চবি: দিনব্যাপী কর্মসূচির মাধ্যমে পহেলা বৈশাখ

প্রকাশ:| বৃহস্পতিবার, ১৪ এপ্রিল , ২০১৬ সময় ১০:৫০ অপরাহ্ণ

‘মুক্তিযুদ্ধের চেতনায় নন্দিত বৈশাখ’ এ প্রতিপাদ্য বিষয়কে ধারণ করে চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয় দিনব্যাপী কর্মসূচির মাধ্যমে পালিত হয়েছে পহেলা বৈশাখ।

সকাল সাড়ে ৮ টায় বিশ্ববিদ্যালয় গোল চত্বর থেকে বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য অধ্যাপক ড. ইফতেখার উদ্দিন চৌধুরী ও উপ-উপাচার্য অধ্যাপক ড. শিরীণ আখতারের নেতৃত্বে বের হয় আনন্দ শোভাযাত্রা।

শোভাযাত্রা শেষে জারুল তলার মূল মঞ্চে উপাচার্যের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত হয় উদ্বোধনী অনুষ্ঠান।এতে অন্যান্যদের মধ্যে বক্তব্য দেন উপ-উপাচার্য, ডিনস কমিটির আহবায়ক অধ্যাপক ড. মো. সেকান্দর চৌধুরী, শিক্ষক সমিতির সভাপতি অধ্যাপক ড. মোহাম্মদ আবুল মনছুর, রেজিস্ট্রার (ভারপ্রাপ্ত) অধ্যাপক ড. মোহাম্মদ কামরুল হুদা।

অনুষ্ঠানে স্বাগত বক্তব্য দেন অনুষ্ঠান উদযাপন কমিটির সদস্য-সচিব ও বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রক্টর মোহাম্মদ আলী আজগর চৌধুরী। অনুষ্ঠান পরিচালনা করেন ডেপুটি রেজিস্ট্রার (তথ্য) জনাব মো. ফরহাদ হোসেন খান।

বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য তাঁর বক্তব্যে বলেন, ‘বাঙালির হাজার বছরের ইতিহাসে এই প্রথম প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বৈশাখী উৎসবে উৎসব ভাতা প্রদান করে এর প্রাতিষ্ঠানিক ও আনুষ্ঠানিক স্বীকৃতি প্রদান করেছেন।এজন্য প্রধানমন্ত্রীর প্রতি আন্তরিক ধন্যবাদ ও কৃতজ্ঞতা।’

দিনব্যাপী কর্মসূচির মাধ্যমে পহেলা বৈশাখতিনি আরও বলেন, ‘পহেলা বৈশাখ লোকায়ত জীবনের উৎসব, বাঙালির প্রাণের উৎসব।বাংলা নববর্ষের উজ্জ্বল প্রত্যুষে বাঙালির জাতীয় জীবনে আনে আনন্দবোধ, আনে সম্মিলন চেতনা।পহেলা বৈশাখের উৎসব ও কর্মপ্রেরণায় পুরানো দিনের জীর্ণ-ক্লান্ত দিনগুলোর অবসান ঘটিয়ে মহান মুক্তিযুদ্ধের নির্ভীক চেতনাকে ধারণ করে নতুন স্বপ্ন নিয়ে অসাম্প্রদায়িক, গণতান্ত্রিক, সুখি-সমৃদ্ধ উন্নত বাংলাদেশ বিনির্মাণে সবাইকে ঐক্যবদ্ধ হতে হবে।

উপ-উপাচার্য তাঁর বক্তব্যে বলেন, ‘চৈত্রের শেষে বকুল জড়ানো পথে বিদায় নেয় বসন্ত, আসে পহেলা বৈশাখ, নববর্ষের শুভক্ষণ।এ শুভদিনে সবাইকে মহান মুক্তিযুদ্ধের চেতনাকে ধারণ করে তারুণ্যের উচ্ছ্বাসে সকল অপশক্তিকে পদদলিত করে সমাজে-দেশে সুন্দর, কল্যাণ ও মঙ্গল প্রতিষ্ঠায় ঐক্যবদ্ধ হয়ে দেশের উন্নয়ন ও অগ্রগতিতে ভূমিকা রাখাতে হবে।

দিনব্যাপী অনুষ্ঠিত কর্মসূচিতে ছিল বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্র-ছাত্রীদের পরিবেশনায় সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান, নাটক, আদিবাসীদের পরিবেশনা, নাট্যকলা বিভাগের শিক্ষার্থীদের পরিবেশনায় নাটক, শিক্ষক-কর্মকর্তা-কর্মচারীদের পরিবেশনা, চট্টগ্রামের ঐতিহ্যবাহী বলি খেলা, পুতুল নাচ, বউচি খেলা, লাঠি খেলা, বৈশাখী মেলা এবং সবশেষে সংগীত পরিবেশন করেন গুণী শিল্পী আবু বকর সিদ্দিক, বাউল শিল্পী রণেশ ঠাকুর এবং স্বাধীন বাংলা বেতার কেন্দ্রের বরেণ্য শিল্পী মনোরঞ্জন ঘোষাল।