্বমানের তথ্য-যোগাযোগ প্রযুক্তিবিদ তৈরিতে নিরলস কাজ করে যাচ্ছে। স্বল্প সময়ের মধ্যে এ বিভাগ নানামুখী সাফল্য অর্জন করেছে। বিশ্বমানের ল্যাব ইক্যুইপমেন্ট সহযোগে অগ্রযাত্রা অব্যাহত রাখলে নবীন এ বিভাগের সাফল্য আরো ব্যাপক বিস্তৃতি পাবে বলে আমরা আশাবাদী।
তিনি গতকাল ১৫ জুন, রবিবার সকালে ইলেকট্রিনিক্স এন্ড টেলিকমিউনিকেশন ইঞ্জিনিয়ারিং (ইটিই) ডে উপলক্ষে আয়োজিত অনুষ্ঠানমালার উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে এসব কথা বলেন।
ইলেকট্রিনিক্স এন্ড টেলিকমিউনিকেশন ইঞ্জিনিয়ারিং (ইটিই) বিভাগের প্রধান ড. কাজী দেলোয়ার হোসেনের সভাপতিত্বে বিশ্ববিদ্যালয়ের পশ্চিম গ্যালারিতে আয়োজিত অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি ছিলেন চুয়েটের প্রো-ভাইস চ্যান্সেলর প্রফেসর মোহাম্মদ রফিকুল আলম, তড়িৎ ও কম্পিউটার কৌশল অনুষদের ডীন প্রফেসর ড. মুহম্মাদ ইব্রাহিম খান। রিসোর্স পারসন ছিলেন বাংলাদেশ টেলিকমিউনিকেশন্স কোম্পানী লি: এর ডিভিশনাল ইঞ্জিনিয়ার মো: মিজানুর রহমান।
অনুষ্ঠানে প্রো-ভাইস চ্যান্সেলর প্রফেসর মোহাম্মদ রফিকুল আলম বলেন, বর্তমান বিশ্বে সফল হতে হলে মান সম্পন্ন ডিগ্রি নিয়ে পাস করে বের হতে হবে। সার্বিক কার্যকলাপে মেধার প্রমাণ দিতে হবে। গড্ডালিকা প্রবাহে গা ভাসালে চলবে না। ভবিষ্যতের তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তিবিদগণকে এসব বিষয় মাথায় রাখতে হবে। চুয়েটের ইলেকট্রিনিক্স এন্ড টেলিকমিউনিকেশন ইঞ্জিনিয়ারিং (ইটিই) বিভাগ নবীনতর বিভাগ হলেও বিশ্বের চাহিদা মোতাবেক তথ্য-প্রযুক্তিবিদ তৈরি করতে সচেষ্ট বলে আমাদের বিশ্বাস।
প্রফেসর ড. মুহম্মাদ ইব্রাহিম খান বলেন, ইলেকট্রিনিক্স এন্ড টেলিকমিউনিকেশন বর্তমানে জীবনের একটা অঙ্গে পরিণত। এটি ছাড়া বর্তমান সভ্যতা অচল। নবীন প্রকৌশলীদেরকে ভালোভাবে এ বিষয়ে শিক্ষা-গবেষণা করে নিজেকে বিশ্ব চাহিদার জন্য প্রস্তুত করতে হবে।
প্রকৌশলী মো: মিজানুর রহমান বলেন, বর্তমান সরকার ডিজিটাল বাংলাদেশ গঠনে এগিয়ে যাচ্ছে। আর এর পেছনে মেরুদন্ড হলো তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি। চুয়েট থেকে পাস করা নবীন প্রকৌশলীরা দেশের টেলিকমিউনিকেশন সেক্টরে নেতৃত্ব দিতে পারবে বলে আমি মনে করি।