চবি’র ছাত্রীহলে তল্লাশি চালিয়ে বিপুল পরিমান জিহাদি বই উদ্ধার

প্রকাশ:| বুধবার, ১৭ আগস্ট , ২০১৬ সময় ১০:৩২ অপরাহ্ণ

চবিচট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ের তিন ছাত্রীহলের বিভিন্ন কক্ষে বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসনের সহযোগিতায় তল্লাশি চালিয়ে বিপুল পরিমাণ জিহাদি বই ও নথি উদ্ধার করেছে পুলিশ। এসব কক্ষে জামায়াত ইসলামের মেয়েদের সংগঠন ‘ছাত্রী সংস্থা’র কর্মীরা অবস্থান করে বলে হলের অন্যান্য ছাত্রীদের বক্তব্য।

হলে জঙ্গিবাদে উদ্বুদ্ধ করে এমন বইপত্র আছে কিনা তার সন্ধানে ও এ রকম কাজের সঙ্গে জড়িত কেউ আছে কিনা তা বের করতে এই তল্লাশি চালানো হয়।

বুধবার রাত সাড়ে সাতটা থেকে বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রীতিলতা, শামসুন্নাহার ও খালেদা জিয়া ছাত্রীহলে এ তল্লাশি শুরু হয়। রাত ১০টা পর্যন্ত চলে এ তল্লাশি। এ সময় হলগুলোতে অবস্থানরত ছাত্রলীগের নারী নেত্রীরা জামায়াত ইসলামের মেয়েদের সংগঠন ‘ছাত্রী সংস্থা’র কর্মীদের কক্ষগুলো দেখিয়ে দেন। এসব কক্ষে তল্লাশি চালানো হয়।

বিষয়টি নিশ্চিত করে বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রক্টর মোহাম্মদ আলী আজগর চৌধুরী বাংলানিউজকে বলেন, ‘ছাত্রীদের তিনটি হলেই তল্লাশি চালানো হয়েছে। বিশ্ববিদ্যালয়ের জঙ্গিবিরোধী কর্মকাণ্ডের অংশ হিসেবে এ তল্লাশি চালানো হয়।’

বিশ্ববিদ্যালয়ের সহকারী প্রক্টর নিয়াজ মোরশেদ রিপন বলেন, তিনটি হলের বেশ কিছু কক্ষে তল্লাশি চালিয়ে বিপুল পরিমাণ বই, বেশ কিছু ডকুমেন্টসহ নানা তথ্য উপাত্ত উদ্ধার করা হয়েছে।

প্রীতিলতা হলে অবস্থানরত ছাত্রলীগের কেন্দ্রীয় সদস্য কাজী ফারিয়া মুনতাহা মুহী বলেন, ‘আমাদের হলের ছয়-সাতটি কক্ষে দীর্ঘদিন ধরে ‘ছাত্রী সংস্থা’র কর্মীরা অবস্থান করে উস্কানিমূলক কর্মকাণ্ড চালিয়ে আসছিল। আমরা এ বিষয়টি বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষকে জানিয়েছিলাম। এর পরিপ্রেক্ষিতে আজ তল্লাশি চালিয়ে বিপুল পরিমাণ জিহাদি বই ও নথি উদ্ধার করা হয়েছে। এজন্য বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ ও পুলিশ প্রশাসনকে ধন্যবাদ। তবে আমাদের দাবি থাকবে, প্রশাসন যেন দ্রুত তিনটি হলের বিভিন্ন কক্ষে অবস্থানরত ‘ছাত্রী সংস্থা’র কর্মীদের আসন বরাদ্দ বাতিল করে।’

এর আগে প্রীতিলতা হলের নামাজকক্ষ থেকে যুদ্ধাপরাধের দায়ে ফাঁসির দণ্ডপ্রাপ্ত জামায়াত ইসলামের সাবেক আমির মতিউর রহমান নিজামী, যুদ্ধাপরাধের দায়ে দণ্ডপ্রাপ্ত আরেক আসামি জামায়াত ইসলামের সাবেক আমির গোলাম আজম, জামায়াত ইসলামের প্রতিষ্ঠাতা সাইয়েদ আবুল আ’লা মওদূদীর এবং নিজামীর স্ত্রী ও মহিলা জামায়াতের কেন্দ্রীয় নেত্রী শামসুন্নাহার নিজামীর লেখা শতাধিক বই উদ্ধার করে পুলিশকে দিয়েছিল বিশ্ববিদ্যালয় শাখা ছাত্রলীগের মেয়েদের সংগঠন স্বাধীনতা ।

হলের ছাত্রীদের অভিযোগ হলের বিভিন্ন কক্ষে থাকা জামায়াত ইসলামের মেয়েদের সংগঠন ‘ছাত্রী সংস্থা’র কর্মীরা এসব বই নামাজ কক্ষে রেখেছেন এবং প্রায় প্রতিদিনই তারা এসব বই ধরিয়ে দিয়ে সাধারণ ছাত্রীদের তাদের পক্ষে উদ্বুদ্ধ করার চেষ্টা করছেন বলে ওই সময় অভিযোগ করেছিলেন স্বাধীনতার প্রতিষ্ঠাতা ও কেন্দ্রীয় ছাত্রলীগের সদস্য সানজিদা জিনিয়া।