চট্টগ্রাম থেকে যাওয়া ডেমু ট্রেন ভাটিয়ারিতে বিকল

প্রকাশ:| রবিবার, ১৬ অক্টোবর , ২০১৬ সময় ১১:৩৫ অপরাহ্ণ

রোববার বিকেল সাড়ে পাঁচটায় লাকসামের উদ্দেশ্যে চট্টগ্রাম স্টেশন ছেড়ে যাওয়া ডেমু ট্রেনটি ভাটিয়ারি এলাকায় পৌঁছার পর ইঞ্জিন বিকল হয়ে গেছে।মাঝপথে ইঞ্জিন বিকল হয়ে যাওয়ায় দুর্ভোগে পড়েছেন যাত্রীরা।

ইঞ্জিন বিকল হয়ে যাওয়ার দুইঘণ্টা পরও ঘটনাস্থলে পৌঁছতে পারেনি রেলের সংশ্লিষ্ট বিভাগের কর্মকর্তারা। তবে সন্ধ্যা সাড়ে ৭টা দিকে ডেমু ট্রেনটিকে টেনে কাছাকাছি কোন স্টেশনে আনতে আরেকটি ইঞ্জিন রওয়ানা দিয়েছে বলে জানিয়েছেন রেলের কর্মকর্তারা।

তবে ইঞ্জিন বিকলের কারণ জানাতে পারেননি রেলওয়ে পূর্বাঞ্চলের মহাব্যবস্থাপক মো.আবদুল হাই। তিনি বলেন, ভাটিয়ারি এলাকায় লাকসামগামী ডেমু ট্রেনের ইঞ্জিন বিকল হয়েছে।আরেকটি ইঞ্জিন এটিকে টেনে আনতে রওয়ানা দিয়েছে।

রেললাইনে ইঞ্জিন বিকল হলেও চট্টগ্রামের সঙ্গে রেল যোগাযোগ স্বাভাবিক রয়েছে বলে জানিয়ে জিএম বলেন, ইঞ্জিন সচল করা গেলে ডেমু লাকসামের উদ্দেশ্যে ছেড়ে যাবে। অন্যথায় যাত্রীদের অন্য কোন উপায়ে গন্তব্যে যেতে হবে।

ইঞ্জিন বিকলের কারণ জানতে চাইলে জিএম বলেন, বিষয়টি আমি জানি না। এজন্য চিফ মেকানিক্যাল ইঞ্জিনিয়ারের(সিএমই) সঙ্গে কথা বলার পরামর্শ দেন তিনি।এ বিষয়ে কথা বলার জন্য সিএমই’র মোবাইলে একাধিকবার কল দেওয়া হলেও তিনি রিসিভ করেননি।

এদিকে ইঞ্জিন বিকল হয়ে দুইঘণ্টা ধরে ভোগান্তি পোহালেও এ বিষয়ে কিছুই জানেন না রেলওয়ে পূর্বাঞ্চলের বিভাগীয় পরিবহন কর্মকর্তা ফিরোজ ইফতেখার।তিনি বলেন, ডেমু ট্রেনের ইঞ্জিন বিকল হয়েছে বলে শুনেছি। এর চেয়ে বেশি কিছু জানি না।

ইঞ্জিন বিকল হয়ে যাওয়া ডেমু ট্রেনে থাকা একজন যাত্রী বাংলানিউজকে বলেন, দুইঘণ্টা ধরে ইঞ্জিন বিকল হয়ে রেললাইনে লাকসামগামী ট্রেনটি পড়ে আছে।ট্রেনে যাত্রীরা চরম দুর্ভোগে পড়েছেন।

তিনি বলেন, কাছাকাছি কোন স্টেশন না থাকা এবং রাতের অন্ধকারে কেউ রেল থেকে নামতেও পারছে না।দুর্বিসহ অবস্থায় পড়েছে যাত্রীরা।

এদিকে রেলের দায়িত্বশীল কর্মকর্তারা জানিয়েছেন, আগামী বছর (২০১৭) ডেমু ট্রেনের লাইফটাইম শেষ হয়ে যাবে। এরপর ট্রেনগুলো চালানো সম্ভব হবে না। রেলের সংশ্লিষ্ট বিভাগের কর্মকর্তাদের মতামত না নিয়ে অনভিজ্ঞ লোকদের পরামর্শে চীন থেকে ৬৫৪ কোটি টাকায় কেনা এসব ডেমু ট্রেন বাংলাদেশ রেলওয়ের জন্য গলার কাঁটা হয়ে দাড়িয়েছে।

ভুলে চীন থেকে শীত প্রধান দেশের ডেমুগুলো গ্রীষ্মমণ্ডলীয় দেশ বাংলাদেশে আনা হয়েছে বলে সম্প্রতি পরিকল্পনা মন্ত্রণালয়ের বাস্তবায়ন পরিবীক্ষণ ও মূল্যায়ন বিভাগের (আইএমইডি) প্রতিবেদনে উঠে এসেছে।

কেন শীত প্রধান দেশের ডেমু আমাদের মতো গরমের দেশে আনা হয়েছে- সে বিষয়ে রেল মন্ত্রণালয়ের কাছে সঠিক ব্যাখ্যা চেয়েছে আইএমইডি।


আরোও সংবাদ