চট্টগ্রাম কলেজের সাফল্যে

প্রকাশ:| শনিবার, ৩ আগস্ট , ২০১৩ সময় ০৫:৩২ অপরাহ্ণ

গত বছর এইচএসেসিতে ষষ্ঠ হলেও দু’ধাপ এগিয়ে চলতি বছরে চট্টগ্রাম শিক্ষা বোর্ডের সেরা কলেজের তালিকায় চতুর্থ স্থান ctg collegeঅর্জন করেছে ইস্পাহানী পাবলিক স্কুল অ্যান্ড কলেজ।

দুপুরে কলেজ প্রাঙ্গণে এ ফলাফল ঘোষণা করেন অধ্যক্ষ মাহবুবুল আলম চৌধুরী।

এবারের পরীক্ষায় এ কলেজ থেকে ২৫৬ জন শিক্ষার্থী অংশগ্রহণ করেন। এর মধ্যে ২৫৫ জন শিক্ষার্থীই উত্তীর্ণ হয়েছেন। তাদের মধ্যে প্রায় অর্ধেক অর্থাৎ ১২৩ শিক্ষার্থী সর্বোচ্চ জিপিএ-৫ অর্জন করেছেন।

বোর্ডের সেরা শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের তালিকার মূল ভিত্তি পাঁচটি সূচকের ১০০ পয়েন্টের মধ্যে ৭৮ দশমিক ৩২ পয়েন্ট অর্জন করে ঐতিহ্যবাহী এ শিক্ষা প্রতিষ্ঠান।

কাঙ্ক্ষিত এ ফলাফল প্রসঙ্গে কলেজ অধ্যক্ষ মাহবুবুল আলম চৌধুরী বাংলানিউজকে বলেন, ‘শ্রেণিকক্ষে শিক্ষার্থীদের শতভাগ উপস্থিতির কারণে এ ফলাফল অর্জন করা সম্ভব হয়েছে। আমরা শ্রেণিকক্ষে পাঠদানের উপর জোর দিয়েছি। তাই শিক্ষার্থীদের কোচিং এর উপর নির্ভর করতে হয়না। ক্লাসের পড়া ক্লাসেই আদায় করা হয়।’

ভাল ফলাফল অর্জনের জন্য শিক্ষক-শিক্ষার্থী ও অভিভাবকদের প্রতি কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করেন অধ্যক্ষ। তিনি বলেন, ‘সবার সম্মিলিত প্রচেষ্টার কারণে এ সাফল্য পাওয়া গেছে। শিক্ষক ও অভিভাবকদের আন্তরিকতা ও সহযোগিতা ছিল উল্লেখ করার মত। আর শিক্ষার্থীরা ভাল ফলাফলের জন্য পরিশ্রম করেছেন।’

আগামী দিনেও এ সাফল্য ধরে রাখতে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে বলে জানিয়েছেন কলেজ অধ্যক্ষ মাহবুবুল আলম চৌধুরী।শিক্ষার্থীদের বাঁধভাঙা উচ্ছ্বাসেই ফুটে উঠেছে চট্টগ্রাম কলেজের সাফল্যের চিত্র। সহকর্মীদের সঙ্গে নিয়ে শনিবার দুপুরে আনুষ্ঠানিক এ ফল ঘোষণা করেন কলেজ অধ্যক্ষ শেখর দস্তিদার। ঘোষণা শেষ হওয়ার সঙ্গে সঙ্গেই শিক্ষার্থীদের আনন্দ-উল্লাসে উৎসবমুখর পরিবেশ সৃষ্টি হয় কলেজ ক্যাম্পাসে।

চলতি বছরের এইচএসসি পরীক্ষায় চট্টগ্রাম শিক্ষাবোর্ডের সেরা কলেজের তালিকায় দ্বিতীয় অবস্থান অর্জন করে চট্টগ্রাম কলেজ। টানা তিন বছর ধরে সেরার তালিকায় একই অবস্থান ধরে রেখেছে ঐতিহ্যবাহী এ কলেজ।

এবার চট্টগ্রাম কলেজ থেকে পরীক্ষায় অংশগ্রহণ করেছেন ৭৫৩ শিক্ষার্থী। উত্তীর্ণ হয়েছেন ৭৪১ শিক্ষার্থী। সর্বমোট জিপিএ-৫ পেয়েছেন ৪৮০ শিক্ষার্থী।

কলেজের বিজ্ঞান বিভাগ থেকে অংশগ্রহণকারী ৪৬৩ শিক্ষার্থীর মধ্যে ৪০৮জনই পেয়েছেন জিপিএ-৫। অন্যদিকে মানবিক বিভাগের ২৯০ শিক্ষার্থীদের মধ্যে জিপিএ-৫ পেয়েছেন ৭২ শিক্ষার্থী।

সাফল্যের রহস্য জানতে চাইলে কলেজ অধ্যক্ষ শেখর দস্তিদার বাংলানিউজকে বলেন, ‘শুরু থেকেই শিক্ষার্থীদেরকে নিবিড় তদারকির মধ্যে পাঠদান করা হয়। সন্তানের ভাল ফলাফলের ব্যাপারে অভিভাবকরাও ছিলেন সচেতন। তাই এ সাফল্য অর্জন সম্ভব হয়েছে।’

তবে বর্ষীয়ান এ শিক্ষাবিদ কাঙ্ক্ষিত এ ফলাফলের জন্য মূল কৃতিত্ব দিয়েছেন শিক্ষার্থীদেরকেই।

প্রত্যাশিত ফলাফলে শিক্ষার্থীদের মাঝে খুশির বারতা থাকলেও দেশের রাজনৈতিক পরিস্থিতি নিয়ে তাদের মধ্যে গভীর হতাশা ভর করেছে।

জিপিএ-৫ প্রাপ্ত শিক্ষার্থী পারমিতা, সাজেদ, পার্থ সাহা বাংলানিউজকে বলেন, ‘আমরা আশা করি, রাজনৈতিক দলগুলো সাধারণ শিক্ষার্থীদের প্রতি আরও বেশি সংবেদনশীল হবেন। তাদের মধ্যে গণতান্ত্রিক চর্চা থাকবে এটাই আমাদের প্রত্যাশা। শিক্ষার্থীদেরকে ক্ষমতার জন্য ব্যবহার না করে সুস্থধারার রাজনীতিতে আগ্রহী করে তুলতে রাজনীতিবিদদের প্রয়োজনীয় ভূমিকা গ্রহণ করতে হবে।’

ভাল ফলাফলের জন্য তারা শিক্ষক ও অভিভাবকদের প্রতি কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করেন এবং তাদের ধন্যবাদ জানান।

কলেজের উপাধ্যক্ষ জেসমিন আক্তার বাংলানিউজকে বলেন, ‘শ্রেণিকক্ষে শিক্ষার্থীদের উপস্থিতি বৃদ্ধি ও পাঠে মনযোগী এবং শিক্ষকদের নিয়মিত কাউন্সেলিং ও যত্নবান হওয়ায় এ ফলাফল ‍অর্জন করা সম্ভব হয়েছে।’