চট্টগ্রামে মেশিনারীজ প্ল্যান্ট স্থাপনে আগ্রহী জাপান

প্রকাশ:| রবিবার, ২৮ জুলাই , ২০১৩ সময় ০৮:১৮ অপরাহ্ণ

বাংলাদেশে নবনিযুক্ত জাপান এক্সটার্নাল ট্রেড অর্গানাইজেশন‘র (জেট্রো) কান্ট্রি রিপ্রেজেন্টেটিভ কেই কাওয়ানো জানিয়েছেন, chember2চট্টগ্রামে অটোমোবাইল, ইলেক্ট্রনিক্স ও মেশিনারীজ প্ল্যান্ট স্থাপনে আগ্রহী জাপান।

রোবার ওয়ার্ল্ড ট্রেড সেন্টারে দি চিটাগাং চেম্বার অব কমার্স এন্ড ইন্ডাষ্ট্রি কার্যালয়ে সভাপতি মাহবুবুল আলম’র সাথে মতবিনিময়কালে তিনি একথা জানান।

জেট্রো’র কান্ট্রি রিপ্রেজেন্টিটিভ কেই কাওয়ানো চীনে ২২ হাজার, ভারতে ১ হাজার, থাইল্যান্ডে ৭ হাজার জাপানী প্রতিষ্ঠান থাকলেও বাংলাদেশে মাত্র ১৬০টি প্রতিষ্ঠান রয়েছে বলে জানান।

তিনি বাংলাদেশের সম্ভাবনাকে কাজে লাগাতে রিজিওনাল কানেক্টিভিটি, অশুল্ক বাধা দূরীকরণ এবং ট্রেড ফ্যাসিলিটেশনে প্রয়োজনীয় দ্বিপাক্ষিক ও বহুপাক্ষিক চুক্তি সম্পাদন ও বাস্তবায়নের পদক্ষেপ গ্রহণ করা জরুরী বলে মন্তব্য করেন।

চেম্বার সভাপতি মাহবুবুল আলম জাপান এবং বাংলাদেশের সম্পর্ক ও গুরুত্বপূর্ণ বাণিজ্য অংশীদারীত্বের প্রসঙ্গ উল্লেখ করে আর্থ সামাজিক উন্নয়ন এবং দারিদ্র বিমোচনে অগ্রাধিকার ভিত্তিতে জাপান সরকারের সহযোগিতার জন্য কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করেন।

কৌশলগত অবস্থান, শ্রমিক প্রাচুর্যতা ও সহজলভ্যতার কারণে বাংলাদেশকে বিশ্বের অন্যতম বৃহৎ এবং আকর্ষণীয় বিনিয়োগ উপযোগী অভিহিত করে জাপানের সানসেট ইন্ডাষ্ট্রিজগুলো এদেশে স্থানান্তরে জাপানী উদ্যোক্তাদের উৎসাহিত করার জন্য জেট্রো প্রধানের ব্যক্তিগত উদ্যোগ কামনা করেন তিনি।

চেম্বার সভাপতি এ ঞ্চলের ব্যবসা-বাণিজ্য, প্রযুক্তি ও কারিগরি সহযোগিতা, মানব সম্পদ উন্নয়ন এবং বেসরকারী খাতের সমতা বৃদ্ধিতে অত্র চেম্বার ও জেট্রোর যৌথ ভূমিকা গ্রহণের উপর গুরুত্বারোপ করেন এবং কোরিয়ান ইপিজেড’র আদলে জাপানী বিনিয়োগকারীদের জন্য ‘স্পেশাল ইন্ডাষ্ট্রিয়াল ভিলেজ’ স্থাপনের প্রস্তাব করেন।

চেম্বার সহ-সভাপতি সৈয়দ জামাল আহমেদ বর্তমানে বিদ্যুৎ পরিস্থিতির যথেষ্ট উন্নতি হয়েছে উল্লেখ গ্যাস সমস্যা সমাধানের আশা প্রকাশ করেন।

চেম্বার পরিচালক মাহফুজুল হক শাহ এগ্রোবেইজড ইন্ডাষ্ট্রি, পর্যটন ও সেবা খাতেও জাপানী বিনিয়োগের অনুরোধ জানান। চট্টগ্রামে ৩দিনের সফরকালে জেট্রো রিপ্রেজেন্টেটিভ বন্দর ও ইপিজেডস্থ জাপানী কোম্পানীসমূহ পরিদর্শন করবেন।

এ সময় চেম্বার পরিচালক মো. অহীদ সিরাজ চৌধুরী, মোঃ দিদারুল আলম, মো. জহুরুল আলম ও মোহাম্মদ মোর্শেদসহ ঢাকার জেটরোর পরিচালক লিটন সি. সরকার উপস্থিত ছিলেন।