চসিকের ময়লা থেকে বিদ্যুৎ তৈরি হবে

প্রকাশ:| শনিবার, ৪ নভেম্বর , ২০১৭ সময় ০৭:৫৩ অপরাহ্ণ

বিদ্যুৎ জ্বালানি ও খনিজ সম্পদ প্রতিমন্ত্রী নসরুল হামিদ বলেছেন, চসিকের ময়লা থেকে বিদ্যুৎ তৈরি হবে।  প্রযুক্তির ব্যবহার বাড়িয়ে জ্বালানি নিরাপত্তা নিশ্চিত করা হবে। পদ্মা, মেঘনা ও যমুনার অটোমেশন করা সম্ভব হলে তেলের অপচয় হ্রাস পেয়ে বছরে প্রায় ২ হাজার ৫ শত কোটি টাকা সাশ্রয় হতো। আগামী ৩ মাসের মধ্যে এ সংক্রান্ত পরামর্শক নিয়োগ দেয়ার নির্দেশ দেন তিনি।

শনিবার (০৪ নভেম্বর) নগরীর আগ্রাবাদে মেঘনা ভবণের নির্মাণকাজের উদ্বোধনের সময় তিনি এসব কথা বলেন।

বিদ্যুৎ জ্বালানি ও খনিজ সম্পদ প্রতিমন্ত্রী বলেন, আধুনিক বাংলাদেশ গড়তে দক্ষ ও দেশের প্রতি কমিটমেন্ট সম্পন্ন কর্মকর্তা-কর্মচারী প্রয়োজন। চট্টগ্রামের উন্নয়নে বিদ্যুৎ খাতের আধুনিক করতে ৪ হাজার কোটি টাকার প্রকল্প নেওয়া হয়েছে। প্রি-পেমেন্ট মিটার কার্যক্রম সম্প্রসারণ করা হচ্ছে। অচিরেই চট্টগ্রামবাসী ঘরে বসে বিদ্যুৎ বিল দিতে পারবে।পার্বত্য চট্টগ্রাম অঞ্চলে ৪৬ হাজার সোলার হোম সিস্টেম দেওয়ার উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে।

প্রতিমন্ত্রী বলেন, আবাসিক সংযোগে এলপিজি যাতে সুলভে পাওয়া যায় তার উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে। সরকারি একটি এলপিজি প্লান্ট থাকা প্রয়োজন। আগামী মাসের মধ্যে ওয়াসট টু এর্নাজি নিয়ে চট্টগ্রাম সিটি করপোরেশনের সাথে একটি চুক্তি করা হবে।

বিএসসি’র চেয়ারম্যান আবু হেনা মো. রহমাতুল মুনিমের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে অন্যদের মধ্যে সিটি মেয়র আ জ ম নাছির উদ্দীন, মেঘনা পেট্রোলিয়ামের পরিচালক মো. মাসুদুর রহমান ও স্থপতি এনামুল কবির নির্ঝর বক্তব্য দেন।

নির্মাণাধীন এ মেঘনা ভবনে ৩টি বেইজমেন্ট ফ্লোরসহ ১৯ তলা একটি অফিস ভবন নির্মাণ করা হবে, যার মোট ফ্লোর স্পেসের পরিমাণ হবে ৯ হাজার ৮৫৯ বর্গ মিটার। উক্ত স্পেসের একাংশ এমপিএলের হেড অফিস হিসেবে ব্যবহৃত হবে এবং বাকী অংশ ভাড়া প্রদান করার মাধ্যমে কোম্পানির আয়ের বিকল্প উৎস হবে।