চট্টগ্রাম কলেজ প্রাক্তন ছাত্রলীগ পরিষদের স্মরণ সভা

নিউজচিটাগাং২৪/ এক্স প্রকাশ:| সোমবার, ২২ জানুয়ারি , ২০১৮ সময় ১২:০৪ পূর্বাহ্ণ

চট্টগ্রাম কলেজ প্রাক্তন ছাত্রলীগ পরিষদের উদ্যোগে চট্টগ্রাম সিটি কর্পোরেশনের ৩বারের নির্বাচিত সাবেক মেয়র, মহানগর আওয়ামীলীগের সদ্যপ্রয়াত সভাপতি বীর মুক্তিযোদ্ধা চট্টলবীর আলহাজ্ব এ.বি.এম মহিউদ্দিন চৌধুরী স্মরণে এক স্মরণ আলোচনা সভা পরিষদের সভাপতি বি.এম এর কেন্দ্রীয় সহ-সভাপতি ডা. শেখ শফিউল আজমের সভাপতিত্বে ২১ জানুয়ারি বিকেল ৪টায় চট্টগ্রাম প্রেস ক্লাবের ইঞ্জিনিয়ার আব্দুল খালেক মিলনায়তনে অনুষ্ঠিত হয়। আলোচক হিসেবে আলোচনায় অংশগ্রহণ করেন বাংলাদেশ আওয়ামীলীগের উপদেষ্ঠা বিশিষ্ট সমাজবিজ্ঞানী প্রফেসর ড. অনুপম সেন, চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ের মাননীয় উপাচার্য প্রফেসর ড. ইফতেখার উদ্দিন চৌধুরী, প্রয়াত মহিউদ্দিন চৌধুরী পুত্র বাংলাদেশ আওয়ামীলীগের সাংগঠনিক সম্পাদক ব্যারিষ্টার মহিবুল হাসান চৌধুরী নওফেল, ইউএসটিসি’র উপাচার্য প্রফেসর ডা. প্রভাত চন্দ্র বড়–য়া। জসিম উদ্দিন আহমদ চৌধুরী ও অলিদ চৌধুরীর পরিচালনায় এতে বক্তব্য রাখেন, মহানগর ছাত্রলীগের সাবেক সভাপতি রফিকুল হোসেন বাচ্চু, বি.এম.এ চট্টগ্রামের সাবেক সাধারণ সম্পাদক ডা. নাছির উদ্দিন মাহমুদ, চট্টগ্রাম কলেজ প্রাক্তন ছাত্রলীগ পরিষদের যুগ্ম সম্পাদক লিয়াকত আলী খান, সাহাব উদ্দিন আহমদ, সাবেক কমিশনার শহিদুল আলম, রেখা আলম চৌধুরী, আব্দুল লতিফ টিপু, প্রয়াত মহিউদ্দিন চৌধুরী’র কনিষ্ঠ পুত্র বোরহান উদ্দিন চৌধুরী সালেহিন, ফখরুদ্দীন বাবলু, আব্দুল হামিদ, মাহবুবুর রহমান শিবলি, হাসান মনসুর, এসকান্দর আলী, অধ্যাপক নিশাত হাসিনা শিরিন, আঞ্জুমান আরা, সেলিম আক্তার পিয়াল, আসিফ ইকবাল, মুহাম্মদ আরিফ, মাহমুদুল করিম প্রমুখ।
স্মরণ সভায় প্রফেসর ড. অনুপম সেন বলেন, আশির দশক থেকে চট্টগ্রামের মাটি ও মানুষের জন্য কাজ করে চট্টগ্রাম বাসির মনজয় করে গণমানুষের নেতায় পরিণত হয়েছিল জননেতা এ.বি.এম মহিউদ্দিন চৌধুরী। তিনি সমগ্রবিশ্বে চট্টগ্রামকে পরিচয় করতে পেরেছেন। বঙ্গবন্ধুর সোনার বাংলা প্রতিষ্ঠায় তার পরিকল্পনা, সাংগঠনিক ও প্রশাষনিক দক্ষতা মূখ্য ভূমিকা পালন করবে। তিনি একাদারে একজন সফল সংগঠনক তেমনি একজন্য যোগ্যতর প্রশাষক হিসেবে নিজেকে প্রতিষ্ঠিত করতে পেরেছেন। গণমানুষের প্রতি তার ভালবাসা ও কর্ম চট্টগ্রাম বাসি তাকে চিরদিন স্মরণ রাখবে। তিনি চট্টগ্রামের সকল রাজনীতিক নেতাদের মহিউদ্দিন চৌধুরীর মত ত্যাগী ও দায়িত্বশীল নেতা হওয়ার আহবান জানান। চবি উপাচার্য প্রফেসর ড. ইফতেখার উদ্দিন চৌধুরী বলেন, মহিউ চৌধুরী তাঁর দেশপ্রেমিক কর্মের মধ্যদিয়ে চট্টগ্রামবাসীর কাছে যুগযুগ বেঁচে থাকবে। তিনি বলেন, ত্যাগ ও আদর্শের রাজনীতিতে চট্টলবীর মহিউদ্দিন চৌধুরী বঙ্গবন্ধুর আদর্শের সাহসি সৈনিক হিসেবে আমৃত্যু গণ মানুষের উন্নয়নে কাজ করে গেছেন। প্রয়াত মহিউদ্দিন চৌধুরী পুত্র ব্যারিষ্টার নওফেল বলেন, আমার পিতার আদর্শ বাস্তবায়ন ও চট্টগ্রামের উন্নয়নে সব সময় নিজেকে নিয়োজিত রাখার চেষ্টা করব। তিনি আরো বলেন, আমার পিতা চট্টগ্রামের মানুষের জন্য সবসময় মন প্রাণ উজাড় করে কাজ করেছেন। বঙ্গবন্ধুর আদর্শের সৈনিক হতে হলে এবং আগামীদিনে বাংলাদেশকে এগিয়ে নিতে ছাত্রনেতাদের অধিকতর দক্ষতা অর্জন করতে হবে। ছাত্রনেতাদের নিজের শিক্ষাগত যোগ্যতাকে জাতির স্বার্থে কাজে লাগাতে হবে। ইউএসটিসি উপাচার্য ডা. প্রভাত চন্দ্র বড়–য়া বলেন, প্রয়াত জননেতা মহিউদ্দিন চৌধুরী জাতীয় নেতৃত্ব এবং মন্ত্রীত্ব গ্রহণের সুযোগ ত্যাগ করে আজীবন চট্টগ্রামবাসীর সেবা করে গেছেন। চট্টগ্রামের নেতা হয়েও তিনি সমগ্র বাংলাদেশের মানুষের কাছে একজন কিংবদন্তী রাজনীতিক হিসেবে জীবনের শেষ নিঃশ্বাস ত্যাগ করেছেন। মহতি কর্মের জন্য তিনি আজীবন আমাদের মাঝে বেঁচে থাকবেন। সভাপতির বক্তব্যে ডা. শফিউল আজম বলেন, ’৭৫ পরবর্তি আওয়ামী রাজনীতির দূঃসময়ে চট্টলবীর মহিউদ্দিন চৌধুরী আওয়ামীলীগের হাল ধরেছিলেন। মনে প্রাণে চট্টগ্রামের উন্নয়নে চট্টগ্রামের স্বার্থ রক্ষায় মৃত্যুর আগ পর্যন্ত তিনি আন্দোলন সংগ্রাম করে গেছেন। চট্টগ্রামকে তিনি একটি আধুনিক শহরে পরিণত করেছেন।