চান্দগাঁও এর সংবর্ধনা অনুষ্ঠানে সিটি মেয়র

প্রকাশ:| বুধবার, ২৭ মে , ২০১৫ সময় ০৯:৫৬ অপরাহ্ণ

সিটি কর্পোরেশনের মেয়র আলহাজ্ব আ.জ.ম নাছির উদ্দীন বলেছেন নগরীর সবগুলো খালের নকশা তৈরী করে প্রতিটি খাল সরেজমিনে পায়ে হেটে পরিদর্শন করবো। পরিদর্শনকালে আমার সাথে ম্যাজিষ্ট্রেট, প্রকৌশলী, রাজনৈতিক ব্যক্তিবর্গ, বিভিন্নশ্রেনী ও পেশার নাগরিক এবং স্থানীয় কাউন্সিলর থাকবে। খাল পরিদর্শনের সময় অবৈধ দখল উচ্ছেদ সহ খালের বাস্তব চিত্র নিরুপন করে খাল খনন করার কর্ম পরিকল্পনা গ্রহন ও বাস্তবায়ন করা হবে। মেয়র বলেন, বর্ষা অতি সন্নিকটে চলে আসায় খাল খনন কর্মসূচি বাস্তবায়নে কিছুটা সময়ের প্রয়োজন হবে। তিনি বলেন, যারা নালা-নর্দমায় ও খালে আবর্জনা ফেলে ভারাট করে স্বাভাবিক পানি চলাচলের প্রতিবন্ধকতা সৃষ্টি করছেন তাদেরকে সচেতন হওয়ার জন্য ৬ মাস ব্যাপী ক্যাম্পেইন করবো। নাগরিকদের সৃষ্টি বর্জ্য ও আবর্জনা নির্ধারিত ডাস্টবিনে ফেলতে সুযোগ দেব, ৬ মাস পর যার আঙ্গীনায়, ব্যবসা প্রতিষ্ঠানের সামনে, নালা-নর্দমায়, খালে-বিলে, যত্রতত্র আবর্জনা ফেলতে দেখলে সিটি কর্পোরেশনের বিধিবিধান মতে তাদেরকে শাস্তির আওতায় আনা হবে। সিটি মেয়র খালের দু’ধারে বসবাসরত নাগরিকদের খালে আবর্জনা ফেলা থেকে বিরত থাকার আহবান জানান। তিনি বলেন, মানবসৃষ্ট জলাবদ্ধতা নিরসন করা কোন কঠিন কাজ নয়। সিটি মেয়র নাছির উদ্দীন বলেন, অনিয়ম, দূনীতি, স্বজনপ্রীতি, আতœীয়করন, দলীয়করনের মত কোন কর্মকান্ড আমার দ্বারা সংগঠিত হবে না। চট্টগ্রাম সিটি কর্পোরেশনে কর্মরত কর্মকর্তা কর্মচারীদের দু’মাস সময় বেধে দিয়েছি। এ সময়ের মধ্যে সকলকে সংশোধন হতে হবে। বলেছি বেতনের বাহিরে অতিরিক্ত উপার্জনের লোভ-লালসা পরিহার করে সঠিকভাবে নির্ধারিত সময়ে স্ব স্ব দায়িত্ব ও কর্তব্য সম্পাদন করতে হবে। এর কোন ধরনের ব্যত্যয় হলে পরিনাম হবে চাকুরীচ্যুতি। মেয়র বলেন, অতিতের কর্মকান্ডকে অতিত মনে করে নতুন করে পরিকল্পিতভাবে সিটি কর্পোরেশনকে ঢেলে সাজানো হবে। আধুনিক বিশ্বের বর্জ্য ব্যবস্থাপনার ধারনাকে পর্যায়ক্রমে বাস্তবয়ন করা হবে। ধীরে ধীরে পরিকল্পিত পদ্ধতিতে ঢাকনা সমেত আন্ডার গ্রাউন্ড ডাষ্টবিন তৈরী করে বর্জ্য ব্যবস্থাপনাকে একটি নতুন নিয়মে আনা হবে। সিটি মেয়র ডোমখালের পরিনতি দেখে ক্ষোভ প্রকাশ করে বলেন, খালের দু’তীরের অধিবাসী ও ব্যবসায়ীদের কারনেই খাল আবর্জনায় ভরে যাচ্ছে। এ অব্যবস্থা চলতে পারে না। মেয়র বলেন, আধুনিক ব্যবস্থাপনায়, স্বাস্থ্য সম্মত পরিচ্ছন্ন নগরী, রাস্তাঘাট, নালা-নর্দমার উন্নয়ন ও সংস্কার, আলোবাতির সুব্যবস্থা করে নগরীর ঘরে ঘরে স্বাস্থ্য ও শিক্ষা সেবা পৌছে দিয়ে নাগরিকদের প্রত্যাশা পুরন করা হবে। তিনি বলেন, চান্দগাঁও ওয়ার্ডের কালুরঘাট বেতার থেকে বাংলার স্বাধীনতার ঘোষনা জাতির জনক বঙ্গবন্ধুর পক্ষে ঘোষিত হয়েছিল বলেই আজ আমরা স্বাধীন। ইতিহাসে চান্দগাঁও এর গুরুত্ব অপরিসীম। তিনি স্বাধীনতা পার্ককে আরো আধুনিকায়ন করে জাতির জনকের ভাস্কর্য স্থাপনের উদ্যোগ নেয়া হবে বলে জানান। মেয়র তার স্বপ্ন সাধ ও পরিকল্পনা বাস্তবায়নে সকল শ্রেণী ও পেশার নাগরিকদের সার্বিক সহযোগীতা কামনা করেন। ২৭মে ২০১৫খ্রি. সন্ধ্যায় নগরীর ৪নং চান্দগাঁও ওয়ার্ডে আওয়ামী লীগের উদ্যোগে পাঠান্যাগোদা হামিদিয়া প্রাথমিক বিদ্যালয় সংলগ্ন মাঠে নব নির্বাচিত সিটি মেয়র আলহাজ্ব আ.জ.ম নাছির উদ্দীন এর সংবর্ধনা সভায় সংবর্ধিত অতিথির ভাষনে তিনি এসব কথা বলেন। ওয়ার্ড আওয়ামীলীগের সভাপতি নুর মোহাম্মদ নুরুর সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত সংবর্ধনা অনুষ্ঠানে সংসদ সদস্য মঈনউদ্দিন খান বাদল, চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য প্রফেসর আনোয়ারুল আজিম আরিফ বিশেষ অতিথি ছিলেন। এতে চট্টগ্রাম মহানগর আওয়ামী লীগের উপদেষ্টা আলহাজ্ব নুরুল ইসলাম, ওয়ার্ড আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক এড. আইয়ুব খান, সহ সভাপতি মোহ্্াম্মদ ঈসা, সাংগঠনিক সম্পাদক এনামুল হক, যুবলীগের নুর মোহাম্মদ খোকন, স্বেচ্ছাসেবক লীগর সওকত আকবর রাশেদ, শ্রমিক লীগের সভাপতি আলী আকবর ও ছাত্রলীগের শাখাওয়াত হোসেন বক্তব্য রাখেন। অনুষ্ঠানে আওয়ামীলীগ, জাতীয় শ্রমিকলীগ, আওয়ামী যুবলীগ, আওয়ামী স্বেচ্ছাসেবকলীগ ও ছাত্রলীগের নেতা কর্মীরা সিটি মেয়রকে ক্রেষ্ট উপহার প্রদান সহ ফুলে ফুলে শুভেচ্ছা ও অভিনন্দন জানান।