চট্টগ্রাম কেন্দ্রীয় কারাগারে বন্দিদের জন্য ভাল খাবারের আয়োজন

প্রকাশ:| বুধবার, ১৬ অক্টোবর , ২০১৩ সময় ১২:২২ অপরাহ্ণ

চট্টগ্রাম কেন্দ্রীয় কারাগারঈদুল আজহা উপলক্ষে পোলাও, গরুর মাংস, খাসির মাংস, রুই মাছ, চমচমসহ উপাদেয় খাবার দিয়ে বন্দিদের আপ্যায়ন করছে চট্টগ্রাম কেন্দ্রীয় কারা কর্তৃপক্ষ।

ঈদ উপলক্ষে বুধবার সকালে বন্দিদের দেয়া হয়েছে সেমাই ও মুড়ি। দুপুরের খাবারে দেয়া হচ্ছে ভাল মানের চাউলের তৈরি সাদা ভাত, আলুর দম ও রুই মাছ এবং রাতের খাবারের তালিকায় রাখা হয়েছে পোলাও, গরুর মাংস অথবা খাসির মাংস এবং পান-সুপারি ও চমচম মিষ্টি।

চট্টগ্রাম কেন্দ্রীয় কারাগারের জেলার রফিকুল কাদের বলেন, ‘সরকারী বরাদ্দ অনুযায়ী আমরা সাধ্যমত ভাল মানের খাবারের আয়োজন করেছি। রাতে প্রত্যেক বন্দিকে পোলাওয়ের সঙ্গে আড়াই’শ গ্রাম গরু অথবা খাসির মাংস দেয়া হবে। যারা মাংস খেতে অনীহা দেখাবেন, তাদের জন্য দু’টি করে ডিম বরাদ্দ করা হয়েছে।’

এদিকে চট্টগ্রাম কেন্দ্রীয় কারাগারে বুধবার সকালে প্রায় চার হাজার বন্দি একসঙ্গে ঈদের নামাজ আদায় করেছেন। নামাজে একসঙ্গে দাঁড়ানো বন্দিদের মধ্যে ভিআইপি বন্দি যেমন ছিলেন তেমনি ছিলেন সাধারণ বন্দিরাও। বন্দিদের সঙ্গে একই কাতারে নামাজ আদায় করেছেন চট্টগ্রাম কেন্দ্রীয় কারাগারের কর্মকর্তারাও।

চট্টগ্রাম কেন্দ্রীয় কারাগারের জেলার রফিকুল কাদের বলেন, ‘কারাগারে বর্তমানে চার হাজার তিন’শ জন বন্দি আছেন। এর মধ্যে চার হাজারের মত মুসলমান আছেন। সবার অংশগ্রহণে সকাল ৯টায় কারাগারের মাঠে একটি ঈদ জামাত অনুষ্ঠিত হয়েছে।’

কারাগারের কর্মকর্তাদের সূত্রে জানা গেছে, সাধারণ বন্দিদের সঙ্গে ঈদের জামাতে শরীক হওয়া ভিআইপি বন্দিরা হলেন, দশ ট্রাক অস্ত্র মামলার দু’আসামী রাষ্ট্রায়ত্ত সার কারখানা সিইউএফএল’র সাবেক ব্যবস্থাপনা পরিচালক মোহসীন উদ্দিন তালুকদার ও সাবেক মহাব্যবস্থাপক এনামুল হক,মুফতি হারুন ইজহার।

জেলার রফিকুল কাদের বলেন, ‘বেশকিছু দুর্ধর্ষ জঙ্গীকে আমরা কাশিমপুর কারাগারে পাঠিয়ে দিয়েছি। বাকি যারা আছেন তারা আমাদের সঙ্গে নামাজ আদায় করেছেন।