‘চামচামী করে ইন্ডিয়ার ভিসা পেতে আগ্রহী নই’

প্রকাশ:| সোমবার, ২৬ অক্টোবর , ২০১৫ সময় ১০:৩৫ অপরাহ্ণ

সংগীত শিল্পী হিসেবেই দেশজোড়া খ্যাতি আসিফ আকবরের। সংগীতে তাঁর উপস্থিতি বর্তমানে বলার মত না হলেও জনপ্রিয় সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকে বেশ সরব ‘ও প্রিয়া তুমি কোথায়’ তারকা। আমাদের ‘বন্ধু’ দেশ হিসেবে পরিচিত ভারতের প্রতি বরাবরই বিস্ফোরক আসিফ। সেই বিস্ফোরণ ছড়ান তিনি ফেসবুক স্টাটাসের মাধ্যমে। এর আগেও কয়েকবার ভারতকে নিয়ে ফেসবুকে বিষ ঝেড়েছেন আসিফ।

আজ দুপুরে আসিফের ফেসবুক ওয়াল পেজে ঢুকতেই চোখ আটকে গেল তেমনি একটা সাহসী স্টাটাসে। যার একটা লাইনে তিনি লিখেছেন ‘চামচামী করে ইন্ডিয়ার ভিসা পেতে আমি মোটেই আগ্রহী নই’।পাঠকদের জন্য আসিফের সেই স্টাটাসটা হুবহু তুলে দেয়া হল।“গত এগারো বছরে ভারত থেকে প্রচুর শো এসেছে আমার কাছে, আমি এজেন্টের মাধ্যমে জানিয়ে দিয়েছি,আমার ভিসা হবেনা। তবুও নাছোড়বান্দা ইন্ডিয়ান প্রমোটররা বলতেই থাকে ওখানে যেতেই হবে। এবার ভারত যাবার দাওয়াত এসেছে ঐতিহ্যবাহী ভেনাস রেকর্ডস থেকে, সঙ্গে ভারতীয় জনতা পার্টি (বিজেপি) এবং তৃণমূল কংগ্রেস থেকেও। রেকর্ডিংয়ের কাজে কলকাতা ও মুম্বাই যাওয়ার কথা। শক্তিশালী দাওয়াত পেয়ে শ্রী প্রীতমকে সঙ্গে করে গেলাম ভারতীয় হাই কমিশনে। উষ্ণ আতিথেয়তায় মুগ্ধ হলাম। প্রত্যেকেই আমাকে চমৎকার সম্মানের সাথে রিসিভ করেছেন।ভারতকে নিয়ে ফের বিস্ফোরক আসিফ২৫শে অক্টোবর ভিসা হওয়ার কথা, পাসপোর্ট ডেলিভারী নিতে যাবো। দুপুর নাগাদ নিশ্চিত হওয়া গেলো তারা আমাকে ভিসা দেয়নি। কারন জিজ্ঞেস করতেই বললো – টেকনিক্যাল কারনে ভিসা দেয়া সম্ভব নয় তাদের পক্ষে। হাইকমিশনের লোকেরা বদলীর চাকরী করে, পুরনো হিসেব তাদের জানার কথাও নয়, তারাও নিজেরাও আপসেট।আমি গর্বিত- একশো ত্রিশ কোটি মানুষের দেশ ভারত আমার মত একজন আসিফকে কাঊন্ট করে, এগারো বছরের পুরনো ক্ষততে এখনো মলম দেয়। টেকনিক্যাল কারনটা আমি জানি। হাইকমিশনের তৎকালীন ফার্ষ্ট সেক্রেটারী প্রয়াত দীপক রায় আমাকে প্রচন্ড স্নেহ করতেন। উনার কাছে আট দিন পাসপোর্ট জমা ছিলো, পরে ফেরত দিয়ে বললেন – তোমার ভিসা হবে না। ইনিয়ে বিনিয়ে চামচামী করে ইন্ডিয়ান ভিসা পেতে আমি মোটেও আগ্রহী নই।সুযোগ হয়েছে হিন্দীতে গান গাওয়ার। কলকাতা মুম্বাইয়ের শুভাকঙ্খীরা হতাশ হলেও আমি বলছি- আমি হিন্দীতে গাইবো, সঙ্গীতের কোন বাউন্ডারী নেই। অদৃশ্য বাউন্ডারী তৈরী করে আমাকে দাবিয়ে রাখা যাবেনা। আমার দেশে আপনাদের দাওয়াত রইলো, সঙ্গে উষ্ণ শুভকামনা । আমার বাংলাদেশের কথা আমি বলেই যাবো। ”২০০৪ সালে প্রথম অ্যালবাম ‘ও প্রিয়া তুমি কোথায়’ দিয়ে সংগীত জগতে খ্যাতির শিখরে ওঠে আসেন আসিফ। প্রথম অ্যালবামেই দেশের বাজারে সবচেয়ে বেশি ক্যাসেট বিক্রির রেকর্ড গড়েন তিনি। সেখান থেকেই এগিয়ে চলা। ফিরতে হয়নি পেছনে। কিন্তু বর্তমানে কোনো এক অদৃশ্য কারণে সংগীতে বেশ অনিয়মিত এই শিল্পী। মাঝে মাঝে দেখা যায় বিভিন্ন টিভি প্রোগ্রামে ও খেলার মাঠে। আর বিভিন্ন বিষয়ে প্রতিবাদ ও মনের আক্ষেপ প্রকাশের জন্য ঢু মারেন ফেসবুকে।