চট্টগ্রাম সমিতি ঢাকা’র ভ্যান বিতরণ

প্রকাশ:| শনিবার, ৩০ আগস্ট , ২০১৪ সময় ১০:৫৫ অপরাহ্ণ

শনিবার ৩০শে আগস্টসকাল ১১টায় চট্টগ্রাম স্টেডিয়াম জিমনেসিয়াম হলে চট্টগ্রাম সমিতি-ঢাকা দারিদ্র্য বিমোচন কর্মসূচির অংশ হিসেবে বৃহত্তর চট্টগ্রামের বিভিন্ন উপজেলার ৮০ জন অসচ্ছল ব্যক্তির জীবনে স্বনির্ভরতা আনয়নের লক্ষ্যে ৮০টি রিকশা ভ্যান বিতরণ করবে।

সমিতির সভাপতি লায়লা সিদ্দিকীর সভাপতিত্বে ও সাধারণ সম্পাদক মোঃ গিয়াস উদ্দীন খানের পরিচালনায় অনুষ্ঠিতব্য এই সভায় প্রধান অতিথি থাকবেন গৃহায়ন ও গণপূর্ত মন্ত্রী ইঞ্জিনিয়ার মোশাররফ হোসেন এমপি ও বিশেষ অতিথি থাকবেন চট্টগ্রামের মেয়র আলহাজ্ব এম. মনজুর আলম।

উক্ত অনুষ্ঠানে চট্টগ্রামের বিশিষ্ট ব্যবসায়ী, শিল্পপতি, শিক্ষাবিদ, সাংবাদিক, সমাজসেবী ও সমিতির জীবনসদস্যদেরকে উপস্থিত থাকার জন্য সমিতির সাধারণ সম্পাদক মো. গিয়াস উদ্দীন খান অনুরোধ জানিয়েছেন।

উল্লেখ্য যে, ১৯১২ সালে কলকাতায় অধ্যয়নরত চট্টগ্রামের শিক্ষার্থীদের ভর্তি, থাকা-খাওয়া ও লেখাপড়ায় নানাবিধ সমস্যা সমাধানের লক্ষ্যে সেখানে বসবাসরত চট্টগ্রামের খান বাহাদুর মোহাম্মদ ইব্রাহীমের উদ্যোগে কতিপয় শিক্ষানুরাগী, ব্যবসায়ী ও দানবীর ব্যক্তির উদ্যোগে প্রতিষ্ঠিত হয় চট্টগ্রাম মোসলেম ছাত্র সমিতি। পরবর্তীকালে চট্টগ্রামবাসীর প্রয়োজনের তাগিদে ১৯৩৮ সালে গঠনতন্ত্র পরিবর্তনের মাধ্যমে সমিতির নামকরণ হয় চট্টগ্রাম মোসলেম ছাত্র ও জনসমিতি। দেশভাগের আগে পর্যন্ত সমিতি কলকাতায় চট্টগ্রামের অসচ্ছল শিক্ষার্থীদের শিক্ষাবৃত্তি প্রদান, চট্টগ্রামে বিভিন্ন দুর্যোগে সহায়তা, কলকাতায় লেখাপড়ারত শিক্ষার্থীদের ভর্তি ও থাকা-খাওয়ার ব্যবস্থা ও হজ্বযাত্রীদের সহায়তা এবং চট্টগ্রামের কৃতী ব্যক্তিদের সংবর্ধনা দিয়ে উৎসাহিত করা ও কলকাতায় বিভিন্ন প্রান্তে নানা পেশার চট্টগ্রামীদের মধ্যে ভ্রাতৃত্ববোধ ও সৌহার্দ্য স্থাপনের মাধ্যমে কার্যক্রম অব্যাহত রাখে।

দেশভাগের পর সমিতি ঢাকায় স্থানান্তরিত হয় ও যুগোপযোগী এবং অধিকতর কার্যকরী করার লক্ষ্যে ১৯৫৪ সালে ইসলামাবাদ সমিতি ও ১৯৬৪ সালে চট্টগ্রাম সমিতি-ঢাকা নামে ঢাকায় চট্টগ্রামবাসীর প্রতিনিধিত্বকারী সংগঠন হিসেবে ঢাকার বুকে একখন্ড চট্টগ্রাম হিসেবে চট্টগ্রামের মানুষের শিক্ষা, আর্তমানবতার সেবা ও সামাজিক কল্যাণমুখী সংগঠন হিসেবে নিরবচ্ছিন্নভাবে অবদান রাখছে। সমিতি ইতোমধ্যে ১০২ বছর সময় অতিক্রম করেছে। ২০১৪ সালে সমিতি ঢাকার বুকে একটি আধুনিক ও মানসম্মত হাসপাতাল প্রতিষ্ঠানের জন্য কাজ শুরু করেছে। যেখানে চট্টগ্রামের অসচ্ছল রোগীরা বিনা মূল্যে ও স্বল্প মূল্যে চিকিৎসা সেবা পাবে। চট্টগ্রাম সমিতির নেতৃবৃন্দ এই হাসপাতালটি প্রতিষ্ঠার জন্য চট্টগ্রামের ধনাঢ্য ব্যবসায়ী, শিল্পপতি ও দানবীর, সমাজসেবীদের এগিয়ে আসার আহ্বান জানান।


আরোও সংবাদ